রবিবার ২৯ মার্চ ২০২০ ১৫ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মধ্যরাতে সাংবাদিককে সাজার নথি তলব, আদেশ কাল

কুড়িগ্রামে মধ্যরাতে বাড়ির দরজা ভেঙে মোবাইলকোর্টের মাধ্যমে এক সাংবাদিককে কারাদণ্ড দেয়ার  আদেশের কপি তলব করেছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে ওই সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মোবাইলকোর্ট না টাক্সফোর্সের মাধ্যমে অভিযান পরিচালনা করেছেন তা জানতে চেয়েছেন আদালত। 

আগামীকাল সোমবারের মধ্যে রাষ্ট্রপক্ষকে তা জানাতে বলা হয়েছে। এছাড়া রাষ্ট্রপক্ষের কাছে কয়েকটি প্রশ্নের জবাব চেয়েছেন আদালত।

আদালত যা যা জানতে চেয়েছেন তা হলো- মধ্যরাতে অভিযান পরিচালন কারণ কী? অভিযান পরিচালনার তথ্য কিভাবে পেলেন? কে দিয়েছে? সে সংক্রান্ত ডকুমেন্ট চেয়েছেন। মদ, গাঁজা পাওয়ার ঘটনা কার সামনে সংঘটিত হয়েছে ,তার তথ্য দিতে বলা হয়েছে।

এক রিট আবেদনের শুনানি করে রোববার বিচারপতি মো. আশরাফুল কামাল ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

একইসঙ্গে আদালত রিটের আদেশের জন্য আগামীকাল সোমবার দিন ধার্য করেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন ও অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল দেবাশীষ ভট্টাচার্য।

এর আগে সকালে কুড়িগ্রামে মধ্যরাতে বাড়ির দরজা ভেঙে মোবাইলকোর্টের মাধ্যমে অনলাইন নিউজ পোর্টাল বাংলা ট্রিবিউনের এক সাংবাদিককে কারাদণ্ড দেয়ার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়েছে। ডিসি সুলতানা পারভীনসহ সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেটদের তলব চাওয়ার পাশাপাশি ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ চাওয়া হয়।

অনলাইন পত্রিকাটির নির্বাহী সম্পাদক  হারুন উর রশীদের পক্ষে আইনজীবী ইশরাত হাসান জনস্বার্থে রিটটি দায়ের করেন।

রিটে ফৌজদারী কার্যবিধি, ভ্রাম্যমাণ আদালত আইন, মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন এবং সংবিধানের ৩১,৩২,৩৫ এবং ৩৬ অনুচ্ছেদের সুস্পষ্ট লঙ্ঘনের বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে।  

উল্লেখ্য, গত ১৩ মার্চ মধ্য রাতে কুড়িগ্রাম ডিসি অফিসের দুই-তিনজন ম্যাজিস্ট্রেট ১৫-১৬ জন আনসার সদস্যকে নিয়ে সাংবাদিক আরিফুলের বাসার দরজা ভেঙে তার বাসায় প্রবেশ করেন। তবে তারা কোনো তল্লাশি অভিযান চালাননি। পরে ডিসি অফিসে নেয়ার পর তারা দাবি করেন, আরিফুলের বাসায় আধা বোতল মদ ও দেড়শ’ গ্রাম গাঁজা পাওয়া গেছে। আরিফুলকে রাতেই মোবাইলকোর্টের মাধ্যমে এক বছরের সাজা দেয়া হয়।

জানা গেছে, জেলা প্রশাসক মোছা. সুলতানা পারভীন একটি পুকুর সংস্কার করে নিজের নামে নামকরণ করতে চেয়েছিলেন। আরিফুল এ বিষয়ে নিউজ করার পর থেকেই তার ওপর ক্ষুব্ধ ছিলেন ডিসি। এছাড়া, সম্প্রতি জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন অনিয়ম নিয়ে রিপোর্ট করতে চেয়েছিলেন সাংবাদিক আরিফ। এ বিষয়ে জানতে পেরে জেলা প্রশাসকের অফিস থেকে তাকে বেশ কয়েকবার ডেকে নিয়ে সতর্ক করা হয়।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email