মঙ্গলবার ১৯ জুন ২০১৮ ৫ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মেধা কাজে লাগিয়ে নারীদের এগিয়ে যেতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মেয়েদের বসে থাকলে চলবে না। নিজের পায়ে দাঁড়াতে হবে। তাদের নিজেদের মেধা কাজে লাগিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। বেশি করে পড়ালেখা করতে হবে। কর্মক্ষেত্রে নারীরা যাতে মূল স্রোতে আসতে পারে সে জন্য ব্যবস্থা নিতে হবে। অর্থনৈতিকভাবে নারীদের স্বনির্ভর হতে হবে। নারী উন্নয়ন বাস্তবায়নে আমরা সর্বদা কাজ করে যাচ্ছি।

বৃহস্পতিবার সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ কথা কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের মোট জনগোষ্ঠীর অর্ধেক নারী। এ নারীদের পেছনে রেখে দেশের উন্নয়ন অগ্রগতি সম্ভব না। দেশের উন্নয়নের প্রতিটি ক্ষেত্রে নারীর উন্নয়ন, অংশগ্রহণ ও অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। নারী-পুরুষ মিলে কাজ করলেই আমরা উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে পারব।

শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার বিগত ৯ বছরে নারীর ক্ষমতায়ন ও নারী উন্নয়নকে অগ্রাধিকার দিয়ে বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। আমরা জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতি-২০১১ প্রণয়ন করে তা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, গ্রামে নারীদের কর্মসংস্থান বাড়ানোর জন্য প্রাথমিকে ৬০ ভাগ নারী শিক্ষক রাখার বিধান করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মাতৃত্বকালীন ছুটি সবেতনে ৬ মাসে উন্নীত এবং মাতৃত্বকালীন ভাতা ও ল্যাকটেটিং মাদার ভাতা চালু করেছি। এ ছাড়াও বয়স্ক ভাতা, বিধবা, তালাকপ্রাপ্ত ও নির্যাতিত নারীদের ভাতা, অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধীদের ভাতা চালু করা হয়েছে।

তিনি বলেন, নারী নির্যাতন প্রতিরোধে জেলা উপজেলায় ৬০টি ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেল ও ন্যাশনাল হেল্পলাইন (১০৯) চালু করা হয়েছে। ভিজিএফ, ভিজিডি ও জিআর কার্যক্রম সম্প্রসারণের মাধ্যমেও সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হচ্ছে। বর্তমান সরকারের সময়োপযোগী ও বলিষ্ঠ পদক্ষেপের ফলে রাজনীতি, বিচার বিভাগ, প্রশাসন, শিক্ষা, চিকিৎসা, সশস্ত্রবাহিনী ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ সর্বক্ষেত্রে নারীরা যোগ্যতার স্বাক্ষর রাখছেন।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের মেয়েরা খেলাধুলায় এখন আর পিছিয়ে নেই। আমাদের মেয়েরা এখন এভারেস্টেও যাচ্ছে। আমরা নারী নেতৃত্ব গ্রাম থেকে তৃণমূল পর্যায়ে আনার চেষ্টা করছি।

তিনি বলেন, সভ্য দেশে নারীরা যা না পারে বাংলাদেশে তা পারে। সর্বক্ষেত্রে নারীদের কাজের সুযোগ দেয়ার কারণেই দেশ আজ উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

তিনি নারীদের অবদানের কথা বলতে গিয়ে নিজের মা বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিবের অবদানের কথা উল্লেখ করেন। বঙ্গবন্ধু জেলে থাকা অবস্থায় তিনি যেভাবে সংসার, রাজনীতি ও আন্দোলন পরিচালনায় ভূমিকা রাখতেন সেসবের স্মৃতিচারণা করেন।

জাতীয় ও আন্তর্জাতিক নারী জাগরণের অগ্রদূতদের, যাদের আত্মত্যাগ ও নিষ্ঠায় আজ নারীর সমান মর্যাদা বর্তমান অবস্থানে পৌঁছেছে তাদের এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে সম্ভ্রম হারানো ২ লাখ মা-বোনকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন প্রধানমন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি। স্বাগত বক্তব্য রাখেন মন্ত্রণালয়ের সচিব নাসিমা বেগম এনডিসি।