রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১২ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মাইলফলক : বাংলা একাডেমি বই মেলা ২০২০

মহান একুশে ফেব্রুয়ারিকে কেন্দ্র করে রাজধানী ঢাকায় বাংলা যে বই মেলার আয়োজন করেছে এখন তা শেষের পথে। যখন এই লেখা লিখছি (২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০) তখন মেলা শেষের দিকে, আর যখন এটা প্রকাশিত হবে তখন মেলা শেষ হয়ে যাবে বলেই আমার ধারণা। তবুও মনে হলো মেলা শেষ হলেও মেলা নিয়ে লেখক-গবেষক, সাংবাদিকদের লেখা তো শষ হবে না। তাই আমারো দু কলাম লিখতে বসে যাওয়া।

বাংলা একাডেমি বইমেলা কালে কালে পরিনত হয়েছে বাঙালির প্রানের মেলায়। প্রতি বছর এই মেলার কলেবর বেড়েছে, লোক সমাগমও বেড়েছে। তার সাথে প্রকাশকের সংখ্যা, বইয়ের সংখ্যা এবং ক্রেতার সংখ্যা, সব কিছুই বেড়েছে। এবারের বাংলা একাডেমি বই মেলা বিরাটকায় আয়তন নিয়ে করার কারণে মেলা চত্বরে যাতায়াতের বা চলাচলের ক্ষেত্রে এক ধরণের স্বস্তি লক্ষ্য করা গেছে। দুই সারি স্টলের মধ্যবর্তী চলাচলের যে পথ তা অনেকটা চওড়া ছিল এবং প্যাভিলিয়নগুলোর চতুর্দিকে যথেষ্ট স্পেস ছিল। ফলে সাধারণ মানুষ কিংবা ক্রেতা, কিংবা আড্ডা দিতে আসা লোকজনের বিচরণ ছিল স্বাচ্ছন্দপুর্ণ। তারা হেঁটেছেন, বসেছেন, দাঁড়িয়েছেন এবং ইচ্ছেমত গল্প করে, আড্ডা দিয়ে সেলফি তুলে সময় কাটিয়েছেন কোন রকম ঝুট-ঝামলা ছাড়া।

ব বই মেলায় আমিও গিয়েছিলাম। মেলায় গিয়ে বিভিন্ন লেখকের লেখা প্রায় ছয় হাজার টাকার বই কিনেছি। বাংলা একাডেমি বই মেলায় এবারেই প্রথম আমার লেখা কোন বইয়ের (তৃণমূলে বঙ্গবন্ধু প্রেক্ষাপট দিনাজপুর) মোড়ক উন্মোচন করা হয়েছে। সেই মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছি। যে সকল স্টল ও প্যাভিলিয়নে আমার লেখা বই বিক্রি হয়েছে সেগুলোতে গিয়ে কিছু সময় করে আড্ডা দিয়েছি। কয়েকজন লেখক, প্রকাশক, গবেষকের সাথে প্রয়োজনে-অপ্রয়োজনে কথা বলেছি, ছবি ও সেলফি তুলেছি। দুই দফায় পাঁচদিন গিয়ে বই মেলায় আড্ডা আর গল্পে সময় কাটিয়েছি। আমার লেখা বইকে কেন্দ্র করেই বাংলা একাডেমি বই মেলায় আমার যাওয়া-আসার সূচনা ২০১৬ সালে। এরপর হতে প্রতি বছর যাচ্ছি। এবারেও গিয়েছি।

২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে বাংলা একাডেমি বইমেলার মোড়ক

উন্মোচন মঞ্চে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা ৫০ জন লেখকের ৫০টি বইয়ের

মোড়ক উন্মোচন করেন অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল। বইগুলোর

প্রকাশক তাম্রলিপি।

আমার লেখা ভাষা আন্দোলনে দিনাজপুর বইটি প্রকাশিত হয়েছিল ১৯৯২ সালে, নিজস্ব ব্যবস্থাপনায়। এরপর আরো কয়েকটি বই নিজস্ব অর্থায়নে প্রকাশিত হয়। কিন্তু কোন অর্থ খরচ না করে আমার প্রথম প্রকাশিত বই হলো ‘বহলা গণহত্যা।’ গবেষক মুনতাসীর মামুন ও মামুন সিদ্দিকীর সম্পাদনায় বইটি ২০১৫ সালের মার্চ মাসে জার্নিম্যান বুকস এবং ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর ট্রাস্ট প্রকাশ করেছিল। একই বছর ডিসেম্বর মাসে প্রকাশ করেছিল ‘পশ্চিম রাজারামপুর গণহত্যা’ বইটি। ঐ দুটো বইয়ের মাধ্যমে ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত বাংলা একাডেমি বই মেলায় আমার প্রথম অভিষেক ঘটে। জার্নিম্যান বুকস প্যাভিলিয়নে মুক্তিযুদ্ধ ও গণহত্যা ভিত্তিক অনেক বইয়ের সাথে সাথে আমার লেখা ঐ বই দুটোও বিক্রি হতে দেখা যায়। সে সময় জানিম্যান তাদের বইয়ের যে ক্যাটালগ প্রকাশ করেছিল তার মধ্যে আমার বই দুটোওে নাম ছিল। প্রতিষ্ঠানটি তখন তাদর প্রকাশিত বইয়ের প্রতি পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য ডিজিটাল পদ্ধতিতেও এক ধরণের প্রচারনা চালাচ্ছিল। সেই প্রচারনাতেও আমার বইয়ের নাম ও লেখকের নাম ছিল। এছাড়া জার্নিম্যান সেই সময় একটি ডেস্ক ক্যালেন্ডার প্রকাশ করেছিল। তাতেও বহলা গণহত্যা, পশ্চিম রাজারামপুর গণহত্যা বই দুটোর নাম এবং লেখকের  নাম মুদ্রিত হয়েছিল। ডিজিটাল প্রচার ও ডেস্ক ক্যালেন্ডারে আমার নাম পেয়ে তখন অভিভূত হয়েছিলাম। গুগলে সার্চ দিয়ে তখন থেকে অনলাইন ভিত্তিক বই বিপনন প্রতিষ্ঠান রকমারী ডটকম ও বইবাজার ডটকম আমার বইয়ের নাম এবং লেখক হিসেবে আমার নাম দেখতে পাই, যা আমার ভেতর অন্যরকম অনুভূতি এনে দেয়।

 ২০১৬ ও ২০১৭ সালে আমার নতুন কোন বই প্রকাশিত হয় নাই। তবে ২০১৭ সালে জার্নিম্যান বুকস প্যাভিলিয়নে পশ্চিম রাজারামপুর গণহত্যা বইটি বিক্রি হতে দেখা গেলেও বহলা গণহত্যা ছিল না। পরে শুনি ঐ দুটো বই কলকাতা বইমেলায় নিয়ে যাওয়ার পর বহলা গণহত্যা শেষ হয়ে গছে। ১৯১৮ সালে গণহত্যা-নির্যাতন ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষণা কেন্দ্র থেকে প্রকাশ করা হয় আমার লেখা ‘ঝানজিরা গণহত্যা’ বইটি। এর পরিবেশক জার্নিম্যান ও সুবর্ণ। ২০১৯ সালের বাংলা একাডেমি বই মেলায় এই দুটো প্যাভিলিয়নেই ঝানজিরা গণহত্যা বিক্রি করতে দেখেছি।

২০১৯ সালের মার্চ মাসে গণহত্যা-নির্যাতন ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষণা কেন্দ্র থেকে আমার লেখা ‘গণহত্যা-বধ্যভূমি ও গণকবর জরিপ লালমনিরহাট জেলা’ প্রকাশ করা হয়। বইটির পরিবেশক সুবর্ণ এবং অনন্যা। ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে টাঙ্গন থেকে প্রকাশিত হয় ‘মুক্তিযুদ্ধোত্তর দিনাজপুর ট্রাজেডি।’ ্ বছরের (২০২০ সালের) বই মেলায় উল্লেখিত ৩টি প্রতিষ্ঠানের প্যাভিলিয়ন অথবা স্টলে বই তিনটি বিক্রি হয়েছে। প্রতিষ্ঠান হিসেবে টাঙ্গনএবারের বই মেলাকে ঘিরে টাঙ্গনের প্রকাশক অজয় কুমার রায় ব্যক্তিগত ভাবে যথেষ্ট বিকশিত ছিলেন। তার সাক্ষাৎকার বৈশাখি সহ কয়েকটি টিভি চ্যানেলে প্রচারিত হয়েছে। বই মেলা সংক্রান্ত তার লেখা, সাক্ষাৎকার ও ভাবনা দৈনিক খোলা কাগজসহ বেশ কিছু পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। ২১ ফেব্রুয়ারির খোলা কাগজে তার লেখার সাথে আমার বইয়ের রঙ্গিন কভার মুদ্রিত হয়েছিল। কোন জাতীয় দৈনিকে এই প্রথম বারের মত আমার বইয়ের কভার ছাপানো হলো, যা আমাকে লেখনী চালিয়ে যেতে উজ্জীবীত করেছে।

এবারের বই মেলায় আমার জন্য আরেকটা শিহরন হলো তাম্রলিপি। দেশের অন্যতম সেরা এই প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান হতে আমার লেখা ‘তৃণমূলে বঙ্গবন্ধু প্রেক্ষাপট দিনাজপুর’ বইটি প্রকাশিত হয়েছে এবারের বই মেলায়। বইটিতে কথা সাহিত্যক সেলিনা হোসেন সম্পাদক ও মামুন সিদ্দিকী নির্বাহি সম্পাদকের দায়ত্ব পালন করেছেন। ২০ ফেব্রুয়ারি বাংলা একাডেমি চত্বরে বইটির মোড়ক উন্মোচন করেছেন বাংলাদেশের অন্যতম সেরা লেখক অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল। 

তাম্রলিপি মুজিব বর্ষ উপলক্ষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উপর আমারটি সহ ৫০টি বই প্রকাশ করেছে ২০২০ সালের বাংলা একাডেমি বই মেলায়। এর প্রচারনার অংশ হিসেবে বই মেলায় তাম্রলিপির যে নান্দনিক প্যাভিলিয়ন তৈরী করা হয়েছিল স্বাধীনতা স্তম্ভ ঝিলের পাশে, সেই প্যাভিলিয়নের মাথার উপর বঙ্গবন্ধু বিষয়ক প্রতিটি বইয়ের নাম ও লেখকের নাম উল্লেখ করে আলাদা আলাদা বোর্ড লাগিয়েছিল। বাংলা একাডেমির বইমেলায় আমার নামের বোর্ড দেখে আমি  তো হতভম্ব হয়ে গিয়েছিলাম। দিনাজপুরের মত দূরবর্তী জায়গায় বসবাস করার পরেও এতবড় প্রাপ্তি আমার জীবনে আসবে এটা কখনো মনেই করতে পারিনি। তাম্রলিপি, টাঙ্গন, সুবর্ণ ও অনন্যা এই ৪টি স্টলে এবার আমার বই বিক্রি হয়েছে। প্যাভিলিয়নের মাথায় আমার নামের বোর্ড উঠেছে। প্রকাশক ও পরিবেশকদের বইয়ের বুক ক্যাটালগে লেখক হিসেবে আমার নামসহ আমার লেখা বইগুলোর নাম এসেছে যা দেশের বিভিন্ন প্রান্ত হতে আসা লেখক, পাঠক, ক্রেতা ও দর্শকদের কাছে বিতরণ হয়েছে। এর ফলে সারা দেশেই আমার নাম ছড়িয়ে গেছে লেখক-গবেষক হিসেবে, যা ভাল লাগার বিষয় বটে। ব্যক্তিগত ভাবে এবারের বই মেলা হতে আরো অর্জন আছে। বিলু কবীরের সম্পাদনায় বটেশ^রী হতে ‘লেখক অভিধান’ নামের একটি বই প্রকাশিত হয়েছে। এতে প্রায় ৫০০ লেখকের সংক্ষিপ্ত জীবনী ছবিসহ ছাপানো হয়েছে। এর মধ্যে দিনাজপুরের মাত্র দুই জনের জীবনী এসেছে বইটিতে,  আমার ও উত্তর বাংলা সম্পাদক মতিউর রহমানের।

 এবারের বই মেলায় আসা আরেকটি বইয়ের নাম উল্লেখ করতে হয়। হাসিনা আহমেদ এর লেখা ‘১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন গ্রন্থপ্রঞ্জি।’ এই বইটিতে মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যা নিয়ে যে সকল বই প্রকাশিত হয়েছে তার একটি তালিকা, লেখকের নাম, প্রকাশকের নাম, তারিখ, মূল্য ইত্যাদি তুলে ধরা হয়েছে। বইটতে আমার লেখা তিনিটি বইয়ের কথা উল্লেখ রয়েছে। এবারের বই মেলায় এটাও আমার জন্য বেশ বড় একটা অর্জন। এছাড়া অন্যান্য লেখকদের প্রকাশিত অনেক বইয়ে আমার নাম এসেছে বিভিন্ন ভাবে। কোন বইয়ে আমার লেখাকে রেফারেন্স হিসেবে ব্যবহার করার কারণ আমার নাম উল্লেখ রয়েছে, কোন বইতে সংশ্লিষ্ট প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানের প্রকাশিত বইয়ের তালিকায় আমার নাম এসছে। সব মিলিয়ে বলা যায় যে, বাংলা একাডেমি বই মেলা ২০২০ যেমন একটি বর্ধিত, নতুন নতুন বইয়ের সমাহারে সমৃদ্ধ, ক্রেতাদের কাছে সমাদৃত এবং পাঠক-লেখকের মহামিলনে নন্দিত, তেমনি ব্যক্তিগত ভাবে আমার জীবনের নতুন ফাইল ফলক। এবার দিনাজপুর ও লালমনিরহাটে অনুষ্ঠিত বই মেলাতেও আমার লেখা অনেকগুলা বই বিক্রি হয়েছে। তাই বইমেলা ২০২০ আমার জন্য অনেক অর্জনে সমৃদ্ধ। বিশেষ করে বাংলা একাডেমি বই মেলা ২০২০ আমার জন্য এক নতুন শিহরণ, নতুন এক দিক দর্শন ও নতুন এক মাইলফলক।

 লেখক-আজহারুল আজাদ জুয়েল

সাংবাদিক, কলামিষ্ট, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email