মঙ্গলবার ২১ জানুয়ারী ২০২০ ৮ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মুক্তিযুদ্ধোত্তর দিনাজপুর ট্র্যাজেডি

১৬ ডিসেম্বর একাত্তর। বাঙ্গালীর দীর্ঘ ৯ মাসের যুদ্ধ জয়ের দিন। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী এইদিন আত্মসমর্পণ  করতে বাধ্য হয়েছিল বীর বাঙালি জাতির কাছে। পাকিস্তানি হানাদারদের আত্মসমর্পণের ভেতর দিয়ে বিশ্ব মানচিত্রে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটেছিল এই দিনে । নতুন পতাকা, নতুন দেশ নিয়ে বীরোচিত অভিযাত্রা শুরু হয়েছিল সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশ এর।

যুদ্ধ জয় শেষে ঘরে ফেরার পালা। ঘরে ফিরতে থাকে বাঙালি শরনার্থীরা। ঘরে ফেরার প্রস্তুতি নিতে থাকে বাংলার বীর সেনা মুক্তিযোদ্ধারা। ঘরে ফেরার প্রস্তুতি হিসেবে তারা সমবেত হতে থাকেন বিভিন্ন ট্রানজিট ক্যাম্পে। সেখানেও অনেক কাজ। ঘরে ফিরতে চাইলেও সাথে সাথে ঘরে ফেরা যাচ্ছিল না।

বিশেষ করে যুদ্ধ জয়ের সাথে সাথেই সেদিন সকল মুক্তিযোদ্ধার পক্ষে ঘরে ফেরা সম্ভব হয়নি। কারণ শত্রু বাহিনীর ফেলে যাওয়া, পুঁতে রাখা অস্ত্র, গোলা, বোমা, বারুদ তখনো অনেকের প্রাণ সংহারের কারণ হয়ে উঠছিলো। বিভিন্ন স্থানে, যেখানে-সেখানে ফেলে যাওয়া, পুঁতে রাখা সে সব বিপজ্জনক মারনাস্ত্র যতক্ষণ নিরাপদ দূরত্বে সরিয়ে নেয়া না যায়, ততক্ষণ মুক্তিযোদ্ধাদের ঘরে ফেরা সম্ভব নয়। সে কারণে বিজয়ী মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে গড়ে তোলা হয় ট্রানজিট ক্যাম্প ।

মুক্তিযুদ্ধকালে গঠিত ৬ ও ৭ নং সেক্টরের আওতায় দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়ের যে সব মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন তাদের নিয়ে ট্রানজিট ক্যাম্প করা হয় দিনাজপুর শহরের পূর্ব প্রান্তের মহারাজা গীরিজানাথ হাই স্কুল প্রাঙ্গণে। বৃহত্তর দিনাজপুর জেলায় যুদ্ধ করেছেন এমন প্রায় দেড় থেকে দুই হাজার মুক্তিযোদ্ধাকে নিয়ে এই ট্রানজিট ক্যাম্প গড়ে উঠেছিল। ক্যাম্পের সার্বিক নেতৃত্বে ছিলেন লেঃ কর্ণেল শাহরিয়ার।

ক্যাম্পের মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে বৃহত্তর দিনাজপুরের বিভিন্ন স্থানে পাকিস্তানি হানাদারদের পূঁতে রাখা, ফেলে রাখা, ছেড়ে যাওয়া মাইন, বোমা, অন্যান্য অস্ত্র উদ্ধার করা হতো। প্রতিদিনের উদ্ধারকৃত অস্ত্র ট্রানজিট ক্যাম্পের বিরাট বাংকারে রেখে দেয়া হতো। মহারাজা স্কুলের বিরাট মাঠের দক্ষিন দিকে (বর্তমানে যেখানে মসজিদ রয়েছে তার পাশেই) উদ্ধারকৃত এইসব অস্ত্রের বাংকার ছিলো। সেখানে থাকত উদ্ধার করা এন্টি ট্যাংক মাইন, এন্টি পারসোনাল মাইন, জ্যাম্পিং মাইন, মর্টারের ২ ও ৩ ইঞ্চি শেল, গ্রেনেড ইত্যাদি। স্বাধীন দেশের মাটি নিরাপদ করতে মুক্তিযোদ্ধারা উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে প্রতিদিনের উদ্ধার কাজ চালাতে থাকেন। বিপুল পরিমাণ অস্ত্র উদ্ধার হয় কয়েক দিনে। কিন্তু বিজয়ের মাত্র ২০ দিন পর ১৯৭২ সালের ৬ জানুয়ারী সব আনন্দ উদ্দীপনা নি:শেষ হয়ে যায় এক অকল্পনীয় দুর্ঘটনায়।

৬ জানুয়ারী ১৯৭২, সন্ধ্যা। সূর্য তখন অস্তগামী। আকাশে লাল আভা। ঠিক এ সময় অকষ্মাৎ প্রচন্ড বিস্ফোরণে ধ্বংসস্তুপে পরিণত হলো মহারাজা স্কুল। স্কুলের দ্বিতল ভবন গুঁড়িয়ে গেলো। মাঠের যে স্থানটিতে অস্ত্র ভান্ডার ছিলো, সেটি বিরাট খালে পরিণত হলো। সেই খালে উঠে এলো পানি। আর গোটা আকাশ, গোটা মহারাজা স্কুল প্রাঙ্গণ অন্ধকারে ঢেকে গেলো। স্কুলের বিশাল এলাকা এবং এর চারপাশে নিহত আর আহত মানুষের পোড়া গন্ধে ভয়ঙ্করে পরিণত হলো ট্রানজিট ক্যাম্প। এই অকষ্মাৎ বিস্ফোরণ শুধু মহারাজা স্কুল প্রাঙ্গণ নয়, গোটা দিনাজপুর শহরকে ভূমিকম্পের মতো কাঁপিয়ে দিল। এখান থেকে ৪০/৫০ মাইল দূরের লোকও বিকট একটি শব্দের সঙ্গে সঙ্গে বিশাল এক অগ্নিকুন্ড দেখতে পেলেন।

কেমন করে এই বিরাট দূর্ঘটনা সেদিন ঘটেছিলো, তার সঠিক ব্যাখ্যা আজো পাওয়া যায়নি। তবে বিভিন্ন সূত্রে এবং অনেকের লেখা থেকে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, অন্যান্য দিনের মতো ১৯৭২ সালের ৬ জানুয়ারিতেও বিপুল সংখ্যক অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়েছিল এবং সেই সব অস্ত্র দুইটি ট্রাকে করে (কারো কারো মতো তিনটি ট্রাকে) মহারাজা স্কুলে আনা হয়েছিল। ট্রাক থেকে অস্ত্র খালাসের কাজ শুরু হয় বিকেল ৪ টায়। বাংকার বা অস্ত্র ভান্ডার থেকে ট্রাকের দূরত্ব ছিলো ১০০ গজ। এই ১০০ গজের মধ্যে বেশ কিছু মুক্তিযোদ্ধা লাইনে দাঁড়ানো ছিলেন। ট্রাক থেকে অস্ত্র নামিয়ে হাত বদলের মাধ্যমে বাংকারে অস্ত্রগুলো রাখছিলেন। কিন্তু সেদিন হাত বদলের সময় একজন মুক্তিযোদ্ধার কাছ থেকে একটি মাইন ফসকে পড়ে যায়। সঙ্গে সঙ্গে মাইনটি বিস্ফোরিত হয়। বিস্ফোরণের সঙ্গে সঙ্গেই বাংকারে মওজুত রাখা পুরো অস্ত্র ভান্ডারও বিস্ফোরিত হয়ে ব্যাপক ধ্বংসলীলা সাধন করে । সেই ভায়াবহ বিস্ফোরণে ক্যাম্পে উপস্থিত কয়েকশ  বীর মুক্তিযোদ্ধার অকাল মৃত্যু ঘটে।

দুর্ঘটনার সময় সঠিক কত জন মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্পে উপস্থিত ছিলেন তার সুনির্দিষ্টভাবে তথ্য নেই। বিভিন্ন জনের থেকে জানা গেছে,  সকালে রোল কলের সময় ৭৮০ জন মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্পে উপস্থিত ছিলেন। তারপর অনেকেই ২/১ দিনের ছুটি নিয়ে বাবা-মা-স্ত্রী-সন্তানদের সাথে দেখা করত্যে ক্যাম্প ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন। ক্যাম্প ছেড়ে চলে যায় কত জন? তাও জানেন না কেউ। তাই দুর্ঘটনার সময় ক্যাম্পে অবস্থানরত  মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা বলা কঠিন।।

দুর্ঘটনার পরপরই স্থানীয় জনগণ উদ্ধার কাজ কাজে নেমে পড়েন।। কিন্তু সে সময় বিদ্যুৎ না থাকায় ঘন অন্ধকারের ভেতর উদ্ধারকাজ চালানো কষ্টকর ছিল্।ো পরে ভারতীয় মিত্রবাহিনী উদ্ধারকাজে যোগ দেন। গাড়ির লাইট জ্বালিয়ে এবং টর্চ, হ্যাচাক ও লণ্ঠনের আলোয় রাতভর উদ্ধার কাজে সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেন। পরদিন প্রথমে ৮৬ জনের, পরে আরো ২১ জনের লাশ চেহেলগাজী মাজার প্রাঙ্গণে দাফন করা হয় এক সাথে। লাশগুলোর অধিকাংশ ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন ছিলো। কারো হাত, কারো মাথা জোড়া লাগিয়ে একেকটি লাশের আদল দেয়া হয়েছিল। সবগুলো লাশ মুক্তিযোদ্ধাদের।

উদ্ধারকারীগণ দূর্ঘটনাস্থল থেকে প্রায় ৪ মন গলিত, পোড়া, অর্ধ পোড়া, ছিন্ন-বিচ্ছিন, ঝলসানো মাংসের টুকরো উদ্ধার করেছিলেন। এই গলিত, অর্ধ গলিত, পোড়া মাংসও দাফন করা হয়েছিল মুক্তিযোদ্ধাগণের লাশের সাথে।

স্বাধীন বাংলাদেশে এতা বড় ট্র্যাজেডি আর কোথাও হয়নি। এক সঙ্গে কয়েকশ’ বিজয়ী মুক্তিযোদ্ধার প্রাণ ঝরে যাওয়ার মত এতো বড় মর্মান্তিক, হৃদয়বিদারক ঘটনা অকল্পনীয়। যে মুক্তিযোদ্ধারা ঘরে ফিরে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন, বাংলার স্বাধীন মাটিকে নিরাপদ করতে সক্রিয় ছিলেন, তাদের এ প্রাণ বিসর্জন বেদনার চেয়েও বেদনাদায়ক।

১৯৭২ সালের ৬ জানুয়ারীর দুর্ঘটনায় আহত মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মজিদ (পিতা মাহাতাব উদ্দিন, গ্রাম, বলঞ্চা, থানা- রানীশংকৈল, জেলা- ঠাকুরগাঁও) স্মৃতিচারণ করে এক পত্রে লিখেছিলেন, ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস পালন করি রাণীশংকৈল থানার নেকমরদে। এখান থেকে দিনাজপুরে একত্র হওয়ার নির্দেশ পেয়ে আমরা ১৫ সদস্যের একটি গ্রুপ ১৯৭২ সালের ৪ জানুয়ারী দিনাজপুর মহারাজা স্কুলে গিয়ে হাজির হই এবং ক্যাপ্টেন শাহরিয়ারের কাছে আমাদের হাতিয়ার জমা দিয়ে অবস্থান গ্রহণ করি। স্কুলের মাঝ কক্ষটিতে আমরা মেঝেতে বিছানা করে নেই । আমাদের গ্রুপের কারো থালা, বাটি, গ্লাস ছিলো না। অন্যের থালা, বাটি, গ্লাসে খানা খেয়ে যার যার বিছানায় শুয়ে পড়ি। কয়েকদিন আগের থেকেই আমার জ্বর ও মাথা ব্যথা ছিলো। সুতরাং খাওয়ার পর বাইরে যাওয়ার কোন ইচ্ছা হলো না। ৬ জানুয়ারী আমি ও শ্রী সিরেন চন্দ্র মধ্যাহ্ন

ভোজনের পর বিছানায় বসে নিজেদের বাড়ির গল্প করছিলাম। কারণ ৫ জানুয়ারি বুধবার আমার সাথী ও প্রতিবেশী মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল, বিরেন্দ্রনাথ ও আমার এক চাচা ছুটি নিয়ে বাড়ি চলে গেছিলেন। আমিও ছুটি চেয়েছিলাম, কিন্তু দিলো না। তাই অসুস্থ্য শরীরে, দুঃখ ভারাক্রান্ত মনে সিরেন চন্দ্রের সাথে এক বিছানায় বসে গল্প করছিলাম। গল্প চলাকালে বিকেল ৫ টার দিকে সৈয়দপুর থেকে মাইন ও বিস্ফোরক দ্রব্য বোঝাই দুইটি ট্রাক আসে। এ সময় মাঠে সবাইকে ফলিন হওয়ার জন্য হুইসেল দেয়া হয়। আমি অসুস্থ্যতার কারণে বের না হয়ে বিছানায় শুয়ে পড়ি। আমার পাশে সিরেন চন্দ্রও শুয়ে পড়েন। মুক্তিযোদ্ধাদের দ্বারা ট্রাক থেকে মাইন নামানো শুরু হলো। ছোট-খাটো বিস্ফোরকগুলো আমাদের পাশের রুমে এবং বড় ধরনের মাইনগুলো একটি গর্তে রাখা হচ্ছিল্। পাশেই একটি মসজিদে তখন আজান শুরু হলো। আজান শেষ হতে না হতেই হঠাৎ একটা বিদ্যুতের চমক এবং প্রকম্পিত বিকট আওয়াজ শুনতে পেলাম। তারপরে কি হলো আমি আর কিছুই বলতে পারি না। পরের দিন সকাল ৯ টায় নিজেকে আবিস্কার করলাম সদর হাসপাতালের বিছানায়। জানতে পারলাম যে, আমার সাথী সিরেন বেঁচে নেই।

আরেকজন মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব ফজলুল হক (পিতা মৃত হাকিম উদ্দিন, গ্রাম কাদিহাট, থানা- রাণীশংকৈল)। ৬ জানুয়ারী দুর্ঘটনায় তিনিও আহত হয়েছিলেন। তিনি এ প্রসঙ্গে এক চিঠিতে লিখেছিলেন, ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় অর্জনের পর আমরা রাণীশংকৈল থানার নেকমরদ ইউনিয়ন পরিষদের একটি ঘরে অবস্থান করছিলাম। ১৯৭২ সালের জানুয়ারী মাসে নির্দেশ গেলো হাতিয়ার জমা দেয়ার। আমরা ৭নং সেক্টরের মুক্তিযোদ্ধা। সেই সূত্রে আমাদের ধারণা ছিলো যে, আমাদেরকে বগুড়ায় ক্লোজ হতে হবে। নেকমরদ থেকে ৪ জানুয়ারী গরুর গাড়ি যোগে শিবগঞ্জ হয়ে ঠাকুরগাঁও এসে পৌঁছালাম বেলা ২টার দিকে। ঠাকুরগাঁও থেকে আর কোন যানবাহন না পেয়ে অনেক অনুরোধের পর ভারতীয় সৈনিকদের ট্রাকে উঠে দিনাজপুর শহরের বালুবাড়ীতে এসে পৌঁছাই সন্ধ্যা ৬টার দিকে। বালুবাড়ী থেকে মহারাজা স্কুলে আমাদের স্থানান্তর করা হয়। ৬ জানুয়ারি আমার ছুটি নিয়ে বাড়ি আসার কথা ছিলো। কিন্তু অজ্ঞাত কোনো কারণ বশত আমাকে ছুটি দেয়া হয়নি। ছুটি না পাওয়ায় এমনিতেই মন খারাপ ছিল। তদুপরি অন্যের প্লেট নিয়ে ভাত খাওয়ার জন্য বাবুর্চিখানায় গিয়ে বাবুর্চির মুখে শুনলাম যে, শুধু ডাল-ভাত। আমার গায়ে যেনো আগুন ধরে গেলো। এতো কষ্ট করে স্বাধীনতা আনার পরও শুধু ডাল-ভাত খেতে হবে! প্লেটটা ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে নিজের পকেট থেকে টাকা বের করে কাশিপুর নিবাসী মুক্তিযোদ্ধা নুরুজ্জামানকে হোটেল থেকে ভাত আনতে পাঠাই। রাগান্বিত মনে রুমে এসে জানালার ধারে বসে রেডিও নিয়ে কিছুক্ষণ থাকার পর বিছানায় শুয়ে পড়ি। আমার পাশে ছিলেন ডিজেল চন্দ্র। ভাতের অপেক্ষায় থাকতে থাকতে মাগরিবের আজান শুনতে পাই। আজান শেষ হতে না হতেই হঠাৎ বিকট আওয়াজ এবং বিদ্যুৎ চমক দেখতে পেলাম। এরই মধ্যে কখন যে ছাদ ভেঙ্গে আমার ওপর পড়ে গেছে তা বুঝতেই পারিনি। একটু পরে লক্ষ করে দেখি যে, ডিজেল চন্দ্র ছাদের টুকরোর নিচে থেকে হাত বের করে আমাকে ডেকে বলছে, আমাকে বাঁচাও। আমি বিছমিল্লাহ বলে ডিজেলের হাত ধরে টেনে বের করি এবং সদর গেটের দিকে দৌড়াতে থাকি। পেছন থেকে কতোজন যে আমাকে ডেকেছে তা নিজেই জানি না। এদিকে আমার মাথা ফেটে রক্ত ঝরে পুরো শরীর ভিজে গেছে তা অনুভব করতে পারিনি। পাশেই একটি পানের দোকান ছিল। সেই দোকানের কাছে এসে জ্ঞান হারিয়ে ফেলি। রাতেই আমাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ৩/৪ দিন পর জ্ঞান ফিরে আসে।

৬ জানুয়ারির দুর্ঘটনায় আহত আরেক মুক্তিযোদ্ধা নবাবগঞ্জ থানার পুঁঠিমারা ইউনিয়নাধীন আঁন্দল গ্রাম নিবাসী আব্দুর রশিদ। তিনি লিখেছেন, আমি ৭নং সেক্টরের খানপুর, মোহনপুর, পার্বতীপুর, ডাঙ্গাপাড়া, হিলি ইত্যাদি বিভিন্ন স্থানে গেরিলা যুদ্ধ করি। পরে ফ্রিডম ফাইটার হিসেবে যুদ্ধ করি। আমরা চড়ারহাট আঁন্দল গ্রাম (নবাবগঞ্জ) থেকে ৫/১/৭২ তারিখে হাতিয়ার জমা দেয়ার জন্য দিনাজপুর মহারাজা স্কুলের উদ্দেশ্যে রওনা হই। পরদিন ৬/১/৭২ তারিখে বেলা ১১টায় মহারাজা স্কুলে উপস্থিত হই। বেলা ১২টায় হাতিয়ার জমা করি। দুপুরে খানা খেয়ে বিশ্রাম করি। বিকেলে ভলিবল প্রতিযোগিতা দেখি। খেলা দেখতে দেখতে দেখি, মাইন ভর্তি একটি ট্রাক স্কুল মাঠে প্রবেশ করলো। ঠিক মাগরিবের আজান হলো, এ সময় সুবেদার সাহেব বাঁশিতে ফুঁ দিলেন। আমরা তিন লাইনে ফলিন হলাম। সুবেদার লাইন থেকে কিছু ছেলেকে মাইন নামানোর আদেশ দিলেন। ৫/৬ জন ছেলে মাইন নামাচ্ছিলো। ট্রাকের ওপর থেকে নিচে যে ছেলেকে ধরতে হয়, সে সাবধান না থাকায় একটি মাইন হাত ফসকে মাটিতে পড়ে যায়। আর তখুনি বিদ্যুতের চমকে এক সঙ্গে সব অস্ত্রের বিস্ফোরণ ঘটে। আমরা লাইন থেকে কে কোন দিকে বিচ্ছিন্ন হলাম, কিছুই বলতে পারি না। কতোদিন পর আমার জ্ঞান ফিরে এসেছিলো জানি না। জ্ঞান ফিরে পাওয়ার পর দেখি, একখানা কম্বল দিয়ে আমার পা থেকে গলা পর্যন্ত ঢাকা। আমার হাতে স্যালাইন চলছে। জ্ঞান ফেরার ৩/৪ দিন পর নার্স যখন আমার কম্বলখানা বদল করতে লাগলো, তখনই আমি জানলাম যে আমার বাঁ পা চিরতরে উড়ে গেছে। নিজের পা না দেখে আবার জ্ঞান হারালাম।

দিনাজপুরের এ ট্রাজেডিতে অনেকেই অনুমান করেন যে, সেদিন প্রায় ৪শ’ থেকে ৫শ’ মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যু হয়েছিলো।  অধিকাংশই ছিলেন দিনাজপুর শহরের বাইরের। আহতদের তুলনায় মৃত মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা বেশি ছিলো। এত বড় ট্র্যাজেডির ঘটনা সাধারণ মানুষ প্রায় ভুলেই গিয়েছিলেন। এ দিবসটিকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশের কোথাও, এমন কি দিনাজপুরেও কোন ধরণের কর্মসূচী নেয়া হতো না। এমনকি মহারাজা স্কুলেও কর্মসূচী থাকতো না শোকাবহ দিবসটিকে কেন্দ্র করে।

ট্র্যাজেডির প্রায় ১৬ বছর পর  ১৯৮৮ সালে দিনাজপুরের ৩টি ক্ষুদ্র সংগঠন অমৃত সাহিত্য গোষ্ঠী, হোমিও মেডিক্যাল ছাত্র ঐক্য পরিষদ-দিনাজপুর শাখা এবং পাটুয়াপাড়া জাগরণী ক্লাব প্রথমবারের মতো ৬ জানুয়ারিতে ‘ট্র্যাজেডি দিবস’ পালন করে। ওই বছর পত্র-পত্রিকায়ও ৬ জানুয়ারীর ওপর প্রবন্ধ-নিবন্ধ বের হয়। ফলে দিনাজপুরের এ ট্র্যাজেডি সম্পর্কে দিনাজপুরবাসী নতুন করে জানতে পারেন। দেশবাসীও জানতে পারেন। এরপর থেকে প্রতি বছরই দিবসটি পালিত হয়ে আসছে বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে।

২০০০ সালে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক মুক্তিযুদ্ধকালিন জোন-৬ এর চেয়ারম্যান মরহুম এম আব্দুর রহিম, বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক সাইফুদ্দিন আকতার এবং সাংবাদিক আজহারুল আজাদ জুয়েলের যৌথ প্রচেষ্টায় ১৯৭২ এর ৬ জানুয়ারি নিহত ও আহত মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা সংগ্রহের চেষ্টা চালানো হয়। কিন্তু এতদিন পর পূর্ণাঙ্গ তালিকা পাওয়া কঠিন। তবুও ঐ উদ্যোগের অংশ হিসেবে ঐ  সময় ১২২ জন নিহত এবং ৪৪ জন আহত মুক্তিযোদ্ধার নাম সংগ্রহ করা যায়। এম আব্দুর রহিম এর উদ্যোগে সেই সব আহত ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের নামাঙ্কিত একটি স্মৃতিফলক স্থাপন করা হয় ২০০০ সালের ৬ জানুয়ারি। বিডিআর এর তৎকালীন মহাপরিচালক আ. ল. ম. ফজলুর রহমান সেই স্মৃতি ফলক উদ্বোধন করেন। দিনাজপুর পৌরসভার সাবেক মেয়র ও ৬ই জানুয়ারী স্মৃতি পরিষদের বর্তমান আহ্বায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা সফিকুল হক ছুটুও এই উদ্যোগের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। তিনি স্মৃতিফলক স্থাপন কমিটির সদস্য সচিব ছিলেন।

চেহেলগাজী মাজার প্রাঙ্গণে ১৯৭২ সালের ৭ জানুয়ারী মুক্তিযোদ্ধাদের গণসমাধী হওয়ার পর স্থানীয় জনগণ সমাধীর সামনে একটি ছোট্ট শহীদ মিনার তৈরী করেন। সামান্য কিছু মানুষ প্রতি বছর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে ও ৬ জানুয়ারিতে সেখানে শ্রদ্ধাঞ্জলি দিয়ে থাকেন। সেখানে মুক্তিযোদ্ধাদের গণসমাধী সৌধে বেঙ্গল রেজিমেন্ট একটি স্মৃতিফলক দিয়েছেন। কিন্তু ৭২ সালের এত বড় ট্র্যাজেডির ঘটনায় জাতীয় পর্যায়ের কোন উদ্যোগ না থাকা হতাশাজনক ও পীড়াদায়ক!

বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় আসার আগে দিনাজপুরে আয়োজিত এ জনসভায় মহারাজা স্কুলে একটি স্মৃতি স্তম্ভ নির্মাণ করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন। জাতীয় সংসদের বর্তমান হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি উদ্যোগী হয়ে সম্প্রতি স্মৃতি সৌধের নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করেন। বর্তমানে এই কাজ এগিয়ে চলছে।

লেখক-আজহারুল আজাদ জুয়েল

সাংবাদিক, কলামিষ্ট, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক