শুক্রবার ১৭ অগাস্ট ২০১৮ ২রা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

যুদ্ধদিনের অম্লান স্মৃতিঃ কিশোর বয়সে যুদ্ধ করায় বঙ্গবন্ধু আমাকে গেরিলা বিচ্ছু উপাধি দেন

এমদাদুল হক মিলন ॥ বিচ্ছু ভাই,বিচ্ছু ভাই বাসায় আছেন ? পূর্ব পরিচিত হওয়ায় বাসার ভিতর থেকেই গোলার আওয়াজ শুনে বুঝতে পেরে বরাবরের মতই দরজায় এসে ডায়লগ দিলেন,“মর নাম বিচ্ছু,মর নাই কিছু” মর গড়ত কেন আইছি? (আমার তো  কিছু নাই, আমার কাছে কেন এসেছ) বলেই বাসার ভিতরে বসতে বললেন। আমি বললাম না, বাসায় না, আসেন চায়ের দোকানে চা খেতে খেতে কথা বলি। বুঝে ফেললেন স্বাধীনতার মাস তাই তার স্বাক্ষাৎতকার নিতে এসেছি। চায়ের দোকানে যেতে যেতে বিড় বিড় করে বলতে শুরু করলেন আমার নাম ইব্রাহীম খলিল, কিশোর বয়সে যুদ্ধ করায় আমাকে বঙ্গবন্ধু কলে নিয়ে আদর করে গেরিলা বিচ্ছু উপাধি দিয়েছেন। বলেই অঝরে কাঁদতে শুরু করলেন। কারণ আজ বঙ্গবন্ধু বেঁচে নেই। ৭১ এর পরাজিত শক্তিরা ৭৫ এ তাকে স্ব-পরিবারে হত্যা করেছেন।

 

এরপর কিছু সময় কিংকর্তব্য বিমুড়! তার পর নিরবতা ভেঙ্গে জানতে চাইলাম যুদ্ধে যাওয়ার গল্প। বললেন,  আমার বয়স তখন ১৩ বছর ২ মাস ১৫ দিন। মাঠে গরু চোরানো

খেলাধুলা আর বাদরামি করে বেড়াই আমার কাজ। ডানপিটে হওয়ায় কম বেশী সব জায়গায় সবার কাছে আমার বিচরণ ছিল। এলাকার মুরুব্বিদের কাছে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ ও গণহত্যা,বুলেট বৃদ্ধ শরীর থেকে ফিনকি দেয়া রক্ত দেখে এবং মানুষের আর্তনাদ  সহ্য করতে না পেরে মুক্তি যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ি।

 

এর পর থেমে থেমে যুদ্ধের ময়দানের স্মৃতি চারণ করলেন, ভৌগলিক অবস্থানের কারণে দিনাজপুরের সদর-বিরল উপজেলা সীমান্ত ঘেষা উপজেলা। এখানে  পাকিস্তানিদের দোসর, পাকিন্তানি ইপিআর ও খান সেনারা মিলে সাধারণ মানুষকে নৃশংস ভাবে হত্যা করে । ২৮ মার্চ  বাঙ্গালী ইপিআর বাহীনির সদস্যরা কুঠি বাড়ী থেকে  পালিয়ে গিয়ে কাঞ্চন রেল ব্রীজের পশ্চিম পাশে শ্রীকৃষ্ণপুর গ্রামে গিয়ে চিৎকার করে জানায় পাকিন্তানী ইপিআর বাহীনি ও কিছু নন বেঙ্গলী (বিহারী)  কুঠিবাড়ীতে হামলা করেছে। শুনে সঙ্গে সঙ্গে বাঙ্গালী ইপিআর সদস্য কাঞ্চন ওস্তাদ,আব্দুল হালিম,আনিসুর রহমান ও এলাকার মতাহার মাতব্বরসহ ব্যাপক সাধারণ মানুষসহ প্রতিরোধ গড়ে তুলি এবং   পাকিস্তানিদের পরাজিত করি। সেখান থেকে তারা পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়। পরে কুঠিবাড়ীতে ঢুকে বিভিন্ন  প্রকার অস্ত্র নিয়ে এসে বিরল রঘুপুর হাই স্কুলে অস্থায়ী ক্যাম্প করা হয়। ঐদিন সন্ধ্যায় বাঙ্গালী সেনা সদস্য মোহাম্ম আলী, মকলেছুর রহমান ও আব্দুল জব্বার ওস্তাদ  এসে যোগ দেয়। ২৯ মার্চ তারিখ ফরিদপুর গোরস্থান ধেকে ফুলবাড়ী বাসষ্ট্যান্ড পর্যন্ত এলাকায় ব্যাপক সম্মুখ যুদ্ধ হয় এবং এখানে দুই জন মারা যায়। রাতে পাকিন্তানীসেনারা আটিলারী সেল ছুড়তে শুরু করলে আমরা পিছু হটে কাঞ্চন মোড়ে এসে অবস্থান নেই। ৩০ মার্চ রাতে বিরল হাই স্কুলে ক্যাম্প স্থাপন করা হয়। ততক্ষণে জব্বার ওস্তাদ এলাকার কিছু যুবক নিয়ে ট্রেনিং শুরু করে দেন। ১ লা এপ্রিল বিকাল ৪ টার দিকে আবারো বিরলের দিকে যাই। ১২এপ্রিল জব্বার ওস্তাদ,কাঞ্চন ওস্তাদ ও সদ্য অবসর প্রাপ্ত ইপিআর সদস্য মিঃ জজ ভাইয়ের নেতৃত্বো  আমরা ভারতের দিকে চলে যাই। পরে শিববাড়ীতে জজ ভাইয়ের নেতৃত্বে ক্যাম স্থাপন করা হয়। সাব সেক্টর হামজাপুর ও সেক্টর হেড কোয়াটার তরঙ্গপুর সেক্টর নাম্বার ৭ এর অধীনে সেক্টর কমান্ডার মেজর নুরুজ্জামান ও ক্যাপ্টেন ইদ্রিস ও ক্যাম্প ইনচার্জ  জজ ভাইয়ের নেতৃতে ১ মাস ট্রেনিং গ্রহণ করি। ট্রেনিং চলাকালীন সময় মতাহার মাতব্বরকে তার অভিজ্ঞতার আলোকে বাবর্চির কাছে হামজাপুর ক্যাম্পে পাঠিয়ে দেয়া হয়। আমিও ১ মাসপর হামজাপুর ক্যাম্পে আসি। বিশেষ কাজে তরঙ্গপুর হেট কোয়াটারে যাই। সেখানে অল্প বয়স দেখে ৭ নং সেক্টরের সেক্টর কমান্ডার মেজর নুরুজ্জামান সাহেব আমাকে ডাক দিয়ে জিজ্ঞাসা করেন, তুমি এত অল্প বয়সে যুদ্ধে এসেছো, তোমাকে ভয় লাগেনা? আমি উত্তরে বললাম দেশের জন্য যুদ্ধে এসেছি ভয় কিসের, আমি দেশ স্বাধীন করতে চাই। শুনে তিনি বললেন তুমি রেকির (গুপ্তচোর) কাজ কর। আজ রাত এখানেই থাক। পরের দিন ক্যাপ্টেন ইদ্রিস ও লেফটেন্যান্ট আমিনুল এবং প্রাণ সাগর ইয়ুথ ক্যাম্পের ইনচার্জ ক্যাপ্টন আশরাফ সিদ্দিকি কে আমার কাজ সম্পর্কে বুঝিয়ে দেন। সে আদেশ অনুসারে আমি হামজাপুর ক্যাম্প থেকে আমার উপর অর্পিত দায়ীত্ব পালন করতে শুরু করি। প্রথম চকেরহাট বহলা হয়ে আমার গ্রামের বাড়ী ভগবানপুর এসে দেখি আমার বাড়ীতে খানেরা ক্যাম্প স্থাপন করেছে। ঐ রাতে পাশ্ববর্তী মল্লাপাড়ায় জনৈক মকবুল হোসেনের বাড়ীতে রাত যাপন করি। পরে আমি এক দিন একরাত পর কাঞ্চন নদীর পূর্ব পাশে হামজাপুর ক্যাম্পে ফিরে যাই। সেখানে ক্যাপ্টেন শাহরিয়া সাহেবকে সব বর্ণনা দেই। আমার দেয়া তথ্য অনুয়ায়ী ক্যাপ্টন ইদ্রিস আলী, জব্বার ওস্তাদের নেতৃত্বে একটি টিম প্রেরণ করেন। টিমে আমরা ১৫ জন ছিলাম । এদের মধ্যে সেনা সদস্য মোহাম্মদ আলী,মকলেছুর রহমান গেরিলা রহমান আলীসহ মুক্তিযোদ্ধারা।

 

F 2সেদিন ২৮ অক্টোবর দুপুরে আমরা বিরল উপজেলার চকেরহাটে খান সেনা ও রাজাকারদের ঘেরাও করে ফেলি। সেখানে সম্মুখ যুদ্ধে বাঙ্গারী মুজাহিদ মোঃ আবুল কাশেম, আব্দুল লতিফ, হজতুল্যা মাহমুদ মারা যায়। এদের মধ্যে হজতুল্যা মাহমুদ এবং মতাহার মাতব্বর আমাদের জন্য দুপুরের খাবার নিয়ে আসছিলেন। মতাহার মাতব্বর প্রানে বেঁচে যান। এখানে দুই জন খান সেনাও মারা যায়।

 

এরপর বিরল কাজী পাড়ায় খানসেনা ও রাজাকারদের সাথে মাগরীবের আগে আগে আমাদের সম্মুখ যুদ্ধ হয়। সারারাত সেখানে যুদ্ধ চলে। এখানে আমাদের দু জন মুক্তিযোদ্ধা আহত হয় এবং মাইন বিস্ফোরণ হয়ে একজন সাধারণ মানুষের পা উড়ে যায়। এখানে ৪ জন খানসেনা নিহত হয় । আহত হয় আরো ২ জন।

 

এরপর আমি ৫/৭ দিন খানপুর, সুন্দরা, রামসাগর, সিকদার গোপনে ঘুরে খান সেনাদের অবস্থান সম্পর্কে জেনে সাব সেন্টার শিববাড়ী ইয়ুথ ক্যাম্পে ফিরে গিয়ে মি. জজ ভাইকে সব কিছু জানাই। জজ ভাই তাৎক্ষনিক সাব সেন্টার হামজাপুর ক্যাম্পে ক্যাপ্টেন ইদ্রিস আলীর কাছে পাঠিয়ে দেন। সেখানে এসে সেলুট দিয়ে ক্যাপ্টেন কে সব কিছু অবহীত করি। এর পর আমাকে খিদা লেগেছে জানিয়ে মতাহার মাতব্বরের কাছে খাওয়ার চাইলে তিনি জানান এখন খাবার রেডি হয়নি দেরি হবে। একথা শুনে আমি ক্ষিপ্ত হয়ে মতাহার মাতব্বরকে লাঠি দিয়ে পাছার মধ্য বাড়ি লাগিয়ে দেই। ক্যাপ্টেন সাহেব এ কারণে আমাকে তিন ঘন্টা হ্যাজ ডাউনে রেখে দেয়।

 

রাতে নতুন পুরাতন ইপিআর ও সেনা সদস্যদের নিয়ে পরামর্শ করে আমার দেয়া তথ্য অনুয়ায়ী  পরের দিন রওয়ানা দেই এবং ৭১ এর ১১ নভেম্বর ভোর রাতে সদরের জামালপুরের কাছাকাছি আসতেই খানপুর, রামসাগর এলাকায় শুরু হয় তুমুল যুদ্ধ। আমরা ভারতীয় এক লেঃ কর্নেল ও এক মেজরের সহযোগীতায় ক্রোলিং করে করে সামনের দিকে এগুতে থাকি। আমার ডানপাশ লেফটেন্যান্ট আমিনুল, অন্যপাশে জব্বার ওস্তাদ এবং বাম পাশে মালেক ভাই। এসময় হঠাৎ একটি গুলি এসে জব্বার ওস্তাদের পিঠে লেগে যায়। পরপরই আরেকটি গুলি এসে মালেক ভাইয়ের পায়ে লাগে। এ সময় মোহাম্মদ আলীর সহযোগীতায় তাদেরকে ভারতের কালিয়াগঞ্জে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা দেয়া হয়। এখানে যুদ্ধ চলে ভোর থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত। যুদ্ধে আমাদের দুইজন সাথী মারা যায়। খানসেনা মারা যায় ১২ থেকে ১৩ জন ও ৫ জন রাজাকার মারা যায়।

 

আমরা যখন স্বাধীনতার পথে। মুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। ঠিক তার পূর্ব মুহুর্তে ১৩ ডিসেম্বর ক্যাপ্টেন ইদ্রিসের নেতৃত্বে দিনাজপুর অভিমুখে আসার সময় বিরল উপজেলার বগুলা খাড়িতে দৃুপর আড়াইটার দিকে হটাৎ করে চারদিক থেকে খানসেনারা গুলি ছুড়তে শুরু করে। শুরু হয় সম্মুখ যুদ্ধ। আমরাও পজিসন নিয়ে নেই। এখানে ক্যাপ্টেন ইদ্রিস সহ প্রায় ২০ জন গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয়। এভানে আমাদের সহযোদ্ধা রব্বানী ,সলিমুদ্দিনসহ ৪ জন মারা যায়। খানসেনারা মারা যায়  ১৫ জন। খানসেনারা পিছু হটে বহলা গ্রামে গণ হত্যা চালায়।

 

যেভাবে গেরিলা বিচ্ছু  উপাধিঃ

স্বাধীনতার পর তৎকালীন মন্ত্রী অধ্যাপক ইউসুফ আলী সাহেব আমাকে ঢাকায় ডেকে পাঠান। আমি পরের দিনে ঢাকায় মন্ত্রী পাড়ায় তার বাড়ীতে যাই। তিনি আমাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমারেন কাছে নিয়ে যান। দেখার সৌভাগ্য  হয় বঙ্গবন্ধুর । আমাকে দেখে বঙ্গবন্ধু কলে তুলে নিলেন এবং আমাকে এতো অল্প বয়সে মুক্তিযুদ্ধ করার জন্য গেরিলা বিচ্ছু বলে ভূষিত করেন এবং আমাকে কিছু টাকাও দেন। সেই থেকে আমি এখন সকলের কাছে গেরিলা বিচ্ছু ভাই বলে পরিচিত।

 

তালিকা ভূক্তি হওয়াঃ

স্বাধীনতার পর থেকে অনেক চেষ্টা করেও নিজের নাম তালিকা ভূক্ত করতে পারিনাই। সম্প্রতি সময় সরকার মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাই করার জন্য আবেদন করার সুযোগ দিলে আমি ইন্টারনেটে আবেদন করি। সর্ব শেষ যাচাই বাছাইয়ের পর আমার গ্রামের বাড়ী বিরল উপজেলার ভবানীপুর হওয়ায় বিরল উপজেলায় গত বছর আমার নাম তালিকা ভূক্ত করা হয় ক শ্রেনী ভূক্ত মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে। আমার জামুকা নং ১৭২। তবে মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে এখন কোন সুযোগ সুবিধা পায়নি।

 

বিচ্ছু স্ত্রী ৪ ছেলে নিয়ে থাকেন শহরের চাউলিয়াপট্রি এলাকায়। যে বাড়ীতে থাকেন সে জায়গাটিও তার নিজস্ব নয়। জায়গাটির মালিক দিনাজপুর পৌরসভা। তার বড় ভাই মরহুম আব্বাস আলী পজিশন কিনে দিয়েছেন।