বুধবার ১২ অগাস্ট ২০২০ ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মুক্তিযুদ্ধে বৃহত্তর দিনাজপুরের মুজিব বাহিনীর অধিনায়ক মাকছুদুর

রাজনীতিতে এখন তিনি নেই বললেই চলে। নেই কোন রাজনৈতিক সাংগঠনিক কর্মসূচিতে। ষাটের দশকের মধ্যবর্তী সময় হতে সত্তর দশকের প্রথমার্ধের উত্তাল দিনগুলোয় যেভাবে অগ্নিস্ফুলিংগের মত নিজেকে প্রজ্জোলিত রেখেছিলেন সার্বক্ষণিক রাজনৈতিক কর্মসুচি দিয়ে, এখন তেমনি শীতল বারুদের মত নিজেকে নিস্প্রভ রেখেছেন রাজনীতির মাঠে। তবে সেই যে বঙ্গবন্ধুর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা এবং নৌকার প্রতি বুকের ভেতর গভীর ভালবাসা ঢুকে গেছে তার রেশ ধরে বরাবরই সমর্থন যুগিয়ে যাচ্ছেন মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে।
তার নাম মোঃ মাকছুদুর রহমান। অধিক পরিচিতি ‘মকছেদ’ নামে। বাড়ি দিনাজপুর শহরের কালিতলায়। পিতার নাম জয়নাল আবেদীন সরকার, মায়ের নাম মাজেদা খাতুন। ৬ ভাই ২ বোনের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। তার বড় ভাই মরহুম মখলেছার রহমান জাতীয় পার্টির মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন এরশাদ ক্ষমতায় থাকাকালে। দিনাজপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানও ছিলেন তিনি।
দিনাজপুর হাই মাদ্রাসা ও হাই স্কুলে মাকছুদুর রহমানের স্কুল পর্যায়ের লেখাপড়া শুরু। ১৯৬২ সালে যখন এই স্কুলে ৯ম শ্রেণীর ছাত্র ছিলেন, সেই সময় দিনাজপুরের তৎকালিন ছাত্রনেতা মোজাফফর হোসেন মজু খান এর হাত ধরে ছাত্রলীগে যোগ দিয়েছিলেন। তখন হামিদুর রহমান শিক্ষা কমিশনের বিরুদ্ধে সারা দেশে ছাত্রদের আন্দোলন শুরু হয়েছিল। ঐ আন্দোলনে অংশ গ্রহণের মধ্য দিয়ে রাজনীতিতে হাতেখড়ি হয়। ১৯৬৫ সালে মেট্রিক পাস করে তিনি সুরেন্দ্রনাথ কলেজে ইন্টারমিডিয়েট ভর্তি হন। ১৯৬৭ সালে ইন্টারমিডিয়েট পাস করার পর ঐ কলেজেই ডিগ্রী বর্তি হন। ১৯৭০ সালে ডিগ্রী পাস করে মাস্টার্সে ভর্তি হন ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধ জনিত কারনে মাস্টার্স পরীক্ষা দেয়া সম্ভব হয় নাই। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি সেন্ট্রাল ল কলেজ হতে এলএলবি পাস করলেও কখনো আইন পেশায় যুক্ত হন নাই।
বঙ্গবন্ধুর ঘাষিত ছয় দফা, ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের ১১ দফা, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা, সত্তরের নির্বাচনসহ বিভিন্ন ইস্যুতে আন্দোলনের উত্তাল সময়ের ঝঞ্জা-বিক্ষুব্ধ দিনগুলোয় মিছিলে-মিটিং-এ নেতৃত্ব দিয়ে খুব দ্রুতই দিনাজপুর জেলার শীর্ষ ছাত্রনেতায় পরিণত হয়েছিলেন মাকছুদুর রহমান। ১৯৬৫-১৯৬৬ মেয়াদে দিনাজপুর জেলা ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক ছিলেন। ১৯৬৮-১৯৬৯ মেয়াদকালে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭০ সালে দিনাজপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে বলিষ্ঠভাবে ছাত্রলীগ ও সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ, দিনাজপুর জেলা শাখাকে সফল নেতৃত্ব দেন। বঙ্গবন্ধু ছয় দফা কর্মসুচি প্রথম ঘোষণা করেছিরেন পশ্চিম পাকিস্তানে। আওয়ামী লীগ পরে ছয় দফা সংক্রান্ত একটি লিপরেট প্রকাশ করে এবং লিফরেটটি সারা দেশে ছড়িয়ে দেয়ার উদ্যোগ নেয়। বৃহত্তর দিনাজপুর ও নীলফামারী অঞ্চলের জন্য সেই সময় ঢাকা হতে লিফলেটটি তিন জন ব্যক্তি প্রথম নিয়ে আসেন ঐ তিনজনের ্কজন ছিলেন মাকছুদুর রহমান। অন্য দু জন হলেন পঞ্চগড়ের অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম (বর্তমান রেল মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজনের সহদোর) এবং দিনাজপুর শহরের মোজাফফর হোসেন মজু খান। ১৯৬৬ সালের ৭জুন পালন করা হয়েছিল ছয় দফা দিবস হিসেবে। এই দিবসকে সামনে রেখে লিফলেটটি মুদ্রণ করা হয়েছিল এবং াাওয়ামী লীগের পুরানা পল্টনের অফিস থেকে কেন্দ্রীয় নেতা মিজানুর রহমান চৌধুরীর (এরশাদের শাসনামলে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী) কাছ থেকে তারা লিফলেটগুলো এনেছিলেন।
বৃহত্তর দিনাজপুর জেলায় ছাত্র-যুবকসহ সর্বস্তরের মানুষের মাঝে স্বাধীনতার মশাল প্রজ্জোলিত করতে যে ক’জন ছাত্রনেতা অনন্য অবদান রেখেছিলেন তাদেরই একজন ছিলেন মাকছুদুর রহমান। মুক্তিযুদ্ধের সময় বৃহত্তর দিনাজপুর জেলায় মুজিব বাহিনীর অধিনায়কও ছিলেন তিনি। উপ-অধিনায়ক ছিলেন পঞ্চগড়ের মোঃ নাজিমউদ্দিন (পরবর্তীতে পঞ্চগড় পৌরসভার মেয়র) এবং ঠাকুরগাঁও সদরের আজগর আলী। ১৯৭০ সালে অনুষ্ঠিত সাধারন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নিরংকুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করা সত্বেও পাকিস্তানি সামরিক জান্তা আওয়ামী লীগ তথা বঙ্গবন্ধুর হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর না করে নানান ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল। এর বিরুদ্ধে ছাত্র সমাজসহ বাঙালির আন্দোলনের ঢেউ দূর্বার আন্দোলনের ঢেউ ছড়িয়ে পড়ে দেশ জুড়ে। বৃহত্তর দিনাজপুরে আন্দোলন বেগবান করতে ছাত্রনেতা হিসেবে দক্ষতার সাক্ষর রেখেছিলেন মাকছুদুর রহমান। ১৯৭১ সালের ২মার্চ হতে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সারাদেশে অসহযোগ আন্দোলন শুরু হয়েছিল। ঐ আন্দোলন সফল করতে বৃহত্তর দিনাজপুরের সবগুলো থানা সফর করেছিলেন।
১৯৭০ সালের নির্বাচনের পর পাকিস্তানি সামরিক জান্তা যদি আওয়ামী লীগ নেতা শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করতেন, তাহলে বাংলাদেশ এখনো পূর্ব পাকিস্তান হয়ে থাকত বলে মন্তব্য করে থাকেন বঙ্গবন্ধুর বিরোধীদের অনেকে। মাকছুদুর রহমান কারো কারো ঐ মন্তব্যকে অপপ্রচার বলে অভিহিত করেন। তার মতে, বাংলাদেশ একদিন স্বাধীন রাষ্ট্রে পরিনত হতোই। কারণ বঙ্গবন্ধু তার সারা জীবনের রাজনীতি পরিচালনা করেছেন স্বাধীনতার লক্ষ্যকে সামনে রেখে। বঙ্গবন্ধু ছয় দফার যে দাবী ঘোষণা করেছিলেন তার মধ্যেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা লুকায়িত ছিল।
উত্তাল সময়ে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করা মাকছুদুর রহমান ব্যাখ্যা দেন যে, ছয় দফার অন্যতম দাবী হলো স্বাধীকার। সরাসরি স্বাধীনতার দাবী তুললে পাকিস্তানি শাসকরা বঙ্গবন্ধুকে বিচ্ছিন্নতাবাদী হিসেবে চিহ্নিত করার সুযোগ পেতেন। ফলে বিশ^বাসী বঙ্গবন্ধুর বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে পাকিস্তানি সামরিক জান্তার পক্ষে চলে যেত। একজন বিচক্ষণ রাজনীতিক হিসেবে বঙ্গবন্ধু সেটা জানতেন বলেই কৌশলগত কারনে সরাসরি স্বাধীনতার কথা না বলে স্বাধীকার বা স্বায়ত্তশাসনের দাবী তুলেছিলেন। তৎকালিন পূর্ব পাকিস্তানের জন্য আলাদা মূদ্রা ও আলাদা সেনা বাহিনী গঠনের দাবীও ছিল ছয় দফায়।
মাকছুদুর বলেন, আমরা ছাত্রলীগাররা ১৯৬৬ সাল থেকেই জানতাম যে, একদিন আমাদেরকে সশস্ত্র সংগ্রামে যেতে হবে। সেই লক্ষ্যে আমরা বঙ্গবন্ধুর নির্দেশনার আলোকে অনেক গোপন কর্মসচি পালন করতাম। একাত্তরে মার্চ মাসের ২ তারিখ হতে অসহযোগ আন্দোলন শুরু হওয়ার পর সারাদেশে ছাত্রলীগের নেতৃত্বে জয় বাংলা বাহিনী নামে একটি সশস্ত্র বাহিনী গঠন করা হয়েছিল। বৃহত্তর দিনাজপুরে জয় বাংলা বাহিনীর প্রধান করা হয়েছিল আবুল হাসেম তালুকদারকে, উপ-প্রধান ছিলেন রেজাউল করিম (পরে বগুড়া নিবাসী), উপদেষ্টা হয়েছিলেন শফিউল আলম প্রধান ও মূহম্মদ আসাদুল্লাহ সরকার। জয় বাংলা বাহিনীর কাজ ছিল ছাত্রলীগারসহ যুবদেরকে সশস্ত্র প্রশিক্ষণ দিয়ে জাতিকে সামরিক শক্তিতে বলীয়ান করা এবং বাঙালি জাতির মধ্যে শক্তি ও সাহস যোগানো। জয় বাংলা বাহিনী দিনাজপুরের বিভিন্ন স্থানে যুবকদের মধ্যে সামরিক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছিল। সত্যিকারের অস্ত্র না থাকায় শুরুতে ডামি রাইফেল দিয়ে প্রশিক্ষণ শুরু হয়েছিল। প্রশিক্ষণ দিয়েছিলেন আব্দুর রশিদ নামের এক ব্যক্তি যিনি সামরিক প্রশিক্ষণে আগের থেকে প্রশিক্ষিত ছিলেন এবং স্বাধীনতার পর আনসার অ্যাডজুটন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তার কাছ থেকে শত শত যুবক প্রশিক্ষণ নিয়েছিল। যদিও তখন আসল অস্ত্র ছিল না, কিন্তু স্বাধীনতার প্রস্তুতি হিসেবে ছাত্রলীগ জয় বাংলা বাহিনীকে নিয়ে কাজ করছিল। বঙ্গবন্ধুর অঘোষিত নির্দেশনা ছিল বলেই ছাত্রলীগ সশস্ত্র প্রস্তুতি নিচ্ছিল। ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম ঘোষণা দিয়ে যার যা আছে তাই নিয়ে প্রস্তুত হতে বলেন। ঘরে ঘরে দূর্গ গড়ে তুলতে বললেন। অর্থাৎ স্বাধীনতা ঘোষণার জন্য যা যা করার দরকার ছিল ৭ মার্চ তিনি তার সব কিছুই বলে দিলেন। ফলে আমাদের প্রস্তুতিও ত্বরাম্বিত হয় এবং স্বাধীনতার লড়াই শুরু হয়। যদি বঙ্গবন্ধুকে তখন ক্ষমতা দেয়াও হতো, তাহলেও স্বাধীনতা থেকে তিনি পিছিয়ে আসতেন না। কারন তার রাজনীতির প্রধান লক্ষ্যই ছিল বাঙালির স্বাধীনতা যা ছয় দফা ঘোষণার মধ্য দিয়েই শুরু হয়ে গিয়েছিল এবং ৭ মার্চের ঘোষণায় পরিপুর্ণতা পেয়েছিল।
মুক্তিযুদ্ধের সময় মাকছুদুর রহমান বৃহত্তর দিনাজপুর জেলায় মুজিব বাহিনীর অধিনায়ক নিযুক্ত হয়েছিলেন। এই বাহিনী মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম শক্তি ছিল। বৃহত্তর দিনাজপুর জেলায় মুজিব বাহিনীর সদস্য ছিলেন ১২৩০ জন। এর মধ্যে ৩০০ সদস্য ভারতের দেরাদুনের কালসী নামক স্থানে সামরিক প্রশিক্ষণ নিয়ে বাংলাদেশের ভেতরে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সম্পৃক্ত ছিলেন। অন্য সদস্যদের প্রাথমিক ট্রেনিং রিক্রুট ক্যাম্পে সম্পন্ন হলেও দেশ স্বাধীন হয়ে যাওয়ায় দেরাদুনে আর উচ্চতর ট্রেনিং নেয়া হয় নাই। দেরাদুনে মাকছুদুর রহমান যে টিমে উচ্চতর সামরিক প্রশিক্ষণ লাভ করেন সেই টিমে বঙ্গবন্ধুর পরিবারের অনেকেই প্রশিক্ষণ নিয়েছেন বলে তিনি জানান। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েক জন হলেন শেখ ফজলুল হক মনি, শেখ জামাল, শেখ শহীদ, শেখ সেলিম, শখ মারুফ। তারা এক সাথে প্রশিক্ষণ নিয়ে বাংলাদেশকে শত্রুমুক্ত করার সশস্ত্র লড়াইয়ে সামিল হয়েছিলেন। সেই সব দিন এখন স্মৃতি হয়ে আছে। পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর তার বাড়িতে কয়েক দফা তল্লাশী হয়েছে। কিন্তু সৌভাগ্যবশত সেই সময় কোন বাহিনী তাকে ধরত পারে নাই। তিনি নিজেও রাজনীতি থেকে দূরে সরে গিয়ে ব্যবসায় মনোযোগ দেন। ১কন্যা সন্তানের জনক মাকছুদুর অনেকটাই নিভৃত জীবন যাপন করছেন। তার স্ত্রী সাকিরা বানু অসুস্থ্যতায় ভুগছেন। তার দুই সহদোর মাজেদুর রহমান ও মর্তুজা রহমান মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে দেশের স্বাধীনতায় অবদান রেখেছিলেন।

লেখক-আজহারুল আজাদ জুয়েল
সাংবাদিক, কলামিস্ট, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক
পাটুয়াপাড়া, সদর, দিনাজপুর
০১৭১৬৩৩৪৬৯০/০১৯০২০২৯০৯৭
a.azadjewel@gmail.com

f- AZHARUL AZAD JEWEL

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email