রবিবার ৭ জুন ২০২০ ২৪শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

যুদ্ধাপরাধের প্রমাণ মিললেও গণহত্যা হয়নি

রোহিঙ্গাদের নির্যাতনে যুদ্ধাপরাধের প্রমাণ মিললেও গণহত্যার মতো ঘটনা ঘটেনি বলে দাবি করেছে মিয়ানমার।

সোমবার মিয়ানমারের দ্য ইনডিপেনডেন্ট কমিশন অব এনকোয়ারি বা আইসিওইর প্রকাশিত প্রাথমিক তদন্ত প্রতিবেদনে এমন তথ্য জানিয়েছে।

জাতিসংঘের উচ্চ আদালত গণহত্যার অভিযোগে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে জরুরী পদক্ষেপ নেয়ার ঘোষণা দেয়ার একদিন আগে এই প্রতিবেদন প্রকাশ করল দেশটি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৭ সালের আগস্টে রাখাইনে সেনা অভিযানের সময় বৈশ্বিক বিভিন্ন পক্ষ গণহত্যার অভিযোগ তুললেও বাস্তবে এর আলামত মেলেনি। তবে অভিযানে সম্ভাব্য যুদ্ধাপরাধ ও গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনে ‘যুক্তিসংগত কারণ’ থাকতে পারে বলে মনে করেন কমিশন অব এনকোয়ারি।

তবে গণহত্যার অভিপ্রায়ে দেশটির সেনাবাহিনী ওই নৃশংসতা চালিয়েছিল বলে মনে করে জাতিসংঘ। ওই ঘটনা নিয়ে আন্তর্জাতিক চাপের মুখে ২০১৮ সালে ‘স্বাধীন তদন্ত কমিশন’ গঠন করে মিয়ানমার সরকার। এতে দুজন দেশি ও দুজন আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞকে নিয়োগ দেয়া হয়। যাদের মধ্যে ছিলেন ফিলিপাইনের কূটনীতিক রোজারিও মানালো এবং জাতিসংঘে জাপানের সাবেক রাষ্ট্রদূত কেনজো ওশিমা।

জানা গেছে, দেশটির এমন পরিস্থিতির জন্য সশস্ত্র রোহিঙ্গা গোষ্ঠীকে দায়ী করেছে তদন্ত কমিশন। তাদের মতে, রোহিঙ্গা গোষ্ঠীর ৩০টি পুলিশ পোস্টে হামলার কারণে এ উদ্ভূত পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। এটি একটি অভ্যন্তরীণ সশস্ত্র সহিংসতা বলে তারা মনে করেন।

তদন্ত কমিশন আরো বলেছেন, তদন্তকালে এমন কোনো আলামত মেলেনি যাতে করে বলা যায় যে রাখাইনে মুসলিম কিংবা অন্য জাতিগোষ্ঠীকে নির্মূল করতে ওই অভিযান পরিচালনা করা হয়েছিল।

এরই মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন সরকারের কাছে জমা দেয়া হয়েছে। তবে এটি জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে কি না সে সম্পর্কে বিবৃতিতে কিছু বলা হয়নি।

সূত্র: রয়টার্স

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email