শনিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২০ ৯ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শহীদ আসাদ দিবস আজ

আজ ২০ জানুয়ারি সোমবার, শহীদ আসাদ দিবস। ১৯৬৯ সালের আজকের এই দিনে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে পাকিস্তানি স্বৈরশাসন বিরোধী বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশের গুলিতে নিহত হন আমানুল্লাহ মোহাম্মদ আসাদ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের ছাত্র নরসিংদীর এই সূর্য সন্তানের শোষণমুক্ত গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠাই ছিল রাজনৈতিক দর্শন। ঐতিহাসিক এই দিবসকে ঘিরে নরসিংদীতে বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছে।

১৯৪২ সালের ১০ জুন নরসিংদী জেলার মনোহরদী উপজেলার হাতিরদিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন আমানুল্লাহ মোহাম্মদ আসাদ। তার পৈতৃক নিবাস নরসিংদীর শিবপুরের ধানুয়া গ্রামে। ১৯৬৯ সালের ২০ জানুয়ারি তৎকালীন স্বৈরশাসক আইয়ুব খানের নির্দেশে পুলিশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে স্বৈরশাসনবিরোধী বিক্ষোভ মিছিলে গুলি চালালে শহীদ হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র আসাদ।

আসাদের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে হাজার হাজার ছাত্র-জনতা ঢাকা মেডিকেলে ছুটে আসেন। আসাদ হত্যার প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বের হওয়া মিছিলে যোগ দেন অসংখ্য সাধারণ মানুষ। আসাদ হত্যার প্রতিবাদে পূর্ব পাকিস্তান কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম কমিটি তিন দিনের শোক পালন শেষে ২৪ জানুয়ারি হরতালের ডাক দেয়। সেই দিনের মিছিলে আবারও পুলিশ গুলি চালালে শুরু হওয়া গণআন্দোলনে স্বৈরশাসক আইয়ুব খান পদত্যাগ করতে বাধ্য হন। বিক্ষুব্ধ জনতা আইয়ুব খানের নামে বিভিন্ন স্থাপনা ভেঙে আসাদের নাম জুড়ে দেয়।

গণঅভুত্থানের নায়ক আসাদকে স্মরণীয় করে রাখতে তার জন্মভূমি নরসিংদীর শিবপুরে প্রতিষ্ঠা করা হয় সরকারি শহীদ আসাদ কলেজ, শহীদ আসাদ কলেজিয়েট গার্লস হাইস্কুল, শহীদ আসাদ সড়কসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। প্রতি বছর শিবপুরের ধানুয়া গ্রামে শহীদ আসাদের সমাধিস্থলে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

শিবপুর শহীদ আসাদ কলেজিয়েট গার্লস হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ আবুল হারিছ রিকাবদার বলেন, ‘ঊনসত্তরের গণআন্দোলনের সূত্র ধরেই ১৯৭১ এর স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরু এবং বিজয় অর্জিত হয়। কিন্তু পাঠ্যপুস্তকে প্রকৃত ইতিহাস তুলে ধরার ব্যর্থতার কারণেই নতুন প্রজন্ম ঊনসত্তরের গণ অভ্যুত্থানের মহানায়ক শহীদ আসাদের ইতিহাস জানতে পারছে না।’

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email