বৃহস্পতিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

‘মুক্তিযোদ্ধা কোটা নিয়ে ভিন্ন সিদ্ধান্তের সুযোগ নেই’

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, মুক্তিযোদ্ধাদের কোটা সংরক্ষণের বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের আদেশ রয়েছে। সেই বিষয়ে হস্তক্ষেপ আদালত অবমাননার শামিল হবে। মুক্তিযোদ্ধা কোটার বিষয়ে আদালতের আদেশ কোটা সংস্কারে গঠিত কমিটির কাছে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আজ বুধবার সচিবালয়ে তথ্য অধিদফতরের সম্মেলন কক্ষে চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা সংরক্ষণ এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সাম্প্রতিক কার্যক্রম নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, আপিল বিভাগের রায় অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধা কোটায় যোগ্য প্রার্থী না পাওয়া গেলে মেধা কোটা থেকে পূরণ করার সুযোগ থাকলেও ৩০ শতাংশ কোটা সংরক্ষণের বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

তিনি বলেন, এই আদেশ অগ্রাহ্য করে বা পাশ কাটিয়ে বা উপেক্ষা করে ভিন্নতর কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার সুযোগ নেই। এটা করা হলে তা আদালত অবমাননার শামিল হবে বলে আমি মনে করি।

মোজাম্মেল হক বলেন, সরকারের গঠিত কমিটি (কোটা পর্যালোচনা কমিটি) এ ব্যাপারে সচেতনতার সঙ্গে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে আশা করি। এ বিষয়ে আদালতের রায়ের কপি আজ কমিটির কাছে পাঠানো হয়েছে।

মোজাম্মেল হক বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী হিসেবে মুক্তিযোদ্ধা পরিবার, মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তান এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী অনেক মানুষ আমাকে ফোন করেছেন। আমি তাদেরকে সাফ জানিয়ে দিয়েছি, মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য সংরক্ষিত ৩০ শতাংশ কোটায় কোনো হস্তক্ষেপ করা হবে না। এ নিয়ে উদ্বিগ্নের কোনো কারণ নেই।

প্রসঙ্গত, সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতির সংস্কারের দাবি দীর্ঘদিনের। শিক্ষার্থীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতের সরকার কোটা পদ্ধতি বাতিলের ঘোষণা দিয়েছে। এ নিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিবের নেতৃত্বে ৭ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। যারা কোটা পদ্ধতির সংস্কার কিংবা বাতিল নিয়ে কাজ করছেন।