রবিবার ৫ জুলাই ২০২০ ২১শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মহানায়িকা সুচিত্রা সেনের চিরপ্রস্থান, শেষকৃত্য সম্পন্ন

Suchtraশুক্রবার কলকাতার স্থানীয় সময় সকাল ৮টা ২৫মিনিটে মহানায়িকা সুচিত্রা সেন চলে গেলেন না ফেরার দেশে। তার বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর।
গত ২৩ ডিসেম্বর ফুসফুসে সংক্রমণ হয়ে বাংলা চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি অভিনেত্রী সুচিত্রা সেন কলকাতার বেলভিউ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

মহানায়িকার মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি সকালেই বেলভিউ হাসপাতালে ছুটে যান। পরে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মুখ্যমন্ত্রী এবং সুচিত্রা সেনের চিকিৎসক সুব্রত মৈত্র হাসপাতালের বাইরে এসে মহানায়িকার মৃত্যুর কথা আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করেন।

এসময় মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বলেন, “আজ ৮টা ২৫ মিনিট নাগাদ ওনার মৃত্যু হয়েছে। এটা বিশ্ব বাঙালি জগতের কাছে দুঃসংবাদ।  আমার হৃদয় ভেঙে চুরমার করে দিয়েছে সুচিত্রা সেনের মৃত্যু সংবাদ।  । তার চিকিৎসায় নিয়োজিত চিকিৎসকরা ভেঙে পড়েছেন।”

পরে স্থানীয় সময় সকাল ১১টার দিকে সুচিত্রা সেনের একমাত্র মেয়ে মুনমুন সেন হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে আসেন। এ সময় তিনি বাইরে অপেক্ষমাণ সাংবাদিকসহ সকলের উদ্দেশ্যে শুধু একটা কথাই বলেন—”সবাইকে আমার মায়ের নমস্কার।এরপর স্থানীয় সময় বেলা পৌনে ১২টার দিকে সুচিত্রা সেনকে হাসপাতাল থেকে কালো কাঁচের গাড়িতে করে কলকাতার বালিগঞ্জের বাড়িতে নেওয়া হয়। বেলা সোয়া ১টার দিকে তার মরদেহ শেষকৃত্যের জন্য নেওয়া হয় কেওড়াতলা মহাশ্মশানে। সেখানে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে মহানায়িকাকে গান স্যালুটের মাধ্যমে সম্মান প্রদর্শন করা হয়। পরে আনুষ্ঠানিকতা শেষে বেলা পৌনে ২টার দিকে চন্দন কাঠের চিতায় মায়ের মুখাগ্নি করেন মেয়ে মুনমুন সেন।

১৯৩১ সালের ৬ এপ্রিল বাংলাদেশের পাবনায় জন্মগ্রহণ করেন সুচিত্রা সেন। তার পারিবারিক নাম ছিল রমা দাশগুপ্ত। বাবা করুণাময় দাশগুপ্ত ছিলেন স্থানীয় স্কুলের প্রধান শিক্ষক। পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে তিনি ছিলেন তৃতীয়।

১৯৪৭ সালে শিল্পপতি আদিনাথ সেনের ছেলে দিবানাথ সেনের সঙ্গে বিয়ে হয় সুচিত্রার। এই দম্পতির একমাত্র মেয়ে মুনমুন সেন এবং দুই নাতনী রিয়া সেন ও রাইমা সেনও অভিনেত্রী।

১৯৫২ সালে চলচ্চিত্র জগতে প্রথম পা রাখেন সুচিত্রা। তবে সে বছর করা তার প্রথম ছবি ‘শেষ কোথায়’ অবশ্য শেষ পর্যন্ত মুক্তি পায়নি। তার প্রথম মুক্তিপ্রাপ্ত বাংলা সিনেমা ‘সাত নম্বর কয়েদি’ মুক্তি পায় ১৯৫৩ সালে।

‘সাত পাকে বাঁধা’ চলচ্চিত্রে অনবদ্য অভিনয়ের স্বীকৃতি স্বরূপ প্রথম বাঙালি অভিনেত্রী হিসেবে তিনি মস্কো ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে সেরা অভিনেত্রীর সম্মান পান। ১৯৭২ সালে পান পদ্মশ্রী খেতাব।

২০০৫ সালে তিনি দাদা সাহেব ফালকে পুরস্কারে ভূষিত হলেও জনসমক্ষে না আসতে না চাওয়ায় শেষ পর্যন্ত পুরস্কারটি আর পাওয়া হয়নি তার।

বাংলা চলচ্চিত্রের পাশাপাশি বেশ কিছু হিন্দি চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেন মহানায়িকা সুচিত্রা সেন। তার প্রথম হিন্দি চলচ্চিত্র ‘দেবদাস’ মুক্তি পায় ১৯৫৫ সালে।

১৯৭৮ সালে সুচিত্রা সেন অভিনীত শেষ বাংলা চলচ্চিত্র ‘প্রণয় পাশা’ মুক্তি পায়। ওই বছরই চলচ্চিত্র থেকে অবসর নেওয়ার আগ পর্যন্ত অর্ধশতাধিক বাংলা ও হিন্দি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন তিনি।

উত্তম কুমারের সঙ্গে জুটি বেঁধে সুচিত্রা সেনের চলচ্চিত্রগুলো আজও বাঙালির হৃদয়ে দোলা দিয়ে যায়। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য কয়েকটি চলচ্চিত্র হচ্ছে—সাত নম্বর কয়েদী, সাড়ে চুয়াত্তর, সাত পাকে বাঁধা, শাপমোচন, দ্বীপ জেলে যাই, পথে হলো দেরি, মরণের পরে, রাজলক্ষ্মী-শ্রীকান্ত, দত্তা, সাগরিকা, গৃহদাহ, সবার ওপরে ইত্যাদি।

চলচ্চিত্র থেকে অবসরের পর থেকেই লোকচক্ষুর অন্তরালে ছিলেন সুচিত্রা। শেষবার তিনি জনসমক্ষে আসেন ১৯৮৯ সালে, তার গুরু ভরত মহারাজের মৃত্যুর পর।
শুক্রবার দুপুরে কলকাতার কেওড়াতলা মহা শ্মশানের চিত্তরঞ্জন দাস উদ্যানে চন্দন কাঠের চুল্লীতে বিলীন হয়ে গেলো বাংলা চলচ্চিত্রের মহানায়িকার নশ্বর দেহ। এর আগে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তরফে সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মান গান স্যালুট প্রদান করা হয়। এর পর বাজানো হয় মহানায়িকার প্রিয় গান।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email