মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মুক্তিযুদ্ধের নতুন দিগন্ত রংপুর বিভাগের পাঁচ বই -আজহারুল আজাদ জুয়েল-

একটা সময় ছিল যখন বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে লেখালেখি কম হতো। মুক্তিযুদ্ধকে ভুলিয়ে দেয়ার চেষ্টাও ছিল সেই সময়। এখন সময় বদলেছে। মুক্তিযুদ্ধ ইস্যু এখন প্রায় সব মানুষের আলোচনার বিষয়। তাই মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে লেখলেখিও প্রচুর। একটা সময়ে মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে জাতীয় ভিত্তিক লেখালেখি বেশি হতো। এখন সেটাও বদলেছে। এখন মুক্তিযুদ্ধের আঞ্চলিক বিষয়গুলো নিয়ে প্রচুর লেখা ও গবেষণা হচ্ছে। আঞ্চলিক ইস্যুতে মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে প্রকাশ পাচ্ছে বিপুল সংখ্যক বই।
বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম গুরুত্বপুর্ণ অঞ্চল হলো রংপুর বিভাগ। এই বিভাগে মুক্তিযোদ্ধাদের যেমন বীরত্বগাঁথা রয়েছে তেমনি আছে গণহত্যার কঠিণ নির্মমতা। মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বগাঁথা ও গণহত্যা নিয়ে রংপুর বিভাগের বিভিন্ন জেলার উপরে প্রকাশিত হয়েছে ৫টি বই। বইগুলো যারা লিখেছেন তারা সবাই দিনাজপুরের মানুষ। মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস প্রণয়ন ও গবেষণায় এই বইগুলো নতুন দিগন্ত খুলতে পারে। তাই দিনাজপুরের মানুষ হিসেবে সেইসব বই নিয়ে আমার এই নিবন্ধ ;

বিজয় কাব্য: উলিপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধাগণের রণাঙ্গণের স্মৃতিচারণ :
“বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের কালজয়ী ভাষণে উদ্বুদ্ধ হয়ে এবং এ দেশের মানুষের উপর হামলা ও নির্যাতন দেখে পাকিস্তানি হানাদারদের উচিৎ শিক্ষা দেয়ার নিমিত্তে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলাম। রৌমারী ক্যাম্পে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে যোগ দিয়ে ট্রেনিং শেষে কোম্পানী কমান্ডার খায়রুল আলমের নেতৃত্বে ১৪০ থেকে ১৪৫ জন মুক্তিযোদ্ধা ঘুঘুমারীর বেলালউদ্দিনের বাসায় অস্থায়ী ক্যাম্প বসাই। ক্যাম্পে ২-৩ সপ্তাহ অবস্থানকালে লোকজনের কাছ থেকে খাদ্য সংগ্রহ করি। দরিদ্র হওয়া সত্বেও এলাকার লোক আমাদের জন্য গমের গুড়া ও সিদ্ধ আলু খাইতে দেন। এরপর আমরা ব্রম্মপুত্র নদী পার হয়ে উলিপুরের আঠারো পাইকা মৌজার ভবেশ চন্দ্র সিংহের বাড়িতে ক্যাম্প করি। আমরা মালতীবাড়ী রেলওয়ের দুইটি ব্রিজ উড়িয়ে দেই, যতীনের হাট ও দূর্গাপুরে রাজাকার ক্যাম্পে অপারেশন চালাই। আরো পরে প্লাটুন কমান্ডার চান মিয়ার নেতৃত্বে গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে একাধিক অপারেশন চালাই। এর ৩-৪ দিন পর দেশ স্বাধীন হলে গাইবান্ধার মিলিশিয়া ক্যাম্প কমান্ডার রহমত মিয়ার নিকট অস্ত্র জমা দেই।”
এভাবেই কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার দক্ষিণ মধুপুর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদ তার মুক্তিযুদ্ধকালের ঘটনাবলীর স্মৃতিচারণ করেছেন। সেই সময় ৯ম শ্রেণীর ছাত্র ছিলেন তিনি। তার মত করে ৩৬০ জন মুক্তিযোদ্ধার স্মৃতিচারণ নিয়ে চলতি ২০২০ সালের জুলাই মাসে প্রকাশিত হয়েছে মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক সম্পুর্ণ নতুন এক বই “বিজয় কাব্য: উলিপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধাগণের রণাঙ্গণের স্মৃতিচারণ।”
বইটি প্রকাশিত হয়েছে কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে। এটি সম্পাদনা করেছেন সোহেল সুলতান জুলকার নাইন কবির স্টিভ যিনি উলিপুর উপজেলা প্রশাসনের সহকারি ভূমি কমিশনার। তার বাড়ি দিনাজপুরে এবং সেই সূত্রে বইয়ের একটি কপি আমার হাতে এসেছে। ৬৬২ পৃষ্ঠার মোটা বইটির পাতায় পাতায় মুক্তিযোদ্ধাগণ তুলে ধরেছেন তাদের মুক্তিযুদ্ধে যাবার প্রেক্ষাপট, যুদ্ধকালীন ঘটনা সমূহ, তাদের কারণে পরিবারের লোকেরা যে অসহ্য নির্যাতন ও কষ্ট ভোগ করেছিলেন, রয়েছে সেই সবের বর্ণনা।
বইটি নি:সন্দেহে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস রচনায় ও গবেষণায় অসাধারণ এক দলিল হিসেবে কাজ করবে, কারণ তৃণমূলের মুক্তিযোদ্ধাগণ যারা সবাই উলিপুর উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকা থেকে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিয়েছিলেন তারা নিজেরা সেই স্মৃতিচারণগুলো লিখেছেন। আর সেগুলোই সোহেল সুলতান জুলকার নাইন কবির স্টিভ সম্পাদনা ও পরিমার্জনা করেছেন এবং বই আকারে প্রকাশ করে দিয়েছেন উলিপুর উপজেলা প্রশাসন।
উপজেলা প্রশাসন কেন এমন একটি উদ্যোগ নিতে গেল? এর জবাব রয়েছে বইটির সম্পাদকীয়তে। সম্পাদকীয়তে সহকারি ভূমি কমিশনার স্টিভ লিখেছেন, “একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা বাবার (হুমায়ুন কবীর) কাছ থেকে ছোট থেকে মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলী শুনে শুনে বড় হয়েছি। কিন্তু বাংলাদেশের অনেকের মধ্যেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা তেমনভাবে প্রকাশ পায়নি।” অনেকের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ভোঁতা হয়ে গেছে। আর তাই এই রকম একটি আয়োজন করেছেন তিনি যাতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিকাশ ঘটে। বইটির শুরুতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি মুদ্রিত হয়েছে। বাণী রয়েছে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, কুড়িগ্রাম-৩ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক এম এ মতিন, রংপুর বিভাগীয় কমিশনার কে এম তারিকুল ইসলাম, কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম এবং উলিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল কাদের এর। উলিপুর উপজেলা, উলিপুর পৌরসভা ও মুিক্তযুদ্ধে ১১টি সেক্টরের মানচিত্র আছে বইটিতে। এরপর রয়েছে মুক্তিযোদ্ধাগণের ছবিসহ তাদের স্মৃতিচারণ। এতগুলো মুক্তিযোদ্ধার ছবি ও স্মৃতিচারণ সংগ্রহ করা চাট্টিখানি কথা নয়। কিন্তু এই কঠিন কাজটি সম্পন্ন করে মুজিব বর্ষে জাতিকে দারুন এক উপহার দিয়েছেন একজন সরকারি কর্মকর্তা স্টিভ। বইটির বিভিন্ন পাতায় মুক্তিযুদ্ধকালের বেশ কিছু দূর্লভ ছবিও ছাপানো হয়েছে। বইটির প্রচ্ছদ করেছেন মো. তারেক ইকবাল ও সোহেলী আনার কবীর। মুদ্রণ করেছে পুস্পিতা, উলিপুর। গ্রন্থসত্ব রয়েছে উলিপুর উপজেলা প্রশাসনের। বইটির প্রথম ১৬ পৃষ্ঠা গ্লোসী পেপারে রঙ্গিণ মুদ্রণ। পৃষ্ঠা নম্বর শুরু হয়েছে এরপর থেকে। পৃষ্ঠা নম্বর ১ হতে ৬৪৫ পর্যন্ত অফসেট কাগজে ছাপানো। মূল্য ৫০০ টাকা। যারা মুক্তিযুদ্ধের শেকড় বুঝতে চান তাদের জানার ও বোঝার প্রয়োজনীয়তা মেটাতে বইটি অবদান রাখবে।

গণহত্যা বধ্যভূমি ও গণকবর জরিপ ঠাকুরগাঁও জেলা :
মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম অনুষঙ্গ গণহত্যা। হানাদার, রাজাকার, আলবদর, আল-শামস বাহিনী এবং পাকিস্তানের সমর্থক দালাল ও অবঙালিরা এই গণহত্যা সংঘটিত করেছিল ব্যাপক হারে। রংপুর বিভাগের ৫টি জেলার গণহত্যা নিয়ে গত দুই বছরে প্রকাশিত হয়েছে আলাদা আলাদা বই। এর মধ্যে একটি বই হলো ‘গণহত্যা বধ্যভূমি ও গণকবর জরিপ ঠাকুরগাঁও জেলা।’ বইটিতে মুক্তিযুদ্ধের একটি বিশেষ দিক তুলে ধরেছেন লেখক ও গবেষক এবং দিনাজপুরের বিএসডিএ’র পরিচালক ড. মো. আব্দুস ছালাম। তিনি মুক্তিযুদ্ধকালে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী, রাজাকার, আল শামস, শান্তি কমিটির অত্যাচার, নির্যাতন ও গণহত্যার আলাদা আলাদা তথ্য দিয়েছেন বইটিতে। এতে ৪০৯টি গণহত্যা, ১৩টি বধ্যভূমি, ১৪টি গণকবর ও ১১টি নির্যাতন কেন্দ্রের তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।
মুক্তিযুদ্ধের সময় গণহত্যার বৈধতা দেয়ার জন্য পাকিস্তানিরা প্রচার করত যে, তারা ইসলাম রক্ষায় এই সব করছে। কিন্তু তাদের ইসলাম কেমন ছিল তা এই বইয়ে লেখা গণহত্যার একটি ঘটনা থেকে জানা যাক। ঘটনাটি ঠাকুরগাঁও পুলিশ লাইনের। ড. আব্দুস ছালাম লিখেছেন, ‘ঠাকুরগাঁও শহরের তিন কিলোমিটার পূর্বদিকে বর্তমান পুলিশ লাইনের পাশে যে ৭টি কবর বাঁধানো রয়েছে তা ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ সময়কালীন একটি গণহত্যায় নিহতদের কবর। খান সেনারা ঠাকুরগাঁও শহর দখল করার পর হত্যা, গণহত্যা ও নির্যাতন চালানো শুরু করে এবং এপ্রিলের তৃতীয় সপ্তাহের একদিন দুপুর ১২টায় সালন্দর মাদ্রাসায় যায়। তারা মাদ্রাসার ভিতরে রক্ষিত পবিত্র কোরাণ শরীফ ও হাদিস শরীফের বই আগুন লাগিয়ে পুড়িয়ে দেয় এবং ১৪ জন পুরুষ মানুষকে আছরের নামাজ পর্যন্ত আটকে রাখে। আছরের নামাজের সময় ছয় জন বৃদ্ধ লোককে ছেড়ে দিয়ে বাকি ৮ জনকে গুলি করে। সৌভাগ্যবশত এদের মধ্যে একজন গুলিবিদ্ধ হয়েও পরে বেঁচে যান। অন্য ৭ জন সেখানে নিহত হন। এই ৭টি কবর হলো তাদেরই।
ড. ছালাম এই রকম অসংখ্য গণহত্যার বর্ণনা তুলে ধরেছেন তার বইতে। এইসব বর্ণনা থেকে পরিস্কার একটা চিত্র পাওয়া যায় যে, হানাদার বাহিনী একাত্তরে ইসলাম রক্ষার নামে গণহত্যা ও বর্বরতা চালালেও তারা প্রকৃত পক্ষে ইসলামিক ছিলেন না। তাদের মধ্যে যদি ইসলাম থাকত তাহলে পবিত্র কোরাণ পোড়াতে পারত না। মুক্তিযুদ্ধের গুরুত্বপুর্ণ এই বইটি সম্পাদনা করেছেন ইতিহাসবিদ মুনতাসীর মামুন ও রাজশাহী আর্কাইভ ও হেরিটেজ এর প্রতিষ্ঠাতা ড. মাহবুবর রহমান। ১৪৪ পৃষ্ঠার অফসেট মুদ্রণে বইটি প্রকাশ করেছেন ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর ট্রাস্ট, খুলনা। বইটির মূল্য ২০০ টাকা। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস চর্চায় একটি গুরুত্বপুর্ণ সংযোজন এই বই।

গণহত্যা-বধ্যভূমি ও গণকবর জরিপ দিনাজপুর জেলা :
মুক্তিযুদ্ধের সময় দিনাজপুরে ব্যাপক গণহত্যা সংঘটিত হলেও সাধারন মানুষ সেই সমস্ত ঘটনা প্রায় ভুলেই গিয়েছিলেন। কিন্তু গণহত্যা-নির্যাতন ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষণা কেন্দ্রের উদ্যোগে ২০১৯ সালে একাত্তরের গণহত্যা-বধ্যভূমি ও গণকবর নিয়ে একটি জরিপ চালানো হয়। দিনাজপুর সরকারি সিটি কলেজের অধ্যক্ষ মোজাম্মেল হক যিনি লেখক হিসেবে মোজাম্মেল বিশ^াস নামে সুপরিচিত তিনি গবেষণা কর্মটি সম্পাদন করেন। গবেষণার ফলাফল নিয়ে ২০১৯ সালের নভেম্বর মাসে “গণহত্যা-বধ্যভূমি ও গণকবর জরিপ দিনাজপুর জেলা” শিরোনামে বই প্রকাশ করা হয়। প্রকাশিত ফলাফলে দেখা যায় দিনাজপুরের ১৩ উপজেলায় মুক্তিযুদ্ধের সময় ১৭২৬টি গণহত্যা সংঘটিত হয়েছে। ৩২টি বধ্যভূমি ও ৩৪টি গণকবর রয়েছে এই জেলায়। হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসররা নির্যাতন কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করত এমন ৬৫টি নির্যাতন কেন্দ্রের সন্ধান পেয়েছেন গবেষক মোজাম্মেল বিশ^াস। সব মিলিয়ে দিনাজপুর সদরে ৫০৫টি, বিরলে ১৫৬টি, কাহারোলে ৮টি, বোচাগঞ্জে ৮৯টি, বীরগঞ্জে ১৯টি, খানসামায় ১৩টি, চিরিরবন্দরে ১১৭টি, ফুলবাড়িতে ৮৮টি, পার্বতীপুরে ৫২৬টি, বিরামপুরে ১৭৭টি, নবাবগঞ্জে ১২টি, হাকিমপুরে ৩০টি ও ঘোড়াঘাটে ১২৭টি গণহত্যা, বধ্যভূমি ও নির্যাতন কেন্দ্রের নিদর্শন এবং তথ্য তুলে ধরেন তিনি। বইটিতে গণহত্যার শিকার প্রায় দুই হাজার ব্যক্তির নামও তুলে ধরা হয়।
হানাদারদের হাতে মারা যাওয়ার আগে সুঠামদেহী আব্দুল জলিল মোল্লা পাকিস্তানি সেনাদের উদ্দেশে বলেছিলেন, গুলি করবি, একথা আগে বললি না কেন? বললে তো তোদের দু-চারটাকে খেয়ে ফেলতাম বেটা ঠগবাজ।’ একজন প্রত্যক্ষদর্শীর কাছ থেকে জেনে এই বইয়ে শহিদ জলিলের এই উদ্ধৃতি তুলে ধরেছেন মোজাম্মেল বিশ^াস। বইটির ৯৫ পৃষ্ঠায় সেই শহিদ জলিলের কথা আছে। আর এই রকম অসংখ্য শহিদের কথা, তাদের উপর অকথ্য নির্যাতনের কথা তুলে ধরা হয়েছে এই গবেষণা জরিপটিতে। বইটি মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের এক অমূল্য সংযোজন। এটি সম্পাদনা করেছেন মুনতাসীর মামুন ও ড. মাহবুবর রহমান। ৩৪৮ পৃষ্ঠার অফসেট মুদ্রণের বইটির মূল্য রাখা হয়েছে ৪০০ টাকা, প্রকাশ করেছে ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর ট্রাস্ট, খুলনা, মুদ্রণে সুবর্ণ।

গণহত্যা-বধ্যভূমি ও গণকবর জরিপ লালমনিরহাট জেলা :
মুক্তিযুেদ্ধর সময় রেলওয়ের জেলা হিসেবে খ্যাত ছিল লালমনিরহাট। তখন এখানে বিহারিদের আধিপত্য বেশি ছিল। রেলের অধিকাংশ কর্মকর্তা-কর্মচারীর পদ তাদের দখলে ছিল। সরকারি চাকুরীজীবী হওয়ার সুবাদে তাদের সুযোগ-সুবিধাও বেশি ছিল। তারা বাঙালিদের অনেকটা হেয় চোখে দেখত, বাঙালি মুসলমানদের মুসলমান মনে করতো না এবং নেতিবাচক অর্থে বাঙালি না বলে “বাঙাল” বলত। মুক্তিযুদ্ধ শুরুর পর এই জেলা শহরে প্রথম গণহত্যা শুরু হয় বিহারিদের দ্বারা। ১৯৭১ সালের ২৭ মার্চ তাদের হাতে শাজাহান নামের একজন যুবক এবং চা দোকানে কর্মরত একজন কিশোর হত্যার শিকার হয়। এরপর বাঙালিদের প্রতিরোধের মুখে বিহারিরা নিজেদেরকে সাময়িক গুটিয়ে নেয় বটে, কিন্তু ৩ এপ্রিল বিকালে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী লালমনিরহাট শহরে প্রবেশ করার পর ৪ এপ্রিল হতে বিহারিরা হানাদারদের সহযোগিতায় ব্যাপক গণহত্যা শুরু করে। পাকিস্তানি সেনা ও বিহারিদের সম্মিলিত আক্রমণে প্রথম দুদিনেই কয়েক হাজার বাঙালির মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়। মুসলমান, হিন্দু, খৃষ্টানসহ সব ধর্মের বাঙালিদেরই নৃশংস এবং অবিশ^াস্য নিষ্ঠুরতার শিকার হতে হয়। সেই গণহত্যায় নারী-পুরষ, বয়সী-অল্প বয়সী, যুবক-যুবতী, কিশোর-কিশোরী, শিশু, এমনকি কোলের বাচ্চারাও প্রাণহানির হাত থেকে রেহাই পায় নাই। ধারালো অস্ত্রে এক-দেড় বছরের বাচ্চাদের গলা কেটে রেলওয়ের জ¦লন্ত বয়লারে নিক্ষেপ করা হতো। লালমনিরহাট জেলার সেই নারকীয়, বিভৎস্য গণহত্যার তথ্যগুলো জরিপ আকারে তুলে আনেন দিনাজপুরের সাংবাদিক ও গবেষক আজহারুল আজাদ জুয়েল। তার গবেষণা অনুযায়ী লালমনিরহাটে মুক্তিযুদ্ধের সময় ৫৬২টি গণহত্যা সংঘটিত হয়েছে। গবেষণার ফলাফল “গণহত্যা-বধ্যভূমি ও গণকবর জরিপ লালমনিরহাট জেলা” শিরোনামে বই আকারে প্রকাশিত হয় ২০১৯ সালের মার্চ মাসে। এই গ্রন্থটিও সম্পাদনা করেন ইতিহাসবিদ মুনতাসীর মামুন ও রাজশাহী আর্কাইভের প্রতিষ্ঠাতা ড. মাহবুবর রহমান। ১৫৪ পৃষ্ঠার অফসেট মুদ্রণে বইটির মূল্য রাখা হয়েছে ২০০ টাকা। বইটি প্রকাশ করেছে ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর ট্রাস্ট, খুলনা। মুদ্রণে সুবর্ণ, ঢাকা। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস রচনা ও গবেষণায় অসাধারণ এক দলিল হতে পারে এই বই।

গণহত্যা-বধ্যভূমি ও গণকবর জরিপ পঞ্চগড় জেলা :
আলী ছায়েদ দিনাজপুর সরকারি মহিলা কলেজের সহযোগি অধ্যাপক ও ইতিহাস বিভাগের প্রধান এবং একজন কবি। পঞ্চগড় জেলার উপরে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক একটি গবেষণা কর্ম করে বেশ আলোচিত হয়েছেন যা বই আকারে প্রকাশিত হয়েছে ২০১৯ সালের মার্চ মাসে। এখানে তিনি পঞ্চগড় জেলায় ১৯৭১ সালে সংঘটিত ৬৪৯টি গণহত্যার কথা তুলে ধরেছেন। এছাড়া ৪টি বধ্যভূমি, ১৭টি গণকবর, ২৩টি নির্যাতন কেন্দ্রের তথ্য আছে এই বইয়ে।
সাধারন মানুষ একাত্তরে সংঘটিত গণহত্যার কথা প্রায় ভুলেই যেতে বসেছিল। কিন্তু আলী ছায়েদ অনেকগুলো অজানা গণহত্যার কথাও তুলে এনেছেন তার গবেষণায়। পঞ্চগড় সদরের ডাকবাংলো, থানাচত্বর, রামেরডাঙ্গা, অমরখানা, বানিয়াপাড়া, আটোয়ারির সুকাতি, তোড়িয়া, ফকিরগঞ্জ বাজার, ডাঙ্গিরহাট, দাঁড়িয়ার দিঘী, রাধানগর, বোদা উপজেলার ধাপঢুপ, নয়াদিঘী বাজার, মারোয়া, কালিয়াগঞ্জ পানিডুবি, দেবীগঞ্জের পামুলি, রাঙ্গাপানি, ডিয়াগাড়ি, পারঘাটসহ অসংখ্য স্থানে সংঘটিত গণহত্যার কথা তুলে ধরেছেন যার অধিকাংশই নতুন প্রজন্মের মানুষেরা জানেন না।
মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি হানাদার ও তাদের দোসরদের নৃশংসতা ছিল ভয়াবহ। এ প্রসঙ্গে লেখক বইটির ভূমিকায় লিখেছেন “পাকিস্তানিরা তৈরী করেছিল গণহত্যা-নির্যাতনের লোমহর্ষক অধ্যায়। মুসলমান হয়েও তারা রোজা পর্যন্ত করতে দেয় নাই। ইফতারির মুহুর্তে ইফতারি করতে না দিয়ে বন্দুকের গুলিতে ঝাঁঝড়া করা হয়েছিল এখানকার মানুষের বুকের পাঁজর।” পাকিস্তানি হানাদারদের নির্যাতনের এই যে চিত্র তা আসলে সারা বাংলাদেশরই চিত্র যা আলী ছায়েদ পঞ্চগড় জেলাকে কেন্দ্র করে নতুভাবে তুলে ধরেছেন।
একাত্তরে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া ছিল মুক্ত এলাকা। এর বাইরে অন্য চার উপজেলার সবখানেই গণহত্যা, নির্যাতন, পাশবিকতার কলংকিত অধ্যায় রচিত হয়েছে। সেইসব তথ্য নিয়ে প্রকাশিত “গণহত্যা-বধ্যভূমি ও গণকবর জরিপ পঞ্চগড় জেলা” গবেষণা গ্রন্থটি মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক বইয়ের তালিকায় এক অনন্য সংযোজন। এই বইটিও সম্পাদনা করেছেন মুনতাসীর মামুন ও ড. মাহবুবর রহমান। ১২৬ পৃষ্ঠার অফসেট মুদ্রণের বইটির মূল্য রাখা হয়েছে ২০০ টাকা, প্রকাশ করেছে ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর ট্রাস্ট, খুলনা। মুদ্রণে সুবর্ণ, ঢাকা। মুক্তিযুদ্ধে হানাদারদের নৃশংসতা যারা বুঝতে চান তাদের জানার চাহিদা মেটাতে পারে এই বই। -লেখক আজহারুল আজাদ জুয়েল, সাংবাদিক, কলামিষ্ট

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email