বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর ২০১৯ ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইলের প্রতিবাদের ভাষা যদি বোঝেন

বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে রাইফেল, গ্রেনেড, এসএলআর, এলএমজি নিয়ে যারা পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে জীবন বাজি রেখে লড়াই করেছিলেন সেই মুক্তিযোদ্ধাদের অধিকাংশই ছিলেন কৃষক, শ্রমিক, মেহনতি মানুষের সন্তান। তারা স্কুল, কলেজের ছাত্র এবং তুলনামূলক কম বয়সী ছিলেন। অস্ত্র ব্যবহারে পেশাদারিত্ব ছিল না। তবু তারা তারুণ্যের দু:স্বাহস, অভাবিত মনোবল, দূর্দান্ত মনোবল নিয়ে দিনের পর দিন, রাতের পর রাত খেয়ে না খেয়ে বিশে^র অন্যতম দুর্ধর্ষ, আধুনিক সমরাস্ত্রে সজ্জিত পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে মোকাবেলা করেছিলেন। এই লড়াইয়ের লক্ষ্য ছিল বাংলাদেশকে স্বাধীন করা, স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে সম্মান ও মর্যদা নিয়ে বেঁচে থাকার ব্যবস্থা করা এবং বৈষম্য, ক্ষুধা, দারিদ্র্যমুক্ত শোষণহীন সমাজ ব্যবস্থা গড়ে তোলা।

একাত্তরে যুদ্ধ শুরু ও শেষ। একাত্তরের লড়াইয়ের সময় বীর মুক্তিযোদ্ধারা তাদের নিজেদের সুন্দর ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবেন নাই, আরাম-আয়েশের সন্ধান করেন নাই, কোন একটা কঠিণ পরিস্থিতির মুখোমুখি হলে পরে প্রাণ ভয়ে ভীত-সন্ত্রস্ত হয়ে পালিয়েও যান নাই। অল্প বয়সী যুবক, স্কুল কলেজের ছাত্ররা অকুতোভয় সাহসিকতা নিয়ে মুক্তিযোদ্ধারা বিরোচিত লড়াই করেছিলেন বলেই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। সেই স্বাধীন দেশে এখন অনেকেই যারা যুদ্ধ দেখেন নাই, যুদ্ধের দুঃখ ও কষ্ট বোঝেন নাই, পাকিস্তানি হানাদার আর রাজাকারদের তাড়া খান নাই তারা ডিসি, এসপি, সচিব, মহাসচিব হয়ে জনগণের টাকায় বেতন ভাতা নিয়ে পেটপুজা করছেন, সুন্দর আনন্দময় বিলাসী জীবন-যাপন করছেন। কিন্তু দেশ যদি স্বাধীন না হতো তাহলে তারা পিওন, চাপরাশী, কেরানীর বেশি কিছু হতে পারতেন না। যতই যোগ্যতা থাক না কেন চরমতম দালাল ছাড়া  উচ্চ পদে বাঙালির সন্তানদের বসানোর সুযোগ পাকিস্তান সরকার দিত না।

আজ ডিসি, এসপি, সচিব, মহাসচিব কিংবা অন্যান্য প্রশাসনিক পদে যারাই অধিষ্ঠিত হচ্ছেন বাংলাদেশের স্বাধীনতার বদৌলতেই তারা সেটা হতে পারছেন। আমরা আমাদের শাসক হতে পেরেছি বলেই সেটা সম্ভব হচ্ছে। কিন্তু অদ্ভূত ব্যাপার, সরকারি আমলা কিংবা অফিসারগণ আজকাল মুক্তিযোদ্ধাদের যথাযথ সম্মান দিতে চায় না! শুধু মুক্তিযোদ্ধা নয়, ক্ষমতাসীন সরকার দলীয় মন্ত্রী-এমপি ব্যতিত আর কাউকেই তারা মর্যাদা কিংবা সম্মান দিতে কুন্ঠাবোধ করেন। আজকাল সাধারণ মানুষকে কারণে-অকারণে আমলাদের দূর্ব্যবহারের শিকার হতে হয়। মুক্তিযোদ্ধাসহ সাধারণ মানুষের প্রতি তাদের অসৌজন্য মূলক আচরণের কারণে সাম্প্রতিক সময়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে আমলাতন্ত্র বিরোধী এক ধরণের মনোভাব তৈরী হয়েছে যা ভবিষ্যৎ প্রশাসন পরিচালনায় নেতিবাচক পরিস্থিতির তৈরী করতে পারে।

১১ অক্টোবর ২০১৯ তারিখে দিনাজপুর সদরের যোগিবাড়ি গ্রাম নিবাসী বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন হার্ট এ্যাটাক করে মারা যান। মুক্তিযোদ্ধা সংসদের মাধ্যমে খবর পেয়ে উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় গার্ড অব অনার দেয়ার প্রস্তুতি নিয়ে সেই মুক্তিযোদ্ধার কফিনের পাশে গিয়েছিলেন। কিন্তু ঐ মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের পক্ষ হতে গার্ড অব অনার দিতে আপত্তি জানানো হয়। কারণ ঐ মুক্তিযোদ্ধা মৃত্যুর আগে লিখে গিয়েছিলেন যে, যেই এসিল্যান্ড তার ছেলের চাকুরি কেড়ে নিয়ে তার পেটে লাঠি মেরেছে, যেই ডিসি, ইউএনও একজন মুক্তিযোদ্ধা জানার পরেও তার সাথে খারাপ ব্যবহার করেছে শেষ যাত্রার সময় তাদের দেয়া গার্ড অব অনার তিনি নেবেন না। তাদের হাতে গার্ড অব অনার নিয়ে নিজের অসম্মান বৃদ্ধি করবেন না। যেদিন তিনি এই পত্র লিখেছিলেন, তার পরদিনেই মারা যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন।

কি তার ক্ষোভ, কেন তিনি এমন অভিমানী অছিয়তনামা লিখে রেখেছিলেন, কেন তার পরিবারের লোকজন মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য রাষ্ট্র প্রদত্ত গার্ড অব অনার এর মত সম্মান দিতে প্রশাসনকে বাধা দিয়েছিলেন, ইতোমধ্যে দেশবাসী তা জেনে গেছেন সংবাদপত্র, ইলেকট্রেনিক্স মিডিয়া ও ফেসবুকের মাধ্যমে। জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিমের সুপারিশে মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেনের পুত্র নুর ইসলামকে নো ওয়ার্ক নো পেইড ভিত্তিতে সদর এসি ল্যান্ড এর গাড়ী চালক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছিল। কিন্তুএসি ল্যান্ড সেই নুর ইসলামকে গাড়ি চালানো ছাড়াও বাসায় তার দ্বারা চাকরের কাজও করিয়ে নিতেন। তাকে দিয়ে বাজার করানো, রান্না করানো ছাড়াও বাড়ির ড্রেন, শৌচাগার ইত্যাদি পারিস্কার করতে বাধ্য করতেন। তার পরেও অজ্ঞাত কারনে একটা পর্যায়ে তাকে অপমানজনক ভাবে চাকুরিচ্যুত করেন এবং সরকারি যে বাড়িতে নুর ইসলাম থাকতেন সেই বাড়ি থেকে বের করে দেন।

বৃদ্ধ মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন জানতে চেয়েছিলেন তার ছেলের কি অপরাধ? কোন দোষে চাকুরি গেল? যদি কোন দোষ করে থাকে তাহলে ছেলেকে সংশোধনের চেষ্টা করতেন। ছেলের হয়ে ক্ষমা চেয়ে চাকুরিটা ফিরিয়ে দেয়ার আব্দার করতেন। কিন্তু দূর্ভাগ্য এই মুক্তিযোদ্ধার! তিনি দিনাজপুরের ডিসির সাথে দেখা করতে গিয়ে দেখা পান নাই। ডিসি তাকে দেখা করার সুযোগ দেন নাই। যে এসিল্যান্ডের গাড়ি চালক হিসেবে কাজ করতেন তিনিও তার সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন।

একজন মুক্তিযোদ্ধা হয়েও প্রশাসনের কর্তাদের হাতে অসম্মানিত হওয়ার বিষয়টি মেনে নিতে পারেন নাই ইসমাইল হোসেন। তাই তিনি মৃত্যুর আগে লিখে যান যে, যারা তাকে অসম্মানিত করেছে, তার ছেলের রুটি-রুজি কেড়ে নিযেছে মৃত্যুর পর তাদের দ্বারা কোন গার্ড অব অনার তিনি নিতে চান না। তার মৃত্যুর পর পরিবারের লোকেরা মৃতের এই অন্তিম ইচ্ছা যথাযথভাবে পালন করেন এবং প্রশাসনের লোকদের দ্বারা রাষ্ট্রীয় সম্মাননা গার্ড অব অনার দিতে বাধা প্রদান করেন।

প্রশাসনের কর্মকর্তাদের দ্বারা অপমানিত ও অসম্মানিত হওয়া একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তার পরিবারের এই প্রতিবাদের ঘটনায় তোলপাড় সৃষ্টি হওয়ার পর এসিল্যান্ডকে ষ্ট্যান্ড রিলিজ করা হয়েছে। দিনাজপুরের মুক্তিযোদ্ধারা জেলা প্রশাসকেরও অপসারন দাবী করেছেন এবং দাবীর সমর্থনে বিভিন্ন কর্মসুচি পালন করেছেন। হয়ত সেনসেটিভ কারনে এই দাবী পুরণ হয়ে যাবে। কারণ দাবী পুরণ না হলে সারাাদেশেই মুক্তিযোদ্ধারা রাজপথে নেমে আসবেন বলে ঘোষণা দিয়ে রেখেছেন।

সাম্প্রতিক সময়ে দেশের বিভিন্ন জেলা, উপজেলায় বিসিএস ক্যাডার হিসেবে যারা প্রশাসনিক দায়িত্ব নিচ্ছেন তারা মেধাবী, দক্ষ, যোগ্য তাতে সন্দেহ নাই। নানান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে তাদেরকে ঐ পদগুলোতে আসতে হয়। কিন্তু যে জনগণের কাজের জন্য তারা নিয়োজিত হন, যে জনগণকে নিয়ে তাদের চলতে হয়, দেখা যায় সেই জনগনের সাথে তাদের সম্পর্কটা মোটেও ভাল যায় না। সাধারন মানুষ তাদের সাথে দেখা করতে চাইলে দেখা করেন না, কথা বলতে চাইলে শুনতে চান না। তারা যে কাজগুলো করেন সেটা যেন অনেকটা রোবটের মত। এইসব কাজে মানবিকতা থাকে না। মানুষের প্রতি শ্রদ্ধাবোধের ভিষণ অভাব থাকে। তারা ভীষণ মেধাবী, বিসিএস ক্যাডার কিন্তু মুক্তিযোদ্ধা, বয়ো:বৃদ্ধ মানুষ, সাধারণ মানুষের সাথে কেমন ব্যবহার হওয়া উচিত সেই বিষয়ে মেধার অভাব লক্ষ্য করা যায় ভীষণভাব্।ে এ কারনেই ইসমাইল হোসেনের মত মুক্তিযোদ্ধারা প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের আচরণের প্রতিবাদ জানাতে বাধ্য হন গার্ড অব অনার গ্রহণ না করার মধ্য দিয়ে। দিনাজপুর জেলার একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার এই প্রতিবাদের ভাষা যদি দেশের প্রশাসন যন্ত্রে নিয়োজিত কর্মকর্তাগণ উপলব্ধি করতে পারেন তাহলে সেটা আমাদের সকলের জন্য ভাল হবে।

লেখক-আজহারুল আজাদ জুয়েল

সাংবাদিক, কলামিষ্ট, মক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক