বুধবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মোনাভী আল-বাংলাদেশ প্রাইভেট লিঃ এর কর্মকর্তা কর্মচারীদের অর্থ আত্মস্বার্থের বিরুদ্ধে মানববদ্ধন ও মামলা

চন্দন মিত্র, দিনাজপুর।:বাংলাদেশে বেকারত্ব এমনই একটি মারাত্মক ব্যাধি সে ব্যাধির উপশমের জন্য বিন্দু মাত্র কোন নিরাময়ের সন্ধান পেলেই মানুষ জীবন ও জীবিকার তারণায় ভালোভাবে বেঁচে থাকার তাগিদে ছুটে যায়। সেই মহা ব্যাধি থেকে মুক্তি পাবার আশায়। তাদের সর্বস্ব দিয়ে হলেও এই মারাত্মক ব্যাধি থেকে মুক্ত হয়ে পরিবারের ও নিজের আর্থিক স্বচ্ছলতা ফিরেয়ে আনার চেষ্টা করে। কিন্তু কিছু স্বার্থলোভী, কুচক্রী মহল বাংলাদেশের এরকম অসংখ্য পরিবারের সন্তানদের চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে। অথচ এদের কবলে পড়ে সর্বশান্ত ও নিঃশেষ হয়ে যাচ্ছে অসংখ্য পরিবার। যারা টাকা আত্মসাৎ করছে তারা হয়তো বা সুখেই জীবন যাপন করছে। অথচ যারা কষ্ট করে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে, জমি বন্ধক দিয়ে, ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে শুধুমাত্র একটি চাকুরীর আশায় জীবিকার অন্বেশনে কারো কোন সহানুভূতি আর অবিষ্যৎ গড়ার স্বপ্ন দেখালেই ছুটে যায় সেই দ্বারপ্রান্তে বেকারত্বের মতো মারাত্মক ব্যাধির হাত থেকে রক্ষা পেতে। এইসব দুর্বল চিত্তের ও অসহায় মানুষের বিশ্বাস ও সরলতাকে পুঁজি করে কিছু অসাধু চক্র বিশ্বাস ভঙ্গের চেষ্টা করে এবং হাতিয়ে নেয় কোটি কোটি টাকা। আর ঐ সব ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার বিভিষিকার জলন্ত আগুনের ন্যায় জ্বলতে থাকে চিরদিন, বিলাপ করা আর হা-হুতাশ করা ছাড়া আর কিছুই করার থাকে না তাদের। এসব স্বার্থলোভী মহল ভুয়া রেজিষ্ট্রেশন নাম্বার, প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড ব্যবহার করে যারা জনমনের সাথে প্রতারণা করছে তাদের আইনের আওতায় এনে এমন দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে যাতে করে ভবিষ্যতে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান অসহায় নিরীহ মানুষের দুর্বলতাকে পুঁজি করে তাদের ধ্বংস করতে না পারে। এমনই ঘটনা বাংলাদেশে অহরহ ঘটলেও জনগণ কতটুকু এইসব ক্ষতিকর বিষাক্ত ভাইরাসের কবল থেকে মুক্তি পাচ্ছে এমনটি প্রশ্নবৃদ্ধ হয়ে দাড়িয়েছে বিবেকবান সচেতন মহলের কাছে। উপরের ধারাবাহিকতায় একইভাবে মোনাভী আল-বাংলাদেশ প্রাইভেট লিঃ কোম্পানীর কাছে প্রতারিত ও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে অসংখ্য ছেলে-মেয়েরা। দিনাজপুর সদর উপজেলা, বীরগঞ্জ ও ফুলবাড়ী মোনাভী আল- বাংলাদেশ প্রাইভেট লিঃ এর ব্রাঞ্চ ও এলাকার ক্ষতিগ্রস্থরা ১৭ মে দিনাজপুর আদালত চত্তরে এসে মানব বন্ধন ও মানব বন্ধন শেষে ক্ষতিগ্রস্থ ও ভুক্তভোগিরা বাদী হয়ে উক্ত কার্যকলাপের সাথে জড়িত ব্যক্তিদের নামে আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন এবং তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।