রবিবার ৭ জুন ২০২০ ২৪শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মানুষ মানুষের জন্য

মাননীয় হুইপ জননেতা আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি ও সাংগঠনিক সম্পাদক বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। তিনি প্রকৃত রাজনীতিবিদ, বঙ্গবন্ধুর সৈনিকের উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। মানুষের বিপদের দিনে এসি ঘরে বসে শুধু সভা না করে তিনি স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়ে হাসপাতাল পরিদর্শনে আসছেন। যেখানে ডাক্তার, স্বাস্থ্য কর্মীরা প্রতিনিয়ত ঝুঁকি নিচ্ছেন। সেখানে জনপ্রতিনিধি কেন নেবেন না ?

তাই তিনি করোনা ভাইরাস মোকাবেলা প্রস্তুতি সম্পর্কে আজ বগুড়া সার্কিট হাউজে এবং জয়পুরহাট জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা পর্যায়ে দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের সঙ্গে দু’টি সভা করেন।

এছাড়াও বগুড়ার মোহম্মদ আলী হাসপাতাল, জিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, জয়পুরহাটের গোপীনাথপুর আইএইচটি, আক্কেলপুর হাসপাতাল, ক্ষেতলাল হাসপাতাল, কালাই হাসপাতাল সরেজমিন পরিদর্শন ও ডাক্তার, নার্স, কর্মকর্তা- কর্মচারীদের মত বিনিময় করে এই দুঃসময়ে নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চিকিৎসা সেবা অব্যাহত রাখার জন্য জনপ্রতিনিধি হিসেবে তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন ও অভিবাদন জানান।

বগুড়ার সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তসমূহ : একটি হাসপাতালকে করোনা চিকিৎসার জন্য বিশেষায়িতভাবে প্রস্তুতকরণ, শহরের উপকন্ঠে দুটি সরকারী প্রতিষ্ঠান কোয়ারান্টাইনের জন্য প্রস্তুতকরণ, ডাক্তার ও সেবকদের জন্য পিপিই ও টেস্টিং কীট সরকারীভাবে সরবরাহ বৃদ্ধিকরণ এবং আমার ব্যক্তিগত ব্যবস্থাপনায় উপরোক্ত সামগ্রীর ব্যবস্থা, প্রবাসীদের হোম কোয়ারান্টাইন শতভাগ নিশ্চিত করণ, বর্তমান পরিস্থিতিতে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, জিয়া মেডিকেল কলেজ, সিভিল সার্জন ও মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের যৌথভাবে কাজ করা, হাসপাতালে অন্যান্য রোগীর চাপ কমাতে সার্বক্ষণিক টেলি মেডিসিন সুবিধা চালু ও জোরদারকরণ, জয়পুরহাটে গৃহীত

সিদ্ধান্তসমূহ : গোপীনাথপুর আইএইচটিতে প্রবাস থেকে আসা হোম কোয়ারান্টাইন পদ্ধতি না মানা ব্যক্তিবর্গের জন্য সেফ অতিথিশালা চালুকরণ ও তাদের জন্য মানসম্পন্ন আবাসন ও খাদ্য নিশ্চিতকরণ, হোম কোয়ারান্টাইন নিশ্চিতকরণ, না মানলে অতিথিশালায় প্রেরণ, দরিদ্র পরিবারের মাঝে এক লক্ষ খারযুক্ত সাবান বিতরণ, ( স্যানিটাইজারের অপ্রাপ্যতা ও বর্তমান মান নিয়ে প্রশ্ন থাকায় সাবান অধিক কার্যকর বিধায়) বিভিন্ন স্থানে পর্যাপ্ত হাত ধৌতকরণ সুবিধা স্থাপন ও সাবান সরবরাহ, প্রতিটি হাসপাতাল আগামী ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত একদিন পরপর ব্যাপক ভাবে পরিস্কারকরণ, ডাক্তার ও চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তিদের জন্য পর্যাপ্ত পিপিই ও নিরাপত্তা উপরকণের ব্যবস্থা, করোনা কিট সরবরাহ, হাসপাতালে অন্যান্য রোগীর চাপ কমাতে সার্বক্ষণিক টেলি মেডিসিন সুবিধা চালু ও জোরদারকরণ, করোনা সম্পর্কে ব্যাপক মাইকিং, ইমাম সাহেবদের মাধ্যমে প্রচার, ডিশ চ্যানেলে প্রচার, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারকরণ, পহেলা বৈশাখ পর্যন্ত চায়ের দোকান, হোটেল, রেস্তরাঁয় আড্ডা বন্ধ করণ, হাসপাতালসমূহে রোগীসেবার আধুনিক কাউন্টার নির্মাণ উপরোক্ত কাজগুলি সূচারুভাবে সম্পন্ন করার জন্য আমার পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় অর্থ সরবরাহ নিশ্চিতকরণ এবং জয়পুরহাট পৌরসভার মেয়র কর্তৃক ১০ হাজার মানসম্পন্ন তিন লেয়ার মাস্ক সরবরাহ, প্রতিটি পৌরসভা ও উপজেলা পরিষদের অর্থায়নে জনস্বাস্থ্য নিশ্চিতকল্পে প্রকল্প বাস্তবায়ন।

করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় তিনি সমাজের সবাইকে এগিয়ে আসার অনুরোধ জানান।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email