শুক্রবার ১৭ অগাস্ট ২০১৮ ২রা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মাদক বিরোধী অভিযানের ফলে কর্মী সংকটে বুলবুল

কয়েক মাস আগে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দেশ জুড়ে চলে মাদক বিরোধী অভিযান। সেই অভিযানে দেশের আনাচে-কানাচে থাকা মাদক ব্যবসায়ীর ব্যবসা বন্ধ হওয়ার সাথে তাদের আটক করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। শুধু তাই নয় অবৈধ পথে আসা মাদক ও বিভিন্ন গডফাদারদের সাথে থাকা যোগাযোগ গুড়িয়ে দেয়া হয় সেই অভিযানে। অভিযানের মাধ্যমে জানা যায় মাদক ব্যবসায়ীর বেশির ভাগই বিএনপি এবং জামায়াতের সদস্য।

গত কয়েক বছর ধরে বিএনপির নেতাকর্মীরা নানা অসৎ উপায়ে অর্থ যোগাড় করা শুরু করেছিল। এমনকি দলের আনুষঙ্গিক খরচও মিটানো হতো সেই অর্থের টাকা দিয়ে। তাদের সাথে মাদক চোরাচালানের বড় যোগাযোগ থাকায় সহজেই লোকচক্ষুর আড়ালে চালায় এই মাদক ব্যবসা। কিন্তু একদিন না একদিন গর্তের সাপ বের হবেই। ঠিক সেইভাবে বিএনপি এবং জামায়াতের চলা জমজমাট মাদক ব্যবসার খবর সবার সামনে বের হয়ে আসে। সেই থেকে চিরুনি অভিযানের মাধ্যমে নির্মূল করা হয় মাদকের এই কালো হাত। এই মাদক নির্মূল করা অভিযানে ধরা পরে সহস্রাধিক বিএনপির নেতাকর্মীরা। এবং এর প্রভাব পড়েছে রাজশাহী নির্বাচনে বিএনপির পদপ্রার্থী বুলবুলের প্রচার প্রচারণায়।

কথায় আছে প্রচারেই প্রসার। সেই প্রেক্ষিতে বিএনপির বুলবুল হাজার অপরাধ করার পরও নির্বাচনী প্রচারণায় টিকে থাকতে হাজার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু ভাগ্যদেবী যে তার সহায় নয়। কারণ নেতাকর্মীর সংকটে রয়েছে বিএনপির বুলবুল। নির্বাচন যত ঘনিয়ে আসছে তার কর্মী সংকটের মাত্রা প্রবল থেকে প্রবলতর হচ্ছে। নির্বাচনী প্রচার প্রচারণায় দলের নেতাকর্মীরা খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। ব্যানার ফেস্টুন লাগানোর জন্যও পাওয়া যাচ্ছে না তৃণমূলের কোনো কর্মীকে। কারণ তারা সবাই মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত থাকার জন্য ভোগ করছে কারাবাস।

তৃণমূল নেতাদের কারাবাসের জন্য বেগ পোহাতে হচ্ছে রাজশাহীতে বিএনপির পদপ্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলকে। নানা অপরাধ দুর্নীতির সাথে জড়িত থাকার কারণে বিএনপির নেতাকর্মীরা বেশিরভাগই রয়েছেন কারাগারে। এমনকি দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এতিমদের টাকা আত্মসাৎ করার অপরাধে তিনিও রয়েছেন কারাগারে। যখন দলের চেয়ারপারসন কারাগারে তখন দলের অর্ধেকের বেশি নেতাকর্মীরা কারাগারে থাকা অস্বাভাবিক কিছু নয়। এজন্য নেতাকর্মী শূন্য হয়ে পড়েছে বুলবুলের নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা।

মানুষের কর্ম তার নিজের কাছেই ফিরে আসে। বিএনপির নেতাকর্মীরাও তাদের কর্মফল ভোগ করছে এজন্যই তারা কারাগারে। মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত থাকার কারণেই বিএনপির নেতাকর্মীরা কারাগারে আর বুলবুলের প্রচার প্রচারণা কর্মী শূন্য।