রবিবার ৩১ মে ২০২০ ১৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

রংপুরে ট্রাকের কেবিনে গার্মেন্টস কর্মীর মরদেহ

রংপুর প্রতিনিধি : রংপুর মহানগরীর ক্যাডেট কলেজের সামনে একটি ট্রাকের কেবিনে এক নারীর মৃতদেহ পাওয়া গেছে। মাহমুদা আক্তার মৌসুমী নামের ওই নারী ঢাকায় গার্মেন্টসে কাজ করতেন। তার বাড়ি লালমনিরহাটের পাটগ্রামের আমবাড়ি এলাকায়।

মৃতের পিতার অভিযোগ, ধর্ষণের পর তার মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে। তবে ট্রাক চালক ও হেলপার মারা যাওয়ার কারণ বলতে পারছেন না।

এদিকে পুলিশ বলছে, ময়নাতদন্তের পরই মৃত্যুর কারণ জানা যাবে। ঘটনাটি জানার পর সন্ধ্যা থেকেই পুলিশ সেখানে পাহারা বসিয়েছে এবং ড্রাইভার ও হেলপারকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

তাজহাট থানার ওসি রোকনউদ্দিন এবং ট্রাক চালক আজিজুল ইসলাম ও হেলপার রতন জানান, শফিকুল ইসলাম নামের এক চালকের ফোন কলে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে এগারোটায় টঙ্গীর হারিকেন এলাকা থেকে মাহমুদা আক্তার মৌসুমী নামের ওই গার্মেন্টস কর্মীকে ট্রাকে উঠায় তারা। এরপর তাকে নিয়ে ঢাকায় গিয়ে ট্রাকে গরুর মশারি ভর্তি করে রংপুরের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। পথিমধ্যে আব্দুল্লাহপুরে এসে ওই ট্রাকে ওঠে আজিজুলের ভাতিজা বদি মিয়া। চান্দরা পার হওয়ার পর ভাতিজা বদি জানায় যে, মেয়েটি মারা গেছে।

শুক্রবার সকালে রংপুর ক্যাডেট কলেজের সামনে এসে ট্রাকটি দাঁড় করায় চালক। তারা বিষয়টি পুলিশকে না জানিয়ে লালমনিরহাটে থাকা তার পিতা মোস্তফাকে জানায়। তার পিতা রংপুরে এসে মেয়েকে দেখে জানায় যে, তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। পরে লাশ না নিয়েই ফিরে যান তিনি।

ওই ট্রাকটিতে খাদ্য পরিবহন এর সাইনবোর্ড থাকলেও সেখানে গরুর মশারি নিয়ে আসা হয়েছিল যা নগরীর স্টেশন রোডের খান বেডিংয়ে নামিয়ে দেয়ার কথা। মৃত গার্মেন্টস কর্মী মৌসুমির গ্রামের বাড়ির এলাকাতেই ট্রাকের চালক, হেলপার, চালকের ভাতিজা ও শফিকুল ইসলামের বাড়ি।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email