বুধবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মোদের গরব মোদের আশা আ-মরি বাংলা ভাষা…..।

জন্মেই মাকে মা বলে ডাকি। মায়ের মুখের ভাষা থেকে বলতে শিখি। মনের কথা ভাষা দিয়ে ব্যক্ত করি। যে ভাষায় আমি সব থেকে ভাল বুঝতে পারি সে আমার মায়ের ভাষা। মায়ের ভাষা দিয়ে সব ব্যাথা-বেদনা, আশা-আকাঙ্ক্ষা, চাওয়া-পাওয়া, হাসি-কান্না, হৃদয়জুড়ে সবটুকু প্রকাশ করা কতই না সহজ। এর থেকে সুন্দর এর থেকে মধুর আর কি হতে পারে?

একটি শিশু জন্মের পর মায়ের কাছ থেকে ও পারিবারিক ভাবে তার ভাষার জগৎ সমৃদ্ধ করে অনেকটাই। এরপর তাঁর নিজ ভাষার বর্ণ পরিচয় ঘটে শিক্ষকের কাছে। বর্ণ পরিচয় থেকে পর্যায়ক্রমে তার জ্ঞানের জগৎ বিস্তৃত হতে থাকে। এক সময় সে মুখে বলা ভাষা কিংবা নিজস্ব চিন্তা-চেতনার ভাব লিখে প্রকাশ করতে পারদর্শী হয়ে ওঠে। আর এই সময়ে তাঁর শিক্ষকের অবদান অনস্বীকার্য।

আমি একজন শিক্ষক হিসেবে আজ সত্যিই গর্বিত। একটি শিশুর বর্ণমালা বলা, পড়া ও লেখা থেকে শুরু করে তার ভাবনার বিশাল পৃথিবীকে সৃষ্টি করে দিচ্ছি। এর মতো পরিতৃপ্তি আমার কাছে অন্য কিছু আর নেই। অন্য সকল কাজের স্বীকৃতি পাওয়া দূর্লভই বটে। কিন্তু একজন ছাত্র শিক্ষকের অবদান কখনই ভুলতে পারেন না। তাই অন্য কিছু না হোক অন্তত তাদের দেয়া সম্মানটুকুই আমাদের অনেক পাওয়া। আর এটাই আমাদের স্বীকৃতি।

যে শিশুকে আজ হাতে ধরিয়ে বর্ণ শিখিয়েছি সে নিশ্চয়ই বড় হয়ে কোন একদিন অন্যকে কিংবা তাঁর সন্তানদের দেখিয়ে দিয়ে বলবে উনি আমাকে লিখতে শিখিয়েছেন, উনি আমার শিক্ষক। “এটাই আমার অসামান্য প্রাপ্তি, এটাই শিক্ষক হিসেবে আমার অনেক গৌরবের।”

 

লেখক-মো. মোস্তফা হিরা।

বীরগঞ্জ