শনিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

লংকানদের বিপক্ষে টাইগারদের সম্ভাব্য একাদশ

আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা পরেই সংযুক্ত আরব আমিরাতে এশিয়া কাপ ক্রিকেটের পর্দা উঠবে। উদ্বোধনী ম্যাচে শ্রীলংকার বিপক্ষে মাঠে নামবে শিরোপা প্রত্যাশী বাংলাদেশ।

শনিবার বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৫টায় দুবাইতে খেলাটি শুরু হবে। বিটিভি ও গাজী টিভি ছাড়াও বাংলাদেশের সমর্থকরা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ইউটিউবে র‍্যাবিটহোল চ্যানেলে ম্যাচটি সরাসরি দেখতে পারবেন।

বাংলাদেশ এবং শ্রীলংকা দুই দলই টুর্নামেন্ট শুরুর আগে ইনজুরি নিয়ে দুশ্চিন্তার ভেতর রয়েছে। যদিও সময় যত ঘনিয়ে আসছে, ততই স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছে বাংলাদেশ। ঠিক উল্টো চিত্র শ্রীলংকান শিবিরে। ইনজুরি তাদের শিরোপা জয়ের আশায় বড় এক ধাক্কাই দিয়ে ফেলেছে।

চলতি বছরের শুরুতে ঘরের মাঠে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে আঙুলের ইনজুরিতে পড়েন সাকিব। যত সময় গড়িয়েছে, ততই তা গুরুতর আকার ধারণ করে। ইনজুরি নিয়েই সাকিব খেলেছেন আইপিএল এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ। ব্যথানাশক ইনজেকশন নিয়ে খেলে যাওয়া সাকিবের এখন অপারেশনের বিকল্প নেই।

কথা উঠেছিল এশিয়া কাপে আদৌ তিনি খেলবেন কিনা তা নিয়ে। যদিও অনেক নাটকীয় ঘটনার ধুম্রজাল কাটিয়ে তিনি দলে আছেন এবং আগামীকাল প্রথম ম্যাচে ইনজুরি নিয়েই খেলছেন তা নিশ্চিত হওয়া গেছে।

এশিয়া কাপের প্রস্তুতি ক্যাম্পে আঙুলে চোট পেয়ে টাইগার শিবিরে আতঙ্কের কালো মেঘ ছড়িয়ে দেন দেশসেরা ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল। পুরোপুরি ফিট না হলেও তিনি মাঠে নামছেন সেটাও নিশ্চিত।

যদিও পুরোপুরি ফিট না থাকা সাকিব-তামিম কতটা অবদান রাখতে পারবেন, তা নিয়ে খানিক শঙ্কা থাকলেও তাদের উপস্থিতি যে দলকে চাঙ্গা রাখবে এ কথা সবারই জানা।

১৯৮৬ সাল থেকে মোট ৪৪টি একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে এই দুই দল। সেখানে ৩৬টি ম্যাচেই জিতেছে শ্রীলংকা। বাংলাদেশ জিতেছে ৬টিতে আর দুটি ম্যাচ বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয়।

তবে বদলে যাওয়া বাংলাদেশের কাছে এই পরিসংখ্যান এখন শুধুই অতীত। বর্তমান বাস্তবতায় বাংলাদেশ ওয়ানডেতে শ্রীলংকার তুলনায় শক্তিমত্তা আর র‍্যাংকিং দুই দিক থেকেই এগিয়ে।

বাংলাদেশ দলের স্পটলাইটে থাকবেন যথারীতি মি. অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ওয়ানডেতে শ্রীলংকাকে প্রতিপক্ষ হিসেবে পেলে তিনি রীতিমতো ঝলসে ওঠেন। এখন পর্যন্ত লংকানদের পাঁচটি ওয়ানডেতে হারিয়েছে বাংলাদেশ, যার মধ্যে চারটি ম্যাচে খেলেছেন সাকিব এবং সবকটিতেই করেছেন ফিফটি।

৪ ম্যাচে ৪ ইনিংসে শ্রীলংকার বিপক্ষে সাকিব মোট ২৮৭ রান করেছেন ৯৫.৬৬ গড়ে ও ১১৫.২৬ স্ট্রাইক রেটে। বল হাতে ৪ ম্যাচে ৪ ইনিংসে ২৬.৬৬ গড়ে ও ৫ ইকোনমিতে উইকেট নিয়েছেন ৬টি। ম্যাচ সেরা হয়েছেন তিনবার।

তবে স্পটলাইটটা আর যে কারোর মতো কেড়ে নিতে পারেন তামিম। আঙুলের চোটের পর ভিসা জটিলতায় দেরিতে দুবাই পৌঁছানো তামিম বর্তমানে অসাধারণ ফর্মে রয়েছেন তামিম।

গত এক বছরে এশিয়ার অন্যতম সেরা ওয়ানডে ব্যাটসম্যান তিনি। এই সময়কালে ৯টি ম্যাচ খেলে করেছেন ৮০.২৮ গড়ে ৫৬২ রান। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে শেষ সিরিজেও দারুণ খেলেন তামিম। সাম্প্রতিক ফর্ম এশিয়া কাপে ধরে রাখতে পারলে বিপক্ষের কাছে বড়সড় মাথাব্যথার কারণ হয়ে উঠবেন তামিম ।

শ্রীলংকা ইনজুরির কারণে আগেই হারিয়েছে নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান দীনেশ চান্দিমালকে। বাবা হতে যাওয়া আকিলা ধনঞ্জয়কে গ্রুপ ম্যাচে পাচ্ছে না হাথুরুসিংহের দল। মড়ার ওপর খাড়ার ঘা হয়েছে উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান দানুশকা গুনাথিলাকার কোমরের ইনজুরিতে এশিয়া কাপ থেকে ছিটকে পড়া। অর্থাৎ ইনজুরির কারণে হলেও ম্যাচের আগে কিছুটা হলেও ড্রাইভিং সিটে বাংলাদেশ।

তবে ২০১৪ সালের এশিয়া কাপ বিজয়ী শ্রীলংকা তারপরেও অনেক আত্মবিশ্বাসী। এর অন্যতম কারণ হতে পারে গুরু চণ্ডিকা হাথুরুসিংহে টাইগারদের সাবেক কোচ হওয়ায় তাদের প্রতিপক্ষের ব্যাপারে অনেক অভিজ্ঞ। কোচের অভিজ্ঞতা মাঠে অবশ্যই কাজে লাগাতে চাইবে তারা।

লংকান ব্যাটসম্যান ধনঞ্জয়া ডি সিলভা নিজের দলকে এগিয়ে রেখে বলেছেন, টাইগারদের সাবেক কোচ ছিলেন চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। উনি এখন আমাদের কোচ। উনার কাছ থেকে প্রতিপক্ষ সম্পর্কে সব ধারণা পাবো। তাদের শক্তি-দুর্বলতার জায়গাগুলো জানতে পারবো।

তবে হাথুরুসিংহে এখন প্রতিপক্ষ দলের কোচ হলেও তাতে তামিমের যায় আসছে না। তিনি সাফ বলেছেন, প্রতিটি দলের একটি বা দুটি প্রতিদ্বন্দ্বি থাকতে হবে। আমি মনে করি না আমাদের মধ্যে নিদাহাস ট্রফির ঘটনাটি মনে আছে এবং ইতিহাসের প্রেক্ষাপটে উভয় দলই জানে যে ১৫ সেপ্টেম্বরের খেলাটি কতটা গুরুত্বপূর্ণ টুর্নামেন্টে টিকে থাকার জন্য।

যদিও কয়েকদিন আগে নিদাহাস ট্রফির সুখস্মৃতি মনে করিয়ে দিয়ে মাহামুদুল্লাহ রিয়াদ বলেছেন, সেই টুর্নামেন্ট আমাদের আত্মবিশ্বাসী রাখবে।

বাংলাদেশের একাদশে সাতজন ক্রিকেটার নিশ্চিতভাবেই খেলছেন। তামিমের সাথে ওপেনিংয়ে খেলবেন লিটন। ৯ ওয়ানডে খেলা লিটনের গড় মাত্র ১৫.৫০ হলেও সর্বশেষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে তার ব্যাটে দ্রুতগতির রান তোলা টিম ম্যানেজমেন্টকে আত্মবিশ্বাস যোগাচ্ছে তিনি নিজের জাত চেনাবেন।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফতে তিন নম্বরে সফল সাকিব এই পজিশনেই থাকছেন। তারপর চার এবং পাঁচে মুশফিক ও রিয়াদ। ছয় এবং সাত নম্বর পজিশনে আরিফুল হক, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও মোহাম্মদ মিথুনের মধ্যে যেকোনো দুইজন দলে থাকবেন। তবে জোরালো সম্ভাবনা ছয়ে সৈকতের এবং সাতে মিথুনের খেলার।

অধিনায়ক মাশরাফির সঙ্গে পেস আক্রমণে থাকছেন রুবেল হোসেন এবং মুস্তাফিজুর রহমান। স্পিনার হিসেবে মেহেদী হাসান মিরাজ নাকি নাজমুল ইসলাম অপু খেলবেন সেটাই দেখার বিষয়। যেহেতু লংকান ব্যাটিং লাইনআপের টপ অর্ডারে বামহাতি ব্যাটসম্যানদের আধিক্য, তাই মিরাজের খেলা প্রায় নিশ্চিত বলাই যায়।

বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ: তামিম ইকবাল, লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহামুদুল্লাহ রিয়াদ, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মোহাম্মদ মিথুন, মেহেদী হাসান মিরাজ, মাশরাফি বিন মুর্তজা, রুবেল হোসেন, মুস্তাফিজুর রহমান।