শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯ ৩রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

‘মৃত্যু এক নির্মম সত্যের উচ্চারণ, ভালো নেই আমরা ভালো নেই।’

অমানবিক গণ পিটুনির মুখোমুখি হওয়ার অভিজ্ঞতা যাদের নাই তারা জানবেন না। অভিজ্ঞরা জানেন পিটুনির প্রথম কয়েক মিনিট তীব্র কষ্টের সাথে একটা সম্ভাবনার সলতেকেও মিটমিট করে জ্বলতে দেখা যায়। প্রতিক্ষণেই মনে হয় এবার বোধহয় থামবে। কেউ একজন এসে নিশ্চয়ই থামিয়ে দেবে এ উন্মক্ততা। প্রকৃত অপরাধী কিংবা নির্দোষ উভয়ের ভাবনাই হয় একই রকম। ক্লান্তিজনিত কারনে প্রহারকারী বিরতী নিতে পারেন, প্রহৃতর বিরাম নাই। আরেকজন এসে হাতে তুলে নেয় দমনদন্ড। বর্বরতা চলতে থাকলে এক পর্যায়ে শরীর অসার হয়ে আসে। কষ্টের অনুভুতি কমে যায়। কিন্তু মন তখনও ক্রিয়াশীল থাকে। একধরনের আধা চেতনায় আচ্ছন্ন মনে হাজারো ভাবনা এসে চক্রাকারে ঘুরতে থাকে। সে ভাবনা অনিয়ন্ত্রিত গন্তব্যে এলেবেলে ঘুরে বেড়ায়। নদীতে প্রবল ঢেউ ওঠে। গাছের নবীন পাতারা শিরশিরে হাওয়ায় দুলতে থাকে। বাতাবী লেবুর ফুটবল পায়ে পায়ে ঘোরে। অথচ সেখানে শুধু বর্তমানটাই থাকেনা। যতক্ষণ পর্যন্ত শরীরের অতি সংবেদনশীল কোন অংশ তীব্র আঘাতপ্রাপ্ত না হয় ততক্ষণ এই ‘সচেতন বোধহীণতা’ চলতেই থাকে। অবচেতন পর্যায়ে সবচেয়ে বেশী মনে পড়ে মাকে। শব্দহীণ উচ্চারণে শুধু একই আর্তি-মাগো…

কখনও কখনও ঘটনাস্হলে একজন ত্রাতা উপস্হিত হতে দেখা যায়। হাত তুলে থামিয়ে দেন বেদম প্রহার। সেটা হতে পারে ভিক্টিমের অবস্হা পর্যবেক্ষণের প্রয়োজনে অথবা নিতান্তই মানবিক বিবেচনায়। অবশ্য শেষোক্ত ঘটনা ঘটে হাজারে একটা। এমন হাজারে একটার ঘটনা আমাদের জাতীয় জীবনে ঘটেছিলো একবার। ঊনিশ’শ একাত্তরের আগে আগে। পশ্চিম পাকিস্হানের সব সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধেই তখন আমাদের ভিন্নমত। এই ভিন্নমত দমনে বেদম পেটানো হচ্ছিলো পূর্ব পাকিস্হানকে। তীব্র যন্ত্রনায় কাতর হচ্ছিলো পঞ্চান্ন হাজার বর্গমাইল। সে কাতরতার আর্তস্বরে আমাদের মানবিক বিবেচনা বোধ জেগে উঠেছিলো দিকে দিকে। খেটে খাওয়া মুটে মজুর থেকে শুরু করে অফিসের কেরানি সরকারি আমলা পত্রিকার সাংবাদিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক পোড় খাওয়া রাজনীতিক প্রত্যেকে হাত তুলে কোরাস ঝংকারে চিৎকার করে উঠেছিলো-থামাও নির্যাতন। নির্যাতন কি থামে! থামাতে হয়। একাত্তরে আমরা থামিয়েছিলাম।

ভিন্নমত পছন্দ করা মুশকিল। একাত্তর পূর্বে পাকিস্হান পছন্দ করেনি এখন বাংলাদেশ করছেনা। আবরার ভিন্নমত প্রকাশ করেছিলো ক্ষমতাবানদের বিরুদ্ধে। আবরারের জন্য গণধোলাই তাই অপরিহার্য হয়ে পড়েছিলো। কিন্তু প্রশ্ন সেখানে নয়। আবরার একাই তো শুধু নয়, প্রথমও নয়। এমন নজির অনেক। তাহলে সেই ‘হাজারে একটা হাত’ এতোদিন ওঠেনি কেন? টর্চার সেলে ডেকে নেয়ার সময় তার বন্ধুদের প্রতিরোধের হাত ওঠেনি কেন? প্রথম দু’একটা লাঠির বাড়ি নাহয় অসহায় আবরার দাঁত খিঁচে সহ্য করেছিলো। কিন্তু এক সময় সে নিশ্চয়ই একাত্তর পুর্ব বাংলাদেশের মতই যন্ত্রনায় আর্তনাদ করে উঠেছিলো। ২০১০ বা ২০১২ বা অন্য কোন রুম থেকে কেউ কি সে চিৎকার শুনতে পায়নি! শোনার তো কথা। তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ করে রুখে দাঁড়ানো যায়নি কেন? তার জীবনটা নিশ্চিত বেঁচে যেত। তার সহপাঠি সমব্যাথি বন্ধুরা, আজ যারা রাস্তায় নেমেছেন আবরার হত্যার বিচার দাবিতে, এ প্রশ্নের জবাব কিন্তু তাদের খুঁজে বের করতেই হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের তরুণ সাংবাদিকরা ক’টা প্রতিবেদন তৈরী করেছেন এ সকল কনসেন্ট্রেশন ক্যাম্পের গল্পগাঁথা নিয়ে? আমরা লোকমুখে কিছু কিছু শুনলেও পড়িনি তো কখনও। ষাটের দশকে মানিক মিয়া কিন্তু ঠিকই পেরেছিলেন। আর শিক্ষক! কেউ বলেন ওরা বুদ্ধিবেশ্যা কেউ বলেন প্রচলিত রাজনীতির গুখেকো পন্ডিত। আমরা কখনও বলিনি এসব যখন ছাত্র ছিলাম। এতো দ্রুত এই স্খলন! জ্ঞানে মেধায় বিবেচনায় বিচক্ষণতায় স্বার্থে মোহে কামে ক্রোধে শুধু স্খলন আর অবনমন। ‘শিক্ষক আমি শ্রেষ্ঠ সবার’ এখন নিছকই একটা কবিতার পঙক্তি মাত্র।

আবরার মেধাবী ছিলো। ছিলোইতো। নাহলে বুয়েটে পড়ার সুযোগ পেলো কিভাবে! ওর হত্যাকারী যারা তারাও বুয়েটেই পড়তো। তারাও মেধাবী। ঠিক এ যায়গায় এসে মেধাবী শব্দটা কিভাবে মার খেয়ে গেলো দেখুন! এর আর আলাদা কোন মুল্য নেই। একদম অর্থহীণ। হত্যাকান্ডের শিকার হওয়া মানুষটির সাথে আসলে যে বিশেষণই যুক্ত করুন শেষমেশ সে দুর্ভাগাই। সেটা আবরারই হোক বা অভিজিৎ। সে কারনে যে কোন হত্যাকান্ডকে সংগত বিবেচনা করা মানেই পরের হত্যাকান্ডের পথ প্রশস্ত করে দেয়া।

‘আবরারই বাংলাদেশ’ – যদি সত্যিই হয় তবে গণপিটুনির হাত থেকে দেশকে বাঁচাতে আসুন শক্ত মুঠিতে ধরি পরস্পরের হাত।

‘মৃত্যু এক নির্মম সত্যের উচ্চারণ, ভালো নেই আমরা ভালো নেই।’

লেখক-সুভাষ দাশ।

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ।

বীরগঞ্জ,দিনাজপুর।