বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মানচিত্র থেকে রোহিঙ্গাদের গ্রামের নাম মুছে দিলো মিয়ানমার

গত ৩ বছর আগে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের গ্রাম কান কিয়ায় আগুন ধরিয়ে দিয়ে পুরো গ্রাম বুলডোজার দিয়ে মাটির সঙ্গে মিশিয়ে দেয় মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। গত বছর সরকারি মানচিত্র থেকে মিয়ানমার এই গ্রামের নামটিও মুছে ফেলেছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ।

নাফ নদী থেকে প্রায় ৩ মাইল দূরে অবস্থিত কান কিয়া গ্রামে প্রায় কয়েকশ মানুষ বাস করতো। ২০১৭ সালে রাখাইনের রোহিঙ্গা অধ্যুষিত গ্রামগুলোতে অভিযানের নামে আগুন লাগিয়ে দেয় মিয়ানমারের সেনারা। এরপর নির্বিচারে সেখানে গণহত্যা চালায় তারা। ওই সময় রাখাইন থেকে প্রায় ৭ লাখ ৩০ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নেন।

মিয়ানমার সরকার সন্ত্রাস দমনের নামে ওই অভিযান চালালেও একে জাতিগত নিধন বলে অভিহিত করেছে জাতিসংঘ। বর্তমানে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর বিরদ্ধে ‘গণহত্যার’ অভিযোগে শুনানি চলছে জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক আদালতে।

গুগল আর্থে স্যাটেলাইট থেকে ধারণকৃত ছবি ও প্ল্যানেট ল্যাব থেকে বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে দেয়া ছবিতে দেখা গেছে, কান কিয়া গ্রামটি যেখানে ছিলো সেখানে এখন সরকারি এবং সেনাবাহিনীদের জন্য ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়া সেখানে পুলিশের ঘাঁটিও তৈরি করেছে দেশটির সরকার। দেশটির উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত প্রত্যন্ত অঞ্চলের এই গ্রামটির নাম বিদেশীদের জন্য বন্ধ ছিলো।

২০২০ সালে জাতিসংঘের ম্যাপিং ইউনিটের কাছে পাঠানো মিয়ানমারের সরকারি মানচিত্রে দেখা গেছে, নতুন মানচিত্রে গুঁড়িয়ে ফেলা গ্রামটির নাম এখন আর নেই। বরং ওই জায়গাটিকে এখন মংডু শহরের বর্ধিত অংশ বলা হচ্ছে।

মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ জানিয়েছে, ২০১৭ সালের অভিযানের সময় মিয়ানমার সেনাবাহিনী কান কিয়ার মত আরো প্রায় ৪০০ গ্রাম ধ্বংস করেছে। স্যাটেলাইটের ছবি বিশ্লেষণ করে এ তথ্য জানিয়েছে সংস্থাটি। ধ্বংস করা গ্রামগুলোর মধ্যে কান কিয়াসহ অন্তত এক ডজন গ্রামের নাম এখন মানচিত্র থেকেও মুছে দেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশের শরণার্থী ক্যাম্পে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা ধর্মীয় নেতা মোহাম্মদ রফিক এ বিষয়ে বলেন, মিয়ানমার চায় আমরা যেন সেখানে আর ফিরে না যাই। কান কিয়ার পাশের একটি গ্রামের চেয়ারম্যান ছিলেন মোহাম্মদ রফিক।

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য পুনঃগঠনের দায়িত্বে থাকা দেশটির সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। তবে এই গ্রামের নাম মুছে দেয়ার বিষয়ে কোনো কিছু বলতে রাজি হয়নি তারা। এ বিষয়ে কথা বলার জন্য তারা রয়টার্সকে মিয়ানমারের জেনারেল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ডিপার্টমেন্টে (জিএডি) যোগাযোগ করতে বলে। সেখানে যোগাযোগ করেও কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চির নেতৃত্বে মিয়ানমার সরকারের একজন প্রতিনিধির কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনিও এ বিষয়ে মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

জাতিসংঘের মানচিত্র বিভাগ বছরের শুরু থেকে প্রায় ৩টি ম্যাপ প্রকাশ করেছে। সেখানে দেখা গেছে যে, মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গাদের কয়েকটি গ্রামের নাম মুছে ফেলা হয়েছে অথবা পুনঃগঠন করা হয়েছে।

জাতিসংঘ জানিয়েছে, গত জুন মাসে রাখাইন রাজ্যের কয়েকটি গ্রামের মানচিত্র ওয়েবসাইট থেকে সরিয়ে নিয়েছে দেশটি।

মিয়ানমারে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক সাবেক দূত ইয়াংহি লি বলেন, মিয়ানমার সরকার ইচ্ছা করেই রোহিঙ্গাদের নিজ ভূমিতে ফেরা কঠিন করে দিচ্ছে। যে জায়গার কোনো নামই নেই বা যেখানে তাদের বসবাসের কোনো চিহ্ন নেই তারা কিভাবে সেই জায়গায় ফিরবে। রোহিঙ্গাদের মৌলিক পরিচয় নির্মূল করার একটি উপায় এটি।

সূত্র- রয়টার্স

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email