বৃহস্পতিবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২০ ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মহান একাদশ জাতীয় সংসদে ২০২০ সালের প্রথম অধিবেশনে বক্তব্য রাখেন অ্যাডভোকেট জাকিয়া তাবাসসুম জুঁই এমপি

মোঃ লিটন হোসেন আকাশ ॥ একাদশ জাতীয় সংসদে ২০২০ সালের প্রথম অধিবেশনের তৃতীয় দিনে ১৪ই জানুয়ারী বুধবার সন্ধ্যায় হাজার বছরের শ্রেষ্ট বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান,জাতীয় চার নেতা,২১শে গ্রেনেড হামলার নিহত নেতাকর্মীসহ কমলমতি শিশু শেখ রাসেল কে স্বরণ করে বক্তব্যে শুরু করেন দিনাজপুরের কৃতি সন্তান অ্যাডভোকেট জাকিয়া তাবাসসুম জুঁই এমপি। সারা বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আবাসিক প্রকল্পের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন বাংলাদেশে কোন মুক্তিযোদ্ধা যাতে গৃহহীন না থাকে । আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল। দূর্নীতি,মাদক ও জঙ্গীবাদ নির্মূলে সরকার জিরো ট্রলারেন্স ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে। যা বিশ্বব্যাপি প্রসংশিত হচ্ছে এবং জনজীবনে স্বস্থি বিরাজ করছে। বিশ্বব্যাংকের হিউম্যান ক্যাপিটেল ইনভেষ্ট ১৭৭ টি দেশের মধ্যে পাকিস্তান ও ভারতকে পেছনে ফেলে বাংলাদেশ হয়েছে ১০৬ তম। বিশ্ব বাণিজ্যে অস্থিরতা বেড়ে চলার সত্যেও বাংলাদেশের রপ্তানি আয় বেড়েছে। ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে রপ্তানি আয় পূর্ববর্তী অর্থ বছরের তুলনায় ১০ দশমিক ৬ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে, যা ৪০ দশমিক ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাড়িয়েছে। জন-দরদী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ক্যান্সার,কিডনী,লিভার ,স্টক,জন্মগত প্যারালাইস রোগীসহ বিভিন্ন দুস্থ পরিবারের মাঝে এককালিন ৫০ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। খেলাবান্ধব এ সরকার আমলে নেপালে অনুষ্ঠিত সাউথ এশিয়ান গেমর্স- ২০১৯ এ ১৯ টি স্বর্ণ ৩৩ রৌপ,৯০টি সিলভাসহ মোট ১৪২ পদক বাংলাদেশ লাভ করে। এছাড়া বাংলাদেশের ক্রীড়াঅঙ্গনে মহিলা ক্রীড়ায় সাফল্য অবাহত রয়েছে। স্কোটল্যান্ডে অনুষ্ঠিত টি-২০ বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে ক্রিকেট নারীদল অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষন করে তিনি ঠাকুরগাঁও জেলায় বিমানবন্দরটি পুনরায় চালু করে সাবেক এম,এন,এ মোঃ আজিজুর রহমানের নামে নামকরণ করার জোর দাবি জানান। কেননা, মোঃ আজিজুর রহমান ১৯৬৬ থেকে ১৯৭৩ পর্যন্ত বৃহত্তর দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সেক্টর ৬ এর অর্ধেক ও ৭ নম্বর সেক্টরের সিভিল এফেয়ার্স এডভাইজার, রিক্রুটিং অফিসার, লিয়াজোঁ অফিসার ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক জেনারেল ওসমানী তাঁকে অত্র সেক্টরের লেফটেনেন্ট জেনারেল পদমর্যাদা দালিলিকভাবে প্রদান করেছিলেন। তিনি একইসাথে মুক্তিযুদ্ধের সময়ে পশ্চিমাঞ্চল ক জোনের প্রশাসনিক কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করে মুক্তিযুদ্ধ সুসংগঠিত করতে অক্লান্ত পরিশ্রম করে নেতৃত্ব দেন। তিনি বৃহত্তর দিনাজপুরের জন্য জোর দাবি জানিয়ে বলেন আমার জন্ম দিনাজপুর শহরে ।  দিনাজপুর থেকে ৮ কিলোমিটার দক্ষিণে দিনাজপুরের ঐতিহাসিক রামসাগর। রাজা রামনাথ এ দীঘিটি খনন করেন তার নাম অনুসারে দীঘীটির নাম হয়েছে রামসাগর যার দৈঘ্য-১ হাজার ১৮৩ গজ’ ও  প্রস্থ ৩৮০ গজ’ গভীরতা প্রায় ৪০ ফুট’ রামসাগর দীঘিটি কে আরও উন্নত ও পর্যটন স্পট হিসেবে গড়ে তোলার জরালো দাবী জানান । এবং তিনি মহান জাতীয় সংসদ অধিবেশনে হাজার বছরের শ্রেষ্ট বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম ও মৃত্যু বার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে লেখা গান,কবিতা,গল্প, সারা বাংলার কবিদের লেখার আহবান জানান। যা বঙ্গবন্ধুর জন্মবর্ষে আমরা তার প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করতে পারি। যা আমাদের হৃদয়ে মুজিবের চেতনা ও আদর্শ গড়তে সহায়ক হবে বলে আমি বিশ্বাস করি জয় বাংলা-জয় বঙ্গবন্ধু।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email