সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

লাল সাদা শাপলা পদ্ম ফুলের রূপসী আশুড়ার বিল

প্রকৃতির মাঝেই প্রশান্তি। সেই প্রকৃতির অপার সৌন্দর্যে ভরপুর আমাদের বিরামপুর। অত্র উপজেলায় যতগুলো বিনোদনের জন্য পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত তার মধ্যে আশুড়ার বিল অন্যতম। উপজেলার ৩নং খানপুর ইউনিয়নে ধানজুড়ি মিশনের পূর্ব পার্শ্বেই বিশাল এই আশুড়ার বিলের অবস্থান। বিলের বিশুদ্ধ পানি, মুক্ত বাতাস, চারপাশে সবুজ ঘনঅরণ্য, পাখিদের কিচিরমিচির ডাকাডাকি, বিলের উপর ঝাঁকেঝাঁকে বিচিত্র পাখির উড়াউড়ি এসব মনোমুগ্ধকর দৃশ্য যেকোন প্রকৃতিপ্রেমীর অন্তরে অন্যরকম এক শিহরণ জাগিয়ে তুলবে। বন জুড়ে শাখা-প্রশাখায় বেরিয়ে যাওয়া বিশাল এই আশুড়ার বিল।

দীর্ঘ প্রায় ৫ কিলোমিটার আয়তনের এই বিলটিকে নদীর মতো দেখা গেলেও স্থানীয়দের দৃষ্টিতে উৎপত্তি নিয়ে বিচিত্র কাহিনীর এ বিলটির ৮০টি ডারা বা নালা চারিদিকে ছড়িয়ে থাকার কারনে নামকরণ হিসেবে এটি আশুড়ার বিল নামে পরিচিত। সৌন্দর্যে ভরা এই আশুড়ার বিল নিয়ে রয়েছে আরো নানান পৌরাণিক কাহিনী।

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ঘেরা বিশাল আয়তনের বিলটি একসময় দখলদারেরা অনেকাংশ অবৈধ্য ভোগদখল করে সৌন্দর্য নষ্ট করে। তাদের হাত থেকে রক্ষার্থে নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মশিউর রহমান ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ নিজেই কাদাপানিতে নেমে সাঁতার কেটে প্রায় সাড়ে ৩ ঘন্টা অভিযানে অবৈধ স্হাপনা ও বিলটি সৌন্দর্য ফিরে আনতে কচুরিপানা পরিষ্কার করেন।

৮ টি মুখ নিয়ে ঐতিহাসিক এই বিলটি যদিওবা বেশী অংশ নবাবগঞ্জ উপজেলার সীমানায় তবে কিছু অংশ বিরামপুরে পড়েছে। প্রায় ৬০০ একর বা ৩৬০ হেক্টর জুড়ে এই বিলের ২৫১ হেক্টর নবাবগঞ্জ অংশ এবং ১০৯ হেক্টর বিরামপুর উপজেলার সীমানায়। এ বিল পারাপারের বাঁশের সাঁকো লালঘাট, পীরদহ ঘাট ও আরো কিছু ঘাট বিরামপুরে অপরদিকে পাতিলদহ, বুড়িদহ, পীরদহ, মুনির আইল, কাজলাদহ, পালাদহ, মুনির থান এরকম আরো কিছু প্রান্ত নবাবগঞ্জের
সীমানায়।

বিশাল এই বিলের গভীরতা যেমন তার উপর চারপাশে ঘন শালবনে বেষ্টিত হওয়ায় দেখতে অপূর্ব। এছাড়াও আষাঢ়- শ্রাবনের দিনে লাল, সাদা শাপলা ফুল বিলের স্বপ্নীল রূপ আরো ফুটিয়ে তোলে যা পর্যটকদের আশুড়ার বিলের অসাধারন নৈসর্গিক দৃশ্য দেখে চোখ জুড়িয়ে যায়। এছাড়াও শীতকালে পরিযায়ী অতিথি পাখিদেরও আগমনে মুখরিত হয় বিলের পরিবেশ।

বিলটির পূর্বে নবাবগঞ্জ উপজেলার সীমানায় ৫১৭.৬১ হেক্টর বা ১২৭৮.৪৯ একর বনাঞ্চলকে ২০০৮ সালে জাতীয় উদ্যান হিসেবে ঘোষণা হলেও বরাদ্দ না দেওয়ায় তেমন কোনো উন্নয়ন হয়নি। এই বনে শাল ছাড়াও সেগুন, গামার, কড়ই, বেত, বাঁশ, জামসহ প্রায় ২০ থেকে ৩০ প্রজাতির গাছগাছড়া রয়েছে।

২৪ অক্টোবর ২০১০ সালে সরকারি গেজেট প্রকাশিত হয় যা বর্তমান নামকরণ হিসেবে নবাবগঞ্জ শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যান। এই উদ্যানেই রয়েছে বাল্মিকী মনির থান এবং ঐতিহাসিক প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন সীতার কোট বৌদ্ধবিহার যা নিয়ে ‘সীতার বনবাস’ কিংবদন্তি রয়েছে।

উত্তরবঙ্গের অন্যতম পর্যটন স্থান হিসেবে গড়ে তুলতে বিলের সৌন্দর্যবর্ধায়নে ও আধুনিকায়নে নবাবগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে নানামুখী উদ্যোগ। যেমন- বিলজুড়ে পদ্ম-শাপলা ফুলের বংশ বিস্তারে ফুলের চারারোপণ, বিলের ধারে ধারে কৃষ্ণচূড়াসহ হাজার হাজার নানান বাহারি প্রজাতির ফুলের চারা লাগানো। সবুজ শালবনের পাশ দিয়ে লাগানো কৃষ্ণচূড়ার চারা বড় হয়ে যখন ফুল ফুটবে, তখন লাল-সবুজের মিলেমিশে এ স্থানটি অপরূপ ‘লালসবুজের বাংলাদেশ’ একথাই স্মরণ করিয়ে দেবে।

এছাড়াও গাছে গাছে পাখিদের অভয়াশ্রমের জন্য মাটির হাঁড়ি ঝুলানো হয়েছে সুন্দর আবাসস্থলের ব্যবস্থাকরণ হিসেবে। কালের বিবর্তনে এই বিল তার ঐতিহ্য হারিয়েছিল। তবে উপজেলা প্রশাসন বিলটিকে সংস্কার করে সৌন্দর্য ফিরিয়ে আনছে। ইউএনও মশিউর রহমানের উদ্যোগে জাতীয় উদ্যানকে সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তোলার জন্য ও আশুড়ার বিলের পরিচর্যায় বর্ষা মৌসুমে বিলটি হয়ে উঠছে আরও অপরূপ। বিলের উভয়পাড়ে পর্যটকদের বসার অসংখ্য বাঁশ- কাঠের টং, বিশেষ করে মুনিরথান ঘাট এলাকায় রোদ-বৃষ্টিতে বসার জন্য সিমেন্টের গোলঘর ও হেলানদেয়া শানেরবেঞ্চ বসানো হয়েছে।

সারাবছর পর্যটকদের সুবিধার্থে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, দিনাজপুর এর পক্ষ থেকে উন্নতমানের ল্যাট্রিন, বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থাসহ বিদ্যুৎ সংযোগের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

বিলটির গুরুত্ব তুলে ধরতে নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মশিউর রহমান নেন একের পর এক উদ্যোগ এবং এমপি শিবলী সাদিকের সহযোগিতায় বিলটিকে কেন্দ্র করে তৈরি করা হয়েছে নান্দনিক আঁকাবাঁকা একটি কাঠের সেতু। সেতুটি নির্মাণ থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক প্রচারে মুগ্ধ হয়েছে দেশের পর্যটকরা আর আকর্ষণটি তখন থেকেই।

নবাবগঞ্জ এলাকায় মুনির থান ঘাট থেকে দক্ষিণ-পশ্চিমে ১২ লাখ টাকা খরচ করে ভ্রমনপিপাসু পর্যটকদের সুবিধার্থে সম্পূর্ণ শাল কাঠ দিয়ে উত্তরবঙ্গের সর্ববৃহৎ ৯০০ মিটার ইংরেজি বর্ণ জেড আকৃতির সেই দৃষ্টিনন্দন আঁকাবাঁকা কাঠের সেতুটি ২ মাস ধরে নির্মান করা হয় এবং নামকরণ করা হয় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব কাঠের সেতু এবং ১ জুন ২০১৯ সালে শুভ উদ্বোধন করেন এমপি শিবলী সাদিক ও জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলম। এই কাঠের সেতুর পশ্চিমে খটখটিয়া কৃষ্ণপুর ও পূর্বে নবাবগঞ্জ এলাকা। সেতুটি পর্যটকদের যেমন আকর্ষণ করছে, তেমনি বিলের দুই পাড়ের মানুষের যাতায়াতে নতুন দিগন্তের দুয়ার খুলে দিয়েছে। পূর্বে হরিপুর বাজার ও পশ্চিমে রতনপুর বাজারে কেনাকাটা করতে সেতুর উপর দিয়ে যোগাযোগের সুবিধার্থে এলাকাবাসী ব্যাপক খুশি।

এখানে ভ্রমনে আসলে দৃষ্টিনন্দন এই সেতুর মন্ত্রমুগ্ধ সৌন্দর্য যেকোন পর্যটককে আকর্ষন কাড়ে বহুগুণ। সবুজ বনের মাঝে দীর্ঘাকার বিলে পরিষ্কার চকচকে স্বচ্ছ জলের ঢেউয়ে সারিসারি নৌকার চলা। লাল সাদা পদ্ম-শাপলার রূপসী আকর্ষন। পাশের বন থেকে ভেসে আসা বিচিত্র পাখির সুমধুর গুনগুনানি। বিলে নানান প্রজাতির পাখির উড়াউড়ি এসব কিছুই এখানকার সৌন্দর্য আরও চমৎকারভাবে বাড়িয়ে তুলেছে।

একইসঙ্গে বিল ও বনের অপরূপ সৌন্দর্য মুগ্ধকর পরিবেশে কাঠের সেতুটি যেন বন ও বিলকে একই সুতোয় গেঁথেছে। তাই এই জায়গার প্রতি সম্প্রতি ভ্রমণপ্রেমীদের আগ্রহ বেড়েছে। কাঠের সেতু উদ্বোধনের পর থেকেই এখানকার অপার সৌন্দর্য উপভোগ করতে দিনদিন প্রতিদিন শতশত মানুষের আগমন ঘটছে এখানে। বিশেষ করে ছুটির দিন শুক্রবার বৈকাল বেলা অসংখ্য দর্শনার্থীর পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে এই সেতু ও বিল। বনের ছাঁয়াঘেরা সবুজ মনোরম নির্মল পরিবেশে ও বিলের পানিতে নৌকায় চড়ে বিলের একপ্রান্ত থেকে আর একপ্রান্ত ঘুরে বেড়ান সেই ভ্রমণপিপাসুরা।

৫ জুন ২০১৯ ঈদুল ফিতরের অবকাশের সময় প্রকৃতি প্রেমীদের বাড়তি আকর্ষণ হিসেবে নবনির্মিত কাঠের সেতুর পাড়ে বসে ৩ দিন ব্যাপী মেলা। দূর-দূরান্ত হতে বিভিন্ন জেলা- উপজেলা হতে হাজার হাজার উৎসুখ দর্শনার্থীর পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে ঐতিহাসিক শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যানে মেলা ও ঐতিহাসিক আশুড়ার বিলের উপরে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব কাঠের সেতু।

নৌকাভ্রমন ও বিলের পাড়ে মেলায় অসংখ্য দোকানপাট, চটপটি, ফুসকা, আইসক্রিম, নাগরদোলা, শিশুখেলনা, রঙিন বেলুন ও মনিহারির দোকান এসবকিছুই পর্যটকদের ঈদ অবকাশে জোগায় বাড়তি আনন্দ। মোটরসাইকেল, অটো-ইজিবাইক, মাইক্রোবাস, ভ্যান রিক্সা যোগে বনের ভেতর দিয়ে স্রোতের মত আসে দর্শনার্থীরা।

প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আর মনমাতানো নান্দনিক আঁকাবাঁকা কাঠের সেতু সত্যিকার অর্থে সব মিলিয়ে পর্যটকরা এখানে বারবার আসতে চাইবেন।

প্রাকৃতিক নয়নলোভা এই আশুড়ার বিল যতটা আকর্ষন সৃষ্টি করে তেমনি স্থানীরা অনেকেই বেঁচে থাকার তাগিদে পরিবারের জীবিকা নির্বাহের উৎস এ বিলেই, কৃষকরা বোরো ধান রোপণ করে অধিক পরিমানে ফসল ঘরে তোলে এ বিল থেকেই। এ বিলে লাল খলসেসহ বিলুপ্তপ্রায় ৮ প্রজাতির মাছ ধরা পড়ে। তাছাড়াও আইড়, শোল, গজাড়, টেংরা, বাইম, মাগুর, পুঁটি, চিংড়ি, কইসহ মৌসুমে আরো কিছু বিচিত্র প্রজাতির প্রায় ১২০ মেট্রিক টন মাছ পাওয়া যায়। তবে অত্যন্ত সুস্বাদের জন্য এ বিলে বোয়াল- পাবদা বিখ্যাত।

বিলে সারাবছর পানি ধারণের জন্য নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মশিউর রহমানের উদ্যোগ ও পরিকল্পনায় ২২ জুন ২০১৯ ক্রস ড্যাম নির্মাণ প্রকল্পের উদ্বোধন করেছেন সাংসদ শিবলী সাদিক। যা শুষ্ক মৌসুমেও পানি কমবে না। এই ড্যাম নিমার্ণের ফলে আশুড়ার বিলে সারা বছর পানি থাকবে। এতে জীববৈচিত্র্য রক্ষা পাবে, মাছ থাকবে প্রচুর। লাল সাদা শাপলায় বিল ভরে যাবে ও হাজার হাজার পর্যটক আসবে সারাদেশ থেকে। অনেক মানুষের কর্মসংস্থান হবে ও পরিবর্তন হবে এই এলাকার মানুষের ভাগ্যের বলে আশা করছে উপজেলা প্রশাসন কর্তৃপক্ষ।

উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তাদের মতে, ঐতিহাসিক আশুড়ার বিলে মৎস্যসম্পদের অপার সম্ভাবনা রয়েছে। বিপন্ন প্রজাতির মাছ সংরক্ষণ ও প্রজনন ক্ষেত্র হিসেবে বিলটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।

ভ্রমণপ্রেমীদের দৈনিক নির্বিঘ্নে চলাচলের জন্য থানা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। বর্তমানে রাতে আশুড়ার বিলের উপর দৃষ্টিনন্দন শেখ ফজিলাতুন্নেছা কাঠের সেতুতে আলোকসজ্জার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

বিরামপুর থেকে ইজিবাইক, ভ্যান-রিক্সা যোগে সহজেই যাওয়া যায় এই দর্শনীয় স্থানটিতে। বিরামপুর অংশের পীরদহ ঘাট, লালঘাট সহ বিলের আরো কিছু এলাকা দেখতে ঢাকামোড় থেকে জয়নগর অথবা চরকাই গ্রাম হয়ে রতনপুর তারপর ধানজুড়ি-নেটাশন ও দিঘলচাঁদের পূর্বপাশেই আশুড়ার বিল পৌছানো যাবে।

বিলে নবাবগঞ্জ সীমানায় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব আঁকাবাঁকা নান্দনিক কাঠের সেতু দেখতে সীতার কোট- ফতেপুর মাড়াষ হয়ে বনের ভেতর দিয়ে উত্তরদিকে অথবা শগুনখোলা গ্রামের আদর্শ ক্লাব হয়ে বনের ভেতর দিয়ে উত্তরদিকে মুনির থান ঘাট সংলগ্ন কাঠের সেতু পৌছানো যাবে।