বৃহস্পতিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

রুদ্ধশ্বাস অভিযানে থাইল্যান্ডের গুহায় আটক সবাই উদ্ধার

থাইল্যান্ডের একটি গুহায় গত ২৩ জুন থেকে আটকে থাকা ১২ জন কিশোর ফুটবলার ও তাদের কোচকে উদ্ধার করা হয়েছে। এরই মধ্যদিয়ে বিশ্ববাসীর সকল উৎকণ্ঠার অবসান ঘটিয়ে তিনদিনের রুদ্ধশ্বাস অভিযানের সফল পরিসমাপ্তি হয়েছে।

মঙ্গলবার স্থানীয় সময় বিকালে ১৩ জন বিদেশী ডুবুরি এবং থাইল্যান্ডের রাজকীয় নেভির পাঁচজন সিল সদস্য সফলভাবে এই অভিযান শেষ করেছেন।

থাই নেভি সিলের ফেসবুক পেজে অভিযানের শেষ দিন দেয়া এক পোস্টে বলা হয়, উইল্ড বোরের নবম সদস্যকে বিকেল ৪টা ৬ মিনিটে গুহা থেকে বাইরে আনা হয়েছে।

এর কিছুক্ষণ পর দশম কিশোরকে উদ্ধার করা হয়। পরে ৫টা ৮ মিনিটে উদ্ধারকারীরা ১১তম কিশোরকে সঙ্গে নিয়ে গুহা থেকে বের হন। তারপর বেরিয়ে আসে ১২তম কিশোর এবং সর্বশেষ বেরিয়ে আসেন তাদের কোচ।

উল্লেখ্য, গত ২৩ জুন ১২ কিশোর ফুটবলার ও তাদের কোচ বেড়াতে গিয়ে উত্তরাঞ্চলীয় চিয়াং রাই এলাকার থাম লুয়াং নং নন গুহায় আটকা পড়ে। কিশোরদের বয়স ১১ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে। গুহাটি প্রায় ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ। এটি থাইল্যান্ডের দীর্ঘতম গুহার একটি।

এখানে যাত্রাপথের দিক খুঁজে পাওয়া কঠিন। ভারী বর্ষণ আর কাদায় থাম লুয়াংয়ের প্রবেশ মুখ বন্ধ হয়ে গেলে তারা আটকা পড়ে। নিখোঁজের পর গুহার পাশে তাদের সাইকেল এবং খেলার সামগ্রী পড়ে থাকতে দেখা যায়।

নিখোঁজের নয়দিন পর ২ জুলাই দুইজন বৃটিশ ডুবুরি চিয়াং রাই এলাকার থাম লুয়াং নং নন গুহায় তাদের জীবিত সন্ধান পান। পরে থাইল্যান্ড নৌ বাহিনী গুহায় আটকা পড়া কিশোরদের ভিডিও ফেসবুকে পোস্ট করেন। ডুবুরিরা তাদের টর্চলাইটের আলো ফেলে ১৩ জনকেই দেখতে পায়। সে সময় তারা খুব ক্ষুধার্ত ছিল।

রবিবার (৮ জুলাই) চারজন এবং সোমবার (৯ জুলাই) চালানো অভিযানে মোট আটজনকে গুহা থেকে উদ্ধার করা হয়। আর মঙ্গলবার (১০ জুলাই) বাকি পাঁচজনকে উদ্ধারের মধ্যদিয়ে শেষ হয় এই অভিযান।

বিবিসি জানায়, প্রায় চার কিলোমিটার দীর্ঘ ও আঁকাবাঁকা সুড়ঙ্গের ভেতর দিয়ে শিশুদের বাইরে আনার জন্য ডুবুরিরা নানা ধরনের যন্ত্রপাতি ব্যবহার করেছেন। প্রতিটি শিশুর সঙ্গে দুজন করে ডুবুরি ছিল।

এক সংবাদ সম্মেলনে দেশটির একজন এক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বলেন, হাসপাতালে ভর্তি হওয়া আট কিশোর শারীরিক এবং মানসিকভাবে ভালো আছে। প্রাথমিক পরীক্ষায় ধারণা করা হয়েছিল উদ্ধার হওয়া কিশোররা ফুসফুসের সংক্রমণে ভুগছে।

তিনি বলেন, শুধুমাত্র দুজনের এ ধরনের সমস্যার বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া গেছে। মেডিকেল টিম ধারণা করছে, তারা সম্ভবত নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাদের পূর্ণাঙ্গ রক্ত পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া যাবে।

কাঁচের গ্লাসের কাছে দাঁড়িয়ে বাবা-মায়েরা তাদের সন্তানদের দেখতে পারছেন। কিন্তু সরাসরি বাহ্যিকভাবে কিশোরদের কাছে যেতে পারবেন না তারা। কারণ এই মুহূর্তে তাদের কাছে গেলে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন চিকিৎসকরা।

উদ্ধার হওয়া কিশোররা এখন নরম খাবার খেতে পারছে। তবে তাদের এখন ঝাল বা ভারী কোনো খাবার দেয়া হচ্ছে না। শিশুরা অনেকেই থাই ফ্রাইড রাইস খেতে চেয়েছে। কিন্তু তাদের শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে এখন এসব খাবার দেয়া হচ্ছে না।

এদিকে, মঙ্গলবার ফিফা সভাপতি জিয়ান্নি ইনফান্টিনো জানিয়েছেন, আগামী রবিবার (১৫ জুলাই) মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠেয় রাশিয়া ফুটবল বিশ্বকাপের ফাইনালে দলটির কোচসহ মোট ১৩ জনের জন্য বরাদ্দ রাখা হবে ১৩টি আসন। যদিও শারীরিকভাবে দুর্বল থাকার কারণে কেউই সেই ম্যাচ দেখতে যেতে পারছে না।

তবে ওই ১৩ জন বিশ্বকাপ ফাইনাল মাঠে বসে দেখতে না পারলেও তারা যতটা না মিস করবেন, তার থেকে লুঝনিকি স্টেডিয়ামই তাদেরকে বেশি মিস করবে তা বলাই যায়।