বুধবার ২৪ অক্টোবর ২০১৮ ৯ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের রংপুর আঞ্চলিক অফিসের উদাসীনতা

মো. মিজানুর রহমান (মিজান), চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের রংপুর আঞ্চলিক অফিসের উদাসীনতার কারণে রংপুর অঞ্চলে সাড়ে ১১ শত শিক্ষক চলতি মে মাসে এমপিও থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। নির্ধারিত সময়ে তাদের ফাইল মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর মাউশিতে না পাঠানোর স্কুল, কলেজ ও মাদরাসার শিক্ষকরা বঞ্চিত হয়েছে। এনিয়ে বঞ্চিতদের মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। গত মার্চ মাসেও এমন ঘটনা ঘটেছিল রংপুর আঞ্চলিক শিক্ষা অফিসে। এনিয়ে দ্বিতীয় দফায় এ অঞ্চলের শিক্ষকরা বঞ্চিত হলেন। মাউশি সূত্রে জানা গেছে, প্রযুক্তি (আইসিটি), বিজ্ঞান, গাহস্থ বিজ্ঞান, সমাজকর্ম, সমাজ বিজ্ঞান, চিত্রাঙ্কন, কৃষি ও চারুকলাসহ বিভিন্ন বিষয়ে নন এমপিও শিক্ষকদের মে মাসে (নতুন এমপিও) এমপিও ভুক্তির জন্য নির্ধারিত সময় ছিল গত ১৮মে। কিন্তু ইলেক্ট্রনিক ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম (ইএমআইএস) সেল পুড়ে যাওয়ার, সময় বাড়িয়ে ২৫শে পর্যন্ত করা হয়। এ সময়ের মধ্যে সারাদেশের শিক্ষকদের ফাইল আঞ্চলিক অফিস থেকে মাউশি ইএমআইএস সেলে পাঠানোর সময় দেয়া হয়। কিন্তু রংপুরে আঞ্চলিক অফিষ থেকে ১ হাজার ১৫০ জন শিক্ষকের ফাইল পাঠানো হয়নি। নির্ধারিত সময়ে। ফলে স্কুল, কলেজ মাদ্রাসার শিক্ষকদের এমপিও অনুমোদন থেকে বাদ পড়ছেন। মাউশির কর্মকর্তা ও ভুক্তভোগী শিক্ষকদের অভিযোগে জানা যায়, রংপুরের উপ-পরিচালক মোস্তাক হাবিবের বিরুদ্ধে গত মার্চ মাসেও উদাসীনতার অভিযোগ উঠে। সে সময় এমপি বঞ্চিত ক্ষুদ্ব্র শিক্ষকদের পক্ষে গত ১৯শে মসার্চ মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব ও মাউশির মহাপরিচালক বরাবর অভিযোগ করেন গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ি ফকিরহাট স্মৃতিসৌধ স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক মতলুবুর রহমান পলাশ। এ অভিযোগের পর তার বিরুদ্ধে মাউশি থেকে ব্যবস্থ্য নিতে পত্র দেয়া হলেও মন্ত্রণালয়ে বিষয়টি আর এগোয়নি। মন্ত্রণালয়ে ও মাউশির সূত্র মতে, ২০১১ সালের পিরপত্র বাতিল করে আইসিটি, বিজ্ঞাপনসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ের শিক্ষকদের এমপিও দিতে ২০১৭সালের ৩১শে ডিসেম্বর আবার পরিপত্র জারি করে সরকার। ওই পরিপত্র অনুযায়ী ৭১৪৬ জন শিক্ষক এমপিও আবেদনের সুযোগ পান। এসব শিক্ষকদের মধ্যে বেশির ভাগের এমপিওভুক্ত শেষ হলেও বাদ পড়েন প্রায় ২ হাজার শিক্ষক। তাদের মধ্যে কিছু নতুন শিক্ষকও রয়েছেন বলে জানা যায়। তথ্য মতে বঞ্চিত শিক্ষকদের অনেকেই গত মার্চ মাসে এমপিওভুক্ত হন। মার্চ মাসের এমপিও থেকে বাদ পড়েন রংপুর অঞ্চলের প্রায় দেড় হাজার শিক্ষক। তাদের মধ্যে কিছু শিক্ষকদের আবেদন নিস্পত্তি হলেও ঝুলে থাকে ১১৫০ জনের এমপিওভুক্তির আবেদন। দিনাজপুর জেলার চিরিরবন্দর উপজেলার ২ জন শিক্ষক জানান, নীতিমালা অনুযায়ী সকল কাগজপত্র ঠিক থাকলেও জিডি মহোদয় ফাইল না দেখেই রিজেক্ট করছেন। তার একগুয়েমীর কারণে শতশত শিক্ষক হয়রাণীর শিকার হয়েছেন। তিনি তার অফিসের অনেক কর্মকর্তা, কর্মচারী দীর্ঘদিন যাবত অত্রাফিসে থাকায় তাদের আচরণ অহমিকায় পরিণত হয়েছে। জরুরী ভিত্তিতে তাদের বদলী করা না হলে শিক্ষকরা হয়রাণী, অপমানিত ও ক্ষতির শিকার হবেন। মাধ্যমিক ও উচচ শিক্ষা অধিদপ্তরের রংপুর আঞ্চলিক অফিসের উদাসীনতা।