রবিবার ১৭ জানুয়ারী ২০২১ ৩রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শহর থেকে মাদক এখন গ্রামে

মোঃ আব্দুল আজিজ, হিলি প্রতিনিধি ॥ শহর থেকে মাদক এখন গ্রামগুলোতে ছড়িয়ে পরেছে। গ্রামের যুবক থেকে শুরু করে প্রায় সব বয়সের মানুষ এখন এই মাদকের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে পরেছে। দিনাজপুর জেলার সর্ব দক্ষিনে অবস্থিত হাকিমপুর (হিলি) উপজেলা। একটি পৌর সভা এবং তিনটি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত এই ছোট উপজেলাটি। সীমান্তের খুবই কাছে অবস্থিত ১নং খট্রামাধবপাড়া ও ২নং বোয়ালদাড় ইউনিয়ন এবং ১০ কিলোমিটার দূরে ৩নং আলীহাট ইউনিয়ন অবস্থিত।

হাকিমপুর উপজেলার ১নং খট্রামাধবপাড়া ইউনিয়নে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, পরিত্যাক্ত জায়গাগুলোতে বেশ কিছু ফেনসিডিলের খালি বোতল পরে আছে। বিভিন্ন পরিতাক্ত জায়গাতে যুবকরা বসে ফেনসিডিল, ইয়াবাসহ গাঁজা সেবন করছে। সাংবাদিকের উপস্থিতি টের পেয়ে সেবনকারীরা পালিয়ে যায়।

কথা হয় ১নং খট্রামাধবপাড়ার স্থানীয়দের সাথে। তারা ক্যামেরার সামনে কথা বলতে রাজি না হলেও জানান, আগের থেকে এখন তাদের এলাকাতে মাদক ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশেষ করে যুবকরা এই মাদকের সাথে জড়িয়ে পরেছে। সন্ধ্যার পর থেকে ডাঙ্গাপাড়া রেলস্টেশনের উপরে বিশেষ করে মাদকসেবীরা ভিড় করেন। রাত ভর চলে তাদের আড্ডা।

১নং খট্রামাধবপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোখলেছার রহমান জানান, তার ইউনিয়নটি ভারত সীমান্তের সংলগ্ন। যে কেউ গোপনে ব্যবসা করতে পারে। তবে আমরা সব সময় মাদকের বিষয়ে জিরো টলারেস্ট ঘোষনা করেছি। ইউনিয়নে আগের থেকে মাদক ব্যবসায়ী এমনকি মাদক সেবনকারী কমে গেছে। গ্রাম পুলিশের মাধ্যমে সব সময় তদারকি করা হয়। রেলস্টেশনে মাদক সেবনের বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন দুই একজন মাদক সেবন করতে পারে, তাদের বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। 

তিনি আরও জানান, ভারত সীমান্তের পাশে অবিস্থিত হাড়িপুকুর, ঘাসুরিয়া, কাটলা বাজার এলাকায় এখন বেশি মাদক কেনাবেচা এবং সেবন হয়ে থাকে। এই সব এলাকা দিয়ে এখন মাদক পাচার হয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে চলে যায়।

উপজেলার ২নং বোয়ালদাড় ইউনিয়নে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পরিত্যাক্ত জায়গাগুলোতে বেশ কিছু ফেনসিডিলের খালি বোতল পরে আছে। কথা হয় বেশ কিছু এলাকার লোকজনের সাথে। তারা জানান, তাদের এলাকাতে মাদকের ছড়াছড়ি। বিশেষ করে স্কুল কলেজের ছাত্ররা এই মাদকের সাথে সম্পৃক্ত। তারা বিশেষ করে ইয়াবা, ফেনসিডিলসহ যৌন উত্তেজক সিরাপ সেবন করে। সন্ধ্যার পর থেকে ইউনিয়ন পরিষদের বাড়ান্দায় এবং গ্রামের বেশ কিছু পরিত্যাক্ত জায়গাতে ও আমানুল্লা খানের পরিত্যাক্ত ভেড়ার খামারে তারা মাদক সেবন করেন। এছাড়াও তারা জানান, বোয়ালদাড় ইউনিয়নের পাশে নবাবগঞ্জ উপজেলা। সেই উপজেলার পুটিমারা ইউনিয়নের শান্তির মোড় নামক স্থানে রাতভর চলে মাদক কেনাবেচা। নবাবগঞ্জ থানার শেষ সীমানা হওয়ার কারনে সেখানে মাদক ব্যবসায়ী এবং সেবনকারীরা অতি সহজেই তাদের কাজকর্ম চালিয়ে যেতে পারে।

২নং বোয়ালদাড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মেফতাহুল জান্নাত জানান, উপরোক্ত কথা উড়িয়ে দিয়ে বলেন তার ইউনিয়নে আগের থেকে এখন মাদক অনেকটাই নিয়ন্ত্রনে রয়েছে। ইউনিয়নের পক্ষ থেকে সব সময় মনিটরিং করা হয় এবং মাঝে মাঝে থানা পুলিশ গিয়েও টহল দিয়ে থাকে। ইউনিয়ন পরিষদে রাতের বেলা মাদকের আসর বসে এই কথাটি তিনি অস্বীকার করেন।

এদিকে সীমান্ত থেকে ১০ কিলোমিটার আলীহাট ইউনিয়নে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় একই চিত্র। পরিত্যাক্ত জায়গাতে রয়েছে বিভিন্ন প্রকার মাদকের খালি বোতল। দেখা মিলে কিছু সেবনের দৃশ্য। কথা হয় স্থানীয় বাসীন্দার সাথে। তারা জানান, তাদের ইউনিয়নের প্রায় কিছু কিছু গ্রামে মাদক কম বেশি পাওয়া যায়। তবে জাংগই এবং ইটাই বাওনা নামক গ্রামে বেশি মাদক বিক্রি হয়। কারা মাদক সেবন করেন এমন প্রশ্নের জবাবে তারা আরও জানান, এলাকার কিছু যুবক, ছাত্ররা মাদক সেবন করে। এছাড়াও গাইবান্ধা এবং পলাশবাড়ি থেকে কিছু যুবক প্রতিদিন মাদক সেবন করার জন্য আসে। তারা হিলিতে আসলে পুলিশের বাধায় পরতে পারেন এমন ভয়ে গ্রামগুলোতে এসে সেবন করে চলে যায়।

৩নং আলীহাট ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম মন্ডল জানান, তিনি দায়িত্ব পাবার পর থেকে মাদক নির্মুলে কাজ করছেন। কেউ যদি গোপনে ব্যবসা করেন তবে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। জাংগই এবং ইটাই বাওনা গ্রামের বিষয়টি তিনি জানতেন না। সেই বিষয়ে তিনি পুলিশের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।

এদিকে হাকিমপুর (হিলি) পৌর এলাকার হিলি সীমান্তের বিভিন্নস্থানে করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও মাদকদ্রব্য কেনা-বেচা চলছে। বলতে গেলে প্রকাশ্যেই হচ্ছে এসব অপরাধমুলক কর্মকান্ড। মাদক নির্মূলে পুলিশ, বিজিবি বা স্থানীয় প্রশাসনের কোন উদ্যোগ নেই। একারণে মাদক কারবারীরা হিলি সীমান্ত দিয়ে মাদক পাচার করে এনে বীরদর্পে তাদের মাদকদ্রব্যের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার হিলি চেকপোস্ট থেকে হিলি সিপি বিজিবি ক্যাম্পের প্রধান ফটকের দুরত্ব মাত্র ৩’শ মিটার। আরও এই দুরত্বের মাঝখানে অবস্থিত বালুরচর বস্তি। আবার প্রায় ২’শ মিটার পশ্চিমে ভারত সীমান্ত। এখানকার বালুরচর বস্তিটি এখন সবার কাছে মাদকের ঘাঁটি হিসেবেই বেশ পরিচিত। করোনার মধ্যেও পুরোদমে চলছে এখানে মাদক কেনা-বেচা আর সেবনের আড্ডা-আসর। এসব মাদক প্রবণ এলাকার মাদক নির্মূলে পুলিশ, বিজিবি বা স্থানীয় প্রশাসনের কোন উদ্যোগ নেই। গত এক বছরে কোন সংস্থা কোন অভিযানও চালায়নি। অভিযোগ রয়েছে, অল্প বয়সের ছেলে-মেয়েদের দিয়েও তাদের পরিবারের লোকজনেরা এসব কাজে সম্পৃক্ত করা হচ্ছে।

স্থানীয়দের ভাষ্য মতে, এখানে যেসব মাদক পাওয়া যায় তার মধ্যে, ফেন্সিডিল, ইয়াবা, হেরোইন, প্যাথেডিন ইনজেকশন সহ বিভিন্ন ধরণের মাদক। প্রতিদিনই হিলি সীমান্ত দিয়ে ভারত থেকে লাখ লাখ টাকার মাদকদ্রব্য পাচার হয়ে দেশে আসছে। এর একটি অংশ বালুরচর বস্তি সহ ওইসব এলাকায় ঢুকে পড়ছে। বস্তিটি শুধু মাদকের নিরাপদ ঘাঁটি নয়, এখানে অসামাজিক কার্যকলাপ সহ বিভিন্ন অপরাধও সংঘঠিত হচ্ছে। এছাড়া চুড়িপট্টি, মাঠপাড়া, বাওনা, নওপাড়া, সাতকুড়ি, নয়ানগর ও ডাঙ্গাপাড়া বাজার এলাকায় দিনে ও রাতে সমানে চলে মাদক বেচা-কেনা ও আসর। মাদক ব্যবসায়ী, মাদক সেবী ও অপরাধীদের কাছে এসব এলাকা নিরাপদ আশ্রয়স্থল।

হাকিমপুর সার্কেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী পুলিশ সুপার মিথুন সরকার জানান, মাদকের কোন ছাড় নেই, মাদক নির্মূলে আমরা প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছি। বালুচর বস্তি সমন্ধে প্রশ্ন করলে তিনি সেই বিষয়ে কিছু জানেন না বলে ফোন কেটে দেন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email