সোমবার ২২ অক্টোবর ২০১৮ ৭ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

রায়ের প্রতিবাদে ঢিলেঢালা কর্মসূচিতে ক্ষুব্ধ তারেক পন্থীরা

বর্বরোচিত ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার অন্যতম হোতা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানের যাবজ্জীবন সাজা ঘোষণা করেন আদালত। বুধবার সকালে ঢাকার এক নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন আলোচিত ওই ঘটনায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনের দুই মামলায় এই রায় ঘোষণা করেন। রায়কে প্রত্যাখ্যান করে তাৎক্ষণিকভাবে কঠোর কর্মসূচির বদলে ঢিলেঢালা কর্মসূচি পালন করায় ক্ষুব্ধ তারেকপন্থী নেতারা।

লন্ডন বিএনপির এক নেতা জানায়, খালেদাপন্থী বিএনপি নেতাদের চক্রান্তেই কঠোর কর্মসূচি দিতে পারছে না তারেকপন্থী নেতারা। বিএনপিকে কলুষিত করা এবং তারেককে দল থেকে হটাতে কৌশলে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা দেওয়া হয়নি দলের পক্ষ থেকে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির সিনিয়র এক নেতা বলেন, তারেক এরই মধ্যে গ্রেনেড হামলার মামলায় দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। এর পূর্বেও অর্থ পাচার এবং দুর্নীতির মামলায় তার সাজা হয়েছে। তারেকের কারণে বিএনপির ইমেজ নষ্ট হচ্ছে। এদিকে নেত্রী অসুস্থ হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তারেক বিদেশে আরাম-আয়েসে জীবনযাপন করছেন। তারেক রহমানের চেয়ে খালেদা জিয়ার মুক্তি আমাদের কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। সুতরাং এখন বিশৃঙ্খলার ঘোষণা দিয়ে বিএনপির কর্মীদের মাঠে নামানোর প্রয়োজন দেখছে না বিএনপির অধিকাংশ নেতা। বরং খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনে তৃণমূল বিএনপির নেতা-কর্মীদের মাঠে নামাটা বেশি জরুরি। বিএনপি বলতে মানুষ খালেদা জিয়াকে চেনে।

রায়কে কেন্দ্র করে সিনিয়র নেতারা কোন প্রকার কর্মসূচি না দেওয়ায় হতাশ হয়ে পড়েছেন রিজভীসহ তারেকপন্থী নেতারা। লন্ডনে পলাতক থাকায় তারেক রহমানকে বিএনপির জন্য গৌণ বিবেচনা করায় সিনিয়র নেতাদের প্রতি ক্ষুব্ধ হয়ে পড়েছেন রিজভীসহ তারেক পন্থী নেতাকর্মীরা। শেষ পর্যন্ত উপায়ান্ত না দেখে রিজভী সিনিয়র নেতাদের বিভক্তিমূলক আচরণে বিস্মিত হয়ে দেশব্যাপী ঢিলেঢালা কর্মসূচির অংশ হিসেবে হাস্যকর ৭ দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করে।

তারেকের যাবজ্জীবন রায়ের বিরুদ্ধে ঢিলেঢালা কর্মসূচির কারণে তারেকপন্থী অন্য নেতারা ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে।