শুক্রবার ৫ জুন ২০২০ ২২শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

যেখানে টাকায় মেলে মেডিকেল সার্টিফিকেট!

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল চিকিৎসাঙ্গনে একটি সুপরিচিত নাম। একইসঙ্গে দেশে ঘটে যাওয়া আলোচিত হত্যার সঠিক ময়নাতদন্তের ভরসাও যেখানে। আর সেখানেই কি না টাকায় মেলে ছুটি, মেডিকেল লিভ কিংবা পুলিশি মামলায় ইনজুরি রিপোর্টের ভুয়া সার্টিফিকেট!

সুনির্দিষ্ট তথ্য ও গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার ঢামেক হাসপাতালের নার্সিং কলেজের ভেতরের গ্যারেজ থেকে জাল জন্ম-মৃত্যু সনদ, নকল সিল ও ইনজুরি সনদ, স্ট্যাম্পসহ মো. আরিফ (৫০) নামে একজনকে আটক করে র‌্যাব।

আরিফ ঢামেক হাসপাতালের ওয়ার্ডবয় হিসেবে কর্মরত বলে জানিয়েছে অভিযান পরিচালনাকারী র‌্যাব-১০। র‌্যাব-১০ এর কর্মকর্তারা বলেন, অল্প সময়ের মধ্যেই অর্থের বিনিময়ে চক্রটি জাল সনদ তৈরি ও সরবরাহ করতো। ঢামেক হাসপাতালের শুধু ওয়ার্ডবয় নয়, এ চক্রে জড়িত আরো অনেকে। তাদের বিরুদ্ধেও আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ অভিযানের নেতৃত্ব দেন র‌্যাব-১০ এর মেজর মো. জাহাঙ্গীর আলম। তিনি বলেন, একটি দালাল চক্রের মাধ্যমে মূলত জালিয়াতি চক্রটির কাছে বিভিন্ন জাল সনদ ও ইনজুরি সার্টিফিকেটের চাহিদা যায়। তারা মোটা অঙ্কের টাকা নেয়ার পর অল্প সময়ের মধ্যেই এসব জাল সনদ সরবরাহ করে।

ঢামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কেউ এ চক্রের সঙ্গে জড়িত কি না? কারণ ইনজুরি সনদসহ মেডিকেল সনদ-সংক্রান্ত যেকোনো ডকুমেন্ট পেতে হলে রেজিস্টার্ড বুক ও সিরিয়াল মেইনটেইন করতে হয়- এমন প্রশ্নে মেজর জাহাঙ্গীর বলেন, ঢামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কেউ জড়িত কি না তা তদন্তের পর জানা যাবে। তবে আটক মো. আরিফ ঢামেক হাসপাতালের ওয়ার্ডবয়। তার সঙ্গে আরো কয়েকজন জড়িত বলে জানা গেছে।

তিনি বলেন, পুলিশের যেকোনো মামলায় প্রতিবেদনের জন্য অনেক ক্ষেত্রে ইনজুরি সনদ দরকার হয়, যা নরমালি একটা অফিসিয়াল সিস্টেমের মধ্যে হাসপাতাল থেকে পেতে হয় এবং তা সময়সাপেক্ষ।

মেজর জাহাঙ্গীর বলেন, মেডিকেল কলেজের মাধ্যমে যেকোনো প্রয়োজনে মেডিকেল সনদ নিতে গেলে সত্যতা থাকতে হয়, সময়ও লাগে। কিন্তু এ চক্রটি কেউ মারধরের শিকার বা ইনজুরি হয়নি, তবু তাদের এসব সনদ সরবরাহ করে আসছে। যার ওপর ভিত্তি করে অনেকে ভুতুড়ে মামলাও দায়ের করছেন। দীর্ঘদিন ধরে চক্রটি এ জালিয়াতি করে আসছে।

তিনি আরো বলেন, প্রাথমিকভাবে এ ব্যাপারে তিনি জবানবন্দি দিয়েছেন এবং সত্যতা শিকার করেছেন। তাদের বিরুদ্ধেও তথ্যপ্রমাণ সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। এরইমধ্যে আটক ব্যক্তির বিরুদ্ধে ঢামেক কর্তৃপক্ষ মামলা করেছে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email