সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

যেভাবে চলছে চিরিরবন্দরে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠির জীবন

মো. রফিকুল ইসলাম : আদিবাসী জনগোষ্ঠী অত্যন্ত শান্ত প্রকৃতির। তাদের জীবনমান সমস্যাসঙ্কুল। সংস্কৃতির বেড়াজালে তারা আবদ্ধ। পরস্পরের প্রতি তারা শ্রদ্ধাবোধ প্রদর্শন করে। মানিয়ে চলতে হয় তাদের সমাজ-সংস্কৃতি ও সাংস্কৃতিক ভাবধারাকে। সবকিছু আঁকড়ে ধরে তারা তাদের জীবনকে অতিবাহিত করে। তাদের রয়েছে পারগানা পরিষদ। যে কোন সামাজিক কাজ করতে তারা বসে যায় বৈঠকে। মাঞ্জিহদের নেতৃত্বে সমস্যার সমাধান করে নেন। প্রতি বছর তারা আদিবাসী সংস্কৃতি মেলা করে থাকে। অনেকে আর্থিক সংকটের জন্য তাদের জীবনযাত্রা স্বাভাবিকভাবে চালাতে পারেন না। তাদের শিক্ষা, সংস্কৃতি, জীবিকানির্বাহ ও জীবনমান উন্নত করতে সরকার বিভিন্ন আয়বর্ধনমূলক কর্মসূচী গ্রহণ করে থাকে। 

চিরিরবন্দর উপজেলায় ১২টি ইউনিয়নের ৫৮টি গ্রামে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠির মধ্যে সাঁওতাল, মুসাহার, তুরী, ভুঁইয়া, ঘাটিয়াল, মুচি মিলে ১৭ হাজার ৫৫৬ জন বসবাস করছে। বর্তমানে তাদের শিক্ষার হার ৩২ শতাংশ। সরকার গত ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে শিক্ষাবৃত্তি সহায়তা ও ভ্যান বিতরণ প্রকল্পের মাধ্যমে ৩৮ লক্ষ টাকা বিতরণ করা হয়। নৃ-তাত্ত্বিক জনগোষ্ঠির আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে সরকার প্রতি অর্থ বছরে আর্থিক সহায়তা দিয়ে থাকে। আদিবাসী জনগোষ্ঠীর নিজস্ব উদ্যোগে সঞ্চয়ীদল গঠন করে মুষ্ঠির চাল সংগ্রহ করে। তা জমা রাখে মাঞ্জিহর বাড়িতে। যা ধর্মগোলা নামে পরিচিত।

নৃ-তাত্ত্বিক জনগোষ্ঠির আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় গত ১৫ আগষ্ঠ বৃহস্পতিবার অথর্ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আবুল হাসান মাহমুদ আলী এমপি ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের শিক্ষার জন্য শিক্ষাবৃত্তি ও কৃষিকাজে সহায়তার জন্য পাওয়ার টিলার প্রদান করেছেন।