বৃহস্পতিবার ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ ৩০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

মুক্তিযোদ্ধাদের চেতনায় স্বাধীনতা, হৃদয়ে মুক্তিযুদ্ধ ও কণ্ঠে জয় বাংলা ছিল বলেই স্বাধীনতা অর্জন করা সম্ভব হয়েছে

cc

ফজিবর রহমান বাবু ॥ বর্ণাঢ্য  আনন্দ শোভাযাত্রা ও শ্রদ্ধাঞ্জলির মাধ্যমে বীরগঞ্জ মুক্ত দিবস পালিত হয়েছে।

শুরুতে দিবসটি যথাযথ মর্যদায় উদযাপনের লক্ষ্যে উপজেলা চত্বরে অবস্থিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পন, তাজমহল মোড়ে শহীদ বুধারু স্মৃতিস্তম্ভে ও স্বাধীনতা যুদ্ধে বীরগঞ্জের প্রথম শহীদ মহসীন আলী’র কবরে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পন করেন জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপালসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

পরে উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিল এর আয়োজনে  উপজেলা চত্বর থেকে এক বিশাল আনন্দ শোভাযাত্রা উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে। আনন্দ শোভাযাত্রায় বীরগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধা, রাজনৈতিক, সামাজিক-পেশাজীবি, সাংবাদিক সংগঠন, স্কুল-কলেজ ও মাদ্রসাসহ সকল শ্রেণী-পেশার মানুষ অংশ গ্রহন করেন।

এ উপলক্ষ্যে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আলম হোসেনের সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসাবে  বক্তব্য রাখেন জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল। উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ও বীরগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ খয়রুল ইসলাম চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য মোঃ নুর ইসলাম নুর, যুগ্ন সম্পাদক মোঃ শামীম ফিরোজ আলম, বীরগঞ্জ থানার ওসি আবু আককাছ আহমেদ, উপজেলা সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার কালী পদ রায়, চক্ষু বিশেষজ্ঞ মুক্তিযোদ্ধা ডা. শহীদুল ইসলাম খান,  পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোশারফ হোসেন বাবুল, মোহাম্মদপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান গোপাল দেব শর্মা,  সাতোর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ রেজাউল করিম শেখ প্রমুখ।

প্রধান অতিথি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে ৩০ লক্ষ মানুষের রক্তের ও ২ লক্ষ ৬৯ হাজার মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে আমাদের অর্জিত স্বাধীনতা। আর এই স্বাধীনতা অর্জন করা সম্ভব হয়েছে যারা লড়াইয়ে অবতীর্ণ হয়েছিলেন তাদের চেতনায় ছিল স্বাধীনতা, হৃদয়ে ছিল মুক্তিযুদ্ধ ও কণ্ঠে ছিল জয় বাংলা। বর্তমান প্রজন্মের অনেকেই মুক্তিযুদ্ধের সাথে পরিচিত না। মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস যদি এই নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরা হয়, মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে তারা যদি সম্মুখ ধারনা লাভ করে তবে ভবিষ্যতে কখনো জামায়াতের সাথে গাটবাধা কোন জোট এদেশের ক্ষমতায় আশিন হতে পারবে না।

উল্লেখ্য, ১৯৭১ইং সালে এই দিনে মুক্তিযোদ্ধা ও ভারতীয় মিত্র বাহিনীর আক্রমনে ঢাকা-পঞ্চগড় মহাসড়কের ভাতগাঁও ব্রীজে বাংকারে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী অবস্থান নেয়। যৌথ বাহিনীর টেংক-কামান-মেশিনগান ও বিমান হামলা থেকে নিজেদের বাঁচতে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী পালিয়ে যায় এবং বীরগঞ্জ মুক্ত হয়।