রবিবার ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শাখা নদীতে গোসলে নেমে নিখোঁজ শিক্ষার্থীর খোঁজ মেলেনি দুই দিনেও

মাহাবুর রহমান, বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের হাকিমপুর উপজেলার ঘাসুড়িয়া সীমান্ত এলাকায় শাখা যমুনা নদীতে বন্ধুদের সঙ্গে গোসলে নেমে তীব্র স্রোতে নদীতে তলিয়ে যাওয়া মারুফ আহমেদ মুন্না (১৮) এর লাশ দুই দিন পেরিয়ে গেলেও এখন খোঁজ মেলেনি।

এদিকে কলেজ ছাত্র মারুফ আহমেদ মুন্নার লাশের সন্ধানে এখনও তার পরিবারের লোকজন শাখা যমুনা নদীর কিনারসহ সম্ভাব্য স্থানে খোঁজ করে যাচ্ছে।

নিখোঁজ মারুফ আহমেদ মুন্না (১৮) উপজেলার নন্দীপুর গ্রামের মতিয়ার রহমানের ছেলে। সে রংপুর আইডিয়াল ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি’র ইলেক্ট্রিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১ম বর্ষের ছাত্র।

মুন্নার চাচা মোস্তাক আহম্মেদ জানান, শুক্রবার সকাল সাড়ে এগারোটায় ঘাসুড়িয়া সীমান্তের ২৮৮/৮এস পিলার এর ২০ গজ পশ্চিমে ভারতের অভ্যান্তরে শাখা যমুনা নদীতে সহপাঠী ও স্থানীয় বন্ধুদের সাথে গোসল করতে গিয়ে তীব্র স্রোতে তলিয়ে যায় মুন্না।

ওই দিন দুপুরে পরিবারের লোকজন বিজিবি ও রংপুর ফায়ার সার্ভিস এ- সিকিউর’র ডুবুরী দলকে সংবাদ দিলে তারা বিকেল ৩টা থেকে সন্ধা সোয়া ৬টা পর্যন্ত ওই নদীতে উদ্ধার অভিযান চালিয়েও মুন্নাকে উদ্ধার করতে পারেনি।

উদ্ধার অভিযানে অংশনেয়া এক ডুবুরি বলেন,নদীর পানি এখন কানায় কানায় ভরা এবং নদীতে তীব্র স্রোত থাকায়  সম্ভবত তার লাশ দূরে ভাসিয়ে গিয়ে থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মুন্নার বন্ধু ইভান জানায়, সকাল সাড়ে এগারোটায় ১১ জন বন্ধু মিলে নদীতে গোসল করতে নামি। পরে, আমরা সবাই সাঁতার কেটে নদীর পূর্বপাড় থেকে পশ্চিম পাড়ে যেতে নদীর মাঝখানে গিয়ে মুন্না সাঁতারের শক্তি হারিয়ে ফেলে। সে তখন চিৎকার দিলে তাকে উদ্ধার করতে গিয়ে আমিও নদীতে ডুবে গেলে আমার নাকে-মুখে পানি ঢুকলে আমিও শক্তি হারিয়ে ফেলি। পরে, মুন্না নদীর তীব্র স্রোতের মধ্যে তলিয়ে যায়। বন্ধুরা সবাই অনেক খোঁজাখুঁজি করে তাকে না পেয়ে তার বাবা-মাকে খবর দেই’।

হাকিমপুর থানার (ওসি) মো.আনোয়ার হোসেন মুঠোফোনে শনিবার বিকেলে জানান, নদীতে ডুবিয়ে যাওয়া যুবকের লাশের এখনো কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। তবে পরিবারের সাথে আমাদের যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে।