বৃহস্পতিবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

রাজনীতিতে শিষ্ঠাচার থাকতে হবে : কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, রাজনীতিতে শিষ্ঠাচার থাকতে হবে। জুনিয়র নেতাকর্মীরা সিনিয়রদেরকে সম্মান শ্রদ্ধা করবে। সিনিয়ররা জুনিয়রদেরকে স্নেহ ভালবাসা দেবে-এটাই দরকার। আজ বুধবার চট্টগ্রামের কালামিয়া বাজারস্থ একটি কমিউনিটি সেন্টারে আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতিমন্ডলীর সদস্য আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবুর ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ যৌথ ভাবে এই স্মরণ সভার আয়োজন করে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ত্যাগী ও নিবেদিত। কিন্ত সামান্য কারণে তারা একে অপরের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়ে যাচ্ছে। সামান্য কারণে নিজেদের মধ্যে সংঘর্ষে জড়ানো উচিত নয়। এতে আমাদের প্রয়াত নেতাদের আত্মা কষ্ট পায়।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোসলেম উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, মরহুম আকতারুজ্জামান বাবুর পুত্র ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাভেদ, শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, আওয়ামী লীগের উপ প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, উপ-দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ সালাম, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনার অ্যাকশন শুরু হয়ে গেছে। যারা কলহপ্রিয়, দুর্নীতিবাজ, ভূমিদস্যু, অপকর্মকারী তাদের অপকর্মের দায় দল নেবে না। খারাপ লোকের জন্য দলের ভাবমূর্তি বিনষ্ট হলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।
তিনি বলেন, একটা খারাপ কাজ অনেকগুলো ভাল কাজকে ম্লান করে দেয়। অপকর্মকারীদের বিরুদ্ধে শেখ হাসিনার শুদ্ধি অভিযান চলমান রয়েছে। পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে।

আখতারুজ্জামান বাবুর স্মৃতি চারণ করে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী বলেন, বাবু ভাই শুধু ব্যবসা করলে দেশের এক নাম্বার ব্যবসায়ী হতে পারতেন। কিন্তু রাজনীতিকে টাকা তৈরীর মেশিন ভাবেননি তিনি। রাজনীতিকে তিনি পণ্য মনে করেননি। অনেকে রাজনীতিকে কেনা-বেচার পণ্য মনে করেন। বাবু ভাই সেটা করেননি। তিনি জনগণের পাশে ছিলেন।
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি তার ভালোবাসার প্রমাণ আমরা পেয়েছি। বাবু ভাইয়ের মৃত্যুর পর চট্টগ্রাম শোকের দরিয়া হয়ে গিয়েছিল। তিনি মানুষকে ভালোবেসে যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন, মানুষ তার মৃত্যুপরও তাকে ভালোবেসে তার ভালোবাসার প্রতিদান দিচ্ছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনাকে তিনি জীবনের শেষদিন পর্যন্ত সব ধরনের সহযোগিতা দিয়ে গেছেন। চট্টগ্রামে মহিউদ্দিন চৌধুরী যখন মেয়র নির্বাচন করেন, তখন প্রচন্ড রৌদের মধ্যে লিফলেট নিয়ে ঘরে ঘরে, দোকানে দোকানে ক্যাম্পেইন করেছেন তিনি। আজকে আমরা পোস্টার লাগাতে, লিফলেট বিতরণ করতে লজ্জাবোধ করি। কিন্তু বাবু ভাইয়ের সেই অহংবোধ ছিল না, অহমিকা ছিল না।