শনিবার ১১ জুলাই ২০২০ ২৭শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মুঠোফোনে কষ্টের কথা হুইপকে জানাতেই ত্রাণ সহায়তা পেল অনাহারে থাকা প্রতিবন্ধী পরিবার

দিনাজপুর প্রতিনিধি : পরিবারের ৫ সদস্যের মধ্যে ৩ জনই শারিরীক প্রতিবন্ধী। একদিকে প্রাণঘাতী করোনায় আক্রান্ত হওয়ার আতঙ্ক। অপরদিকে চরম সংকটে থাকা অসহায় পরিবারের জোটেনি কিঞ্চিত পরিমান ত্রাণ সহায়তা। ক্ষুধার যন্ত্রণা যখন আর সহ্য করা যাচ্ছিল না তখন শারিরীক প্রতিবন্ধী রোজিনা আকতার কাতর কণ্ঠে মুঠোফোনে তাদের পরিবারের কষ্টের কথা জানালেন স্থানীয় সংসদ সদস্যকে। আর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ত্রান সহায়তা পৌছে গেল অনাহারে থাকা প্রতিবন্ধী পরিবারের কাছে।
দিনাজপুর সদর উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম জালালপুরের শাহাপাড়ায় সরজমিনে গিয়ে দেখা গেল, স্বল্প আয়ের রেজাউল ইসলাম ও আহেদা আকতারের পরিবারের ৫ সদস্যর মধ্যে ৩ জনই শারিরীক প্রতিবন্ধী। ছেলে জুয়েল (৩৪), মেয়ে রোজিনা আকতার (২৫) এবং ছোট ছেলে রোহান (১৪)। তিন সন্তানই তাদের জন্ম সূত্রে শারিরীক প্রতিবন্ধী। ছোট ছেলে রোহান সারাক্ষণই শুয়ে থাকে, বসতেও পারেনা। তাদের বাবা রেজাউল ইসলাম ছোট দোকান কর্মচারী। বেশ কিছু দিন আগে দুর্ঘটনায় তারও পা ভেঙ্গে গিয়ে পঙ্গু প্রায় অবস্থা। পিতার যৎসামান্য রোজগার আর দুই ভাইবোনের প্রতিবন্ধী ভাতা দিয়ে টান পোড়নের মধ্যে চলছিল তাদের সংসার। প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের ছোবলে বাবা রেজাউল ইসলামের সামান্য রোজগারের পথও বন্ধ হয়ে যায়। চরম সংকটে পড়ে অসহায় এই পরিবারের সদস্যরা। শারিরীক প্রতিবন্ধী রোজিনা আকতার জানান, জেলায় লকডাউনের শুরু থেকে এ পর্যন্ত কোন ধরনের ত্রান সহায়তা পায়নি তারা। অনাহারে-অর্ধাহারে কোনমতে দিন কাটছিল তাদের।
“প্রাণঘাতী করোনা সংক্রমন প্রতিরোধে ঘরে থাকা স্বল্প আয়ের মানুষের ঘরে ঘরে খাদ্য পৌছে দেয়া হবে, কোন মানুষ অনাহারে থাকবে না” টেলিভিশনে প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্য শুনে রোজিনা বেঁচে থাকার অনুপ্রেরণা পায়। প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্য শুনেই তার মনে আশার আলো জাগে এবং সেই আশা নিয়েই ক্ষুধার যন্ত্রনায় কাতর কণ্ঠে প্রতিবন্ধী রোজিনা আকতার মুঠোফোনে এলাকার সংসদ সদস্য হুইপ ইকবালুর রহিমকে ফোন করেন। তাদের অসহনীয় কষ্টের কথা ধৈর্য্যের সাথে শোনেন তিনি। ফোনে কথা শেষ হওয়ার কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে হুইপ ইকবালুর রহিম চাল, ডাল, লবন, তেল, সেমাই, চিনি, পরিবারের সদস্যদের জন্য নতুন কাপড়, স্যানিটাইজার, মাস্কসহ ১৭ ধরনের ত্রাণ সহায়তা অসহায় পরিবারটির কাছে পৌছে দেন। যা ৫ সদস্যের পরিবারের ১৫ দিন চলবে। ত্রাণ সহায়তা পেয়ে ওই পরিবারের সদস্যরা আবেগে উচ্ছসিত হয়ে পড়েন। হুইপ ইকবালুর রহিমের পাঠানো এসব ত্রাণ সহায়তা অসহায় পরিবারের হাতে পৌছে দেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. ইসাহাক আলী।
এই প্রথম খাদ্য সামগ্রী ও নতুন কাপড় পেয়ে কান্না জড়িত কণ্ঠে তিন শারিরীক প্রতিবন্ধীর মা আহেদা আকতার বলেন, এ দু;সময়ে আমাদের খোঁজ কেউ রাখে না। অতি কষ্টে দিনযাপন করছি। সংসার চালাতে এভাবে সকলের সহযোগিতা পেলে সন্তানদের মুখে আহার তুলে দিতে পারবো। তিনি জানান, হুইপ ইকবালুর রহিম দু’বছর আগে দুটি হুইল চেয়ার দিয়েছেন।
প্রতিবন্ধী জুয়েল জানান, করোনায় ভয়াল থাবায় আমরা তিন ভাইবোন বাড়ী থেকে বের হই না। অসুস্থ্য বাবার কোন আয়-রোজগার না থাকায় দিশেহারা আমরা। বাড়ীতে খাবার না থাকায় শেষে বাধ্য হয়েই প্রতিবন্ধী বোন রোজিনা মুঠোফোনে বিষয়টি জানান স্থানীয় এমপি ইকবালুর রহিমকে। তিনি কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে ত্রান সহায়তা বাড়িতে পৌছে দেন।
সদর উপজেলার ৮ নং শংকরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. ইসাহাক আলী জানান, জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি আমাকে ফোন করে তিন প্রতিবন্ধী ভাইবোনকে ত্রাণ সহায়তা পৌছে দেয়ার কথা বলেন। আমি হুইপের দেয়া নতুন কাপড়, চাল, ডাল, লবন, তেল, সেমাই, চিনিসহ ১৭ ধনের ত্রাণ পৌছে দিয়েছি। যা দিয়ে পরিবারটি ১৫ দিন চলতে পারবে।
প্রতিবন্ধীদের চাচা মো. রফিকুল ইসলাম ও স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, অসহায় পঙ্গু ছেলেমেয়েদের হাতে ত্রাণ সামগ্রী তুলে দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। তারা বলেন, সরকার করোনায় কর্মহীন ও অসহায় পরিবারের মাঝে ত্রাণ সহায়তা পৌছে দিতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছেন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email