বুধবার ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ ৫ই পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

লালমনিরহাটে বিলুপ্তির পথে গরুর হাল

লালমনিরহাট প্রতিনিধি ॥ লাল সবুজের বাংলাদেশে এক সময়ে ভোর হলেই গ্রামাঞ্চলের কৃষকেরা জোড়া গরুর দড়ি হাতে ও লাঙ্গল-জোয়াল কাঁধে নিয়ে জমিতে হাল চাষের জন্য বেরিয়ে পড়তেন। বর্তমানে বিজ্ঞানের অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ও নতুন নতুন যন্ত্র আবিষ্কারের ফলে কৃষকদের জীবনেও এসেছে নানা পরিবর্তন বদলে গেছে তাদের জীবন-যাত্রার মান। আর এই পরিবর্তনের ছোঁয়া লেগেছে লালমনিরহাটের গোটা জেলায়। এখন আর কৃষকদের কাঁধে লাঙ্গল-জোয়াল ও জোড়া গরুর দড়ি হাতে নিয়ে মাঠে যেতে দেখা যায় না। কৃষি জমিতে চোখ গেলেই দেখা যায় বিজ্ঞানের অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ও নতুন নতুন যন্ত্র দিয়ে চাষাবাদ করার।
আমাদের দেশ কৃষি প্রধান দেশ। কৃষি প্রধান বাংলাদেশের হাজার বছরের ইতিহাসের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে গ্রামবাংলার ঐতিহ্য গরু দিয়ে হাল চাষ। চিরায়ত বাংলার রূপের সন্ধান করতে গেলে এসব কৃষি উপকরণের কথা এখন যেন গল্পের রূপে দু-চোখে ভেসে আসে আমাদের সামনে। বর্তমান আধুনিকতার সঙ্গে সঙ্গে চাষের পরিবর্তনে এখন ট্রাক্টর, পাওয়ার টিলার দিয়ে চলছে জমি চাষের কাজ।
লালমনিরহাটের বিভিন্ন উপজেলায় বাণিজ্যিকভাবে কৃষকেরা গবাদিপশু পালন করতেন হাল চাষের জন্য। আবার কিছু মানুষ নিজের জমিজমা না থাকলেও পেশা হিসেবে গরু দিয়ে হালচাষ করতেন কৃষকরা। বিঘাপ্রতি চুক্তি করে অন্যের জমি চাষাবাদ করে নিজের পরিবারের ভরণ-পোষণ করতেন তারা। কিন্তু বর্তমানে আর চোখে পড়ে না সেই লাঙ্গল দিয়ে হাল চাষ।
হাতীবান্ধা উপজেলার দক্ষিণ গড্ডিমারী গ্রামের কৃষক হামিদুর রহমান জানান, গরু দিয়ে জমি চাষ করাই আমার পেশা তবে দেশ ডিজিটাল হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে কৃষকরাও এখন ডিজিটাল হয়ে গেছেন। তারা এখন আর গরার হাল দিয়ে জমি চাষাবাদ করেন না। বিজ্ঞানের অত্যাধুনিক কৃষি প্রযুক্তির উপরই এখন তাদের নজর। ছোট বেলায় বাবার সাথে হাল চাষের কাজ করতাম। বাড়িতে হাল চাষের বলদ থাকত ২-৩ জোড়া। চাষের জন্য দরকার হতো ১ জোড়া বলদ, কাঠের সঙ্গে লোহার ফলা লাগিয়ে হতো লাঙ্গল আর কাঠ দিয়ে জোয়াল, বাঁশ দিয়ে মই ইত্যাদি তৈরি করা হতো হাল চাষের জন্য।
তিনি আরো জানান, গরু দিয়ে হাল চাষের অনেক উপকারিতা ছিল। লাঙ্গলের ফলা মাটির অনেক গভীরে যায় তাই জমির মাটি ভালো আলগা ও নরম হয়, ধান চাষের জন্য কাদাও অনেক ভালো হয়। গরু দিয়ে হাল চাষ করলে জমিতে ঘাসও কম হয়। হাল চাষের সময় গরুর গোবর জমিতে পড়ত, যা জমিতে প্রাকৃতিক জৈব সার তৈরি করত। এতে জমিতে রাসায়নিক সারের ব্যবহার অনেক কম হতো, বাড়তি সার ব্যবহার না করলেও হতো। আর ফলনও ভালো হতো। এভাবে লাঙ্গল দিয়ে প্রতিদিন জমি চাষ করা সম্ভব হতো প্রায় ৪৪ শতাংশ। কিন্তু বর্তমানে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ফলে জমি চাষ করার পদ্ধতি এখন বদলে গেছে, নতুন নতুন মেশিনের সাহায্যে কৃষকরা কম সময়ে ও কম খরচে জমি চাষাবাদ করছেন। তাই কালের বিবর্তনে এখন হারিয়ে যেতে বসেছে গরু দিয়ে আগের সেই হাল চাষ।
সরেজমিনে দেখা যায়, প্রয়োজন হলেই স্বল্প সময়ের মধ্যেই এখন ট্রাক্টর, পাওয়ার টিলারসহ আধুনিক সব যন্ত্রপাতি দিয়ে চলছে জমি চাষাবাদের কাজ। সেই সঙ্গে কৃষকেরা এখন গবাদিপশু পালন না করে অন্য পেশায় ঝুঁকছেন তারা। এতে আবহমান গ্রামবাংলার ঐতিহ্য লাঙ্গল দিয়ে হালচাষ প্রায় বিলুপ্তির পথে। কৃষিতে দেখা যাচ্ছে ব্যাপক পরিবর্তন। চলছে বিজ্ঞানের অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার।
লালমনিরহাট কৃষি অধিদফতরের উপ-পরিচালক বিধু ভূষণ রায় জানান, বর্তমানে কৃষিতে এসেছে আমুল পরিবর্তন। কৃষি কাজেও এসেছে বিজ্ঞানের অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার। বাংলাদেশ এখন ডিজিটাল দেশে পরিনত হয়েছে। যে কৃষি জমিতে বছরে দুখন্দের আবাদ করা হতো সেই জমিতে এখন তিন খন্দেও আবাদ করা হয়। সময়ের প্রয়োজনে মানুষ এখন লাঙ্গল দিয়ে হাল চাষের পরিবর্তে ট্রাক্টর, পাওয়ার টিলার দিয়ে জমি চাষ করছে। এখন আর আগের সেই গরু দিয়ে হাল চাষ চোখে পড়ে না।