শনিবার ২৫ মে ২০১৯ ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

রেনু পোনা চাষ করে লেবু মন্ডল প্রতিষ্ঠিত মালিক

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : যে বয়সে চাকুরীর জন্য এদিক-সেদিক ঘুরে বেরার কথা, ঠিক সেই সময় বেকারত্ব ঘুচাতেই রাজারহাটের হামিদুল ইসলা ওরফে লেবু মন্ডল (৩৫) নামের এক যুবক চাকুরীর আশা না করেই ব্যতিক্রমী উদ্যোগ পোনা মাছের চাষ করে আজ স্বাবলম্বী হয়েছে। আজ তাঁরই অধীনে ২শতাধিক মানুষ কাজ করে জীবন নির্বাহ করছে।
সফল মাছ ব্যবসী হামিদুল ইসলাম ওরফে লেবু মন্ডল বলেন, এসএসসি পরীক্ষার পর ১৯৯৮ সালে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক রাজারহাট শাখা থেকে মাছের পোনা চাষ করার জন্য মাত্র ১৫ হাজার ঋণ নেয়। তাই দিয়ে রেণু পোনা মাছের চাষ শুরু করেন তিনি। সফলতার সঙ্গে এসএসসিসে প্রথম বিভাগসহ বিএ পাস করে চাকুরী না খুঁজে পুরোপুরি রেনু মাছের পোনা ব্যবসায় ঝুঁকে পড়েন। এরপর তাকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। রাজারহাট উপজেলার সদর ইউপির বোতলার পাড় গ্রামের বাসিন্দা সমাজ সেবক মরহুম আলহাজ¦ আহাম্মদ আলী মন্ডলের ৪র্থ পুত্র হামিদুল ইসলাম লেবু মন্ডল লেবু। ১৯৯৮সালের এসএসসি পরীক্ষার পর মাত্র ৩ হাজার টাকা দিয়ে অন্যের একটি ছোট পুকুর লিজ নিয়ে রেণু মাছের পোনা চাষ শুরু করে। এখন শুধু তিনি রাজারহাট উপজেলা নয়, গোটা কুড়িগ্রাম জেলার সর্বত্র সফল গুণগত মানের পোনা মাছের ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। বর্তমান তিনি পৈতৃক ও নিজসহ প্রায় ১৭ একর জমির মালিক। ৩৫বছর বয়সী এ যুবক সফল ব্যবসায়ী জীবনে ইতোমধ্যে প্রায় কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন। তাঁর ৮টি পুকুরে এলাকার ২’শ জন শ্রমিক সারা বছরেই কাজ করে তাদের পরিবার-পরিজন জীবিকা নির্বাহ করে। রেনু পোনার পুকুর থেকে তাঁর সপ্তাহে ৩দিনে লক্ষাধিক টাকার রেনু পোনা মাছ বিক্রি হয়। তিনি আরো বলেন, প্রথম ব্যবসা শুরু থেকে আমার সাধনা ছিল সৎ ভাবে ব্যবসা করা। আল্লাহ্ তায়ালা আমাকে সে ভাবে তৌফিক দিয়েছে। তাই বাকী জিবনেও আমি সততার সাথে ব্যবসা চালিয়ে যাব। নিজের ব্যবসায়ী অর্থ উর্পাজনের মধ্যে দিয়ে ৬একর জমি সহ বসতবাড়ী তৈরির পাশাপাশি ব্যবসায় কোটি টাকা বিনিয়োগ করছি। পাশাপাশি গুণগতমানের পোনা মাছ চাষে কোয়ালিটি সম্পূর্ণ খাবার পরিবেশনে তিনি বদ্ধ পরিকর। এ ছাড়া তিনি এলাকার বেকার যুবকসহ দুর-দুরান্ত থেকে যুবকদের মাছ চাষে উদ্বুদ্ধ করে পরামর্শ প্রদান করেন। এ বিষয়ে ১৫ মে বুধবার রাজারহাট উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ আঃ রহমান বলেন, লেবু মন্ডল একজন সৎ ও নিষ্ঠাবান মৎস ব্যবসায়ী হওয়ায় তাঁর ব্যবসায় সফলতা পেয়েছে। তিনি ২০১৫সালে জেলায় এবং ২০১৪সালে উপজেলা পর্যায়ে সফল মৎস ব্যবসায়ী হিসেবে তাকে পুরষ্কৃত করা হয়।