মঙ্গলবার ১২ নভেম্বর ২০১৯ ২৮শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মনিপুর রাজ্যের স্বাধীনতার ঘোষণা

ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য মনিপুরের স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছে বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতারা।  লন্ডনে একটি প্রবাসী সরকারও গঠন করেছে তারা। খবর হিন্দুস্তান টাইমসের। লন্ডনে একটি সংবাদ সম্মেলনে মনিপুরকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হয়।

লন্ডনে এক সংবাদ সম্মেলনে স্বঘোষিত মনিপুর স্টেট কাউন্সিলের পররাষ্ট্র মন্ত্রী নারেংবাম সমরজিত বলেন, লন্ডনে বসেই প্রবাসী সরকার মনিপুরের স্বীকৃতি আদায়ে জাতিসংঘে তৎপরতা চালাবে।

তিনি বলেন, আমরা এখান থেকেই প্রবাসী সরকারের কার্যক্রম চালাবো। এসময় তিনি মনিপুরের স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। মনিপুরের রাজা লেইশেমবা সানাজাওবার পক্ষ থেকে স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছেন বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, আমরা বিভিন্ন দেশের স্বীকৃতি আদায়ের চেষ্টা করবো। সেইসেঙ্গে জাতিসংঘের সদস্যপদ পেতেও চেষ্টা করা হবে। আশা করছি অনেক দেশই আমাদের স্বাধীনতাকে স্বীকৃতি দেবে। এ বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে লন্ডনের ভারতীয় হাইকমিশনের প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

‘সেভেন সিস্টার্স’ হিসেবে পরিচিত পূর্বাঞ্চলীয় সাত রাজ্যের একটি মনিপুর। ভারতের স্বাধীনতা লাভের দুই বছর পর ১৯৪৯ সালে মনিপুর ভারতের সঙ্গে যুক্ত হয়। তবে দীর্ঘদিন ধরেই ভারত থেকে আলাদা হওয়ার সংগ্রাম করে আসছে রাজ্বিচ্ছিন্নতাবাদী। 

সংবাদ সম্মেলনে নবগঠিত সরকারের মুখ্যমন্ত্রী ইয়ামবেন বিরেন বলেন, ভারতের দমন-নিপীড়ন থেকে বাঁচতে আমরা দেশ ছেড়ে পালাতে বাধ্য হয়েছি। চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে ব্রিটেনের কাছে আশ্রয় চেয়েছেন বলে নিশ্চিত করেন তারা।

তারা জানিয়েছেন, ভারত থেকে স্বাধীনতার ঘোষণা দিলে তারা হয়তো গ্রেফতার হতে পারেন অথবা ভারতের নিরাপত্তা বাহিনী তাদের হত্যা করতে পারে।

মনিপুরের এই নেতা দাবি করেন,  মনিপুরে গত ১০ বছরে অন্যায়ভাবে প্রায় সাড়ে চার হাজার মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়া আরও দেড় হাজারের বেশি মানুষকে অবৈধভাবে বন্দী করা হয়েছে। গত কয়েক দশকে প্রায় ১৫ হাজার মানুষ প্রাণ হারিয়েছে।