মঙ্গলবার ১৯ জুন ২০১৮ ৫ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মধ্যপাড়া খনিতে পাথর উত্তোলন দিন দিন বাড়ছেই

মেহেদী হাসান উজ্জল, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি॥ দিনাজপুরের মধ্যপাড়া পাথর খনিতে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জার্মানীয়া-ট্রেষ্ট কনসোর্টিয়াম (জিটিসি) দ্বারা নির্মিত নতুন স্টোপ থেকে ৩ শিফটে পাথর উত্তোলন দিন দিন বাড়ছেই। পাথর খনিতে তিন শিফটে দুই দিনের ব্যবধানে ১ হাজার টন পাথর উত্তোলন বেড়ে প্রায় ৪ হাজার মেট্রিক টনে দাড়িয়েছে।

জিটিসি’র পাথর উত্তোলন এভাবে বাড়তে থাকলে তারা উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সম্ভব হবে বলে আশা করছেন।

খনি সুত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার পর্যন্ত পাথর উত্তোলন ছিল তিন হাজার মেট্রিক টনে। দুই দিনের ব্যবধানে গত ১ ফেব্রুয়ারী তিন শিফটে ১ হাজার মেট্রিক টন উত্তোলন বেড়ে পাথর উত্তোলন হয়েছে প্রায় ৪ হাজার মেট্রিক টন। লক্ষ্যমাত্রা সাড়ে ৫হাজার মে.টন পাথর উৎপাদনে পৌছে যাবে বলে জিটিসি জানায়।

মধ্যপাড়া পাথর খনির ঠিকাদারী প্রতিষ্টান জার্মানীয়া-ট্রেষ্ট কনসোর্টিয়াম (জিটিসি) এর অধীনে দক্ষ খনি শ্রমিকরা, রাশিয়ান ও বেলারুশিয়ান খনি বিশেষজ্ঞ দল এবং দেশী প্রকৌশলীরা ৩ শিফটে খনি উন্নয়ন ও পাথর উত্তোলন কাজে নিয়োজিত রয়েছেন। বিভিন্ন ধরনের প্রতিকুলতার মধ্যেও জিটিসি অতি দ্রুততার সাথে নতুন স্টোপ নির্মান ও খনি উন্নয়ন করে সফলতার সাথে তিন শিফটে পাথর উত্তোলন করছে এবং দিন দিন পাথর উত্তোলন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

জার্মানীয়া-ট্রেষ্ট কনসোর্টিয়াম (জিটিসি)র মহা-ব্যস্থাপক জাবেদ সিদ্দিকী বলেন, মধ্যপাড়া পাথর খনির উন্নয়ন ও পাথর উত্তোলনে খনির ঠিকাদারী প্রতিষ্টানের অধীনে বর্তমানে প্রায় ৭শ খনি শ্রমিক, ৭০ রাশিয়ান ও বেলারুশিয়ান খনি বিশেষজ্ঞ এবং অর্ধশতাধিক দেশী প্রকৌশলী দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন।

উল্লেখ্য, দেশে মধ্যপাড়া পাথর খনির পাথরের ব্যাপক চাহিদা থাকায় পাথর উত্তোলনের সাথে সাথে সব পাথর বিক্রি হয়ে যাচ্ছে। ডিলারদের চাহিদা অনুযায়ী পাথর সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। খনির ঠিকাদারী প্রতিষ্টান জিটিসি বর্তমানে যে কর্মযজ্ঞ চালাচ্ছে তাতে অচিরেই খনিটি লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।