শুক্রবার ৬ ডিসেম্বর ২০১৯ ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শারীরিক প্রতিবন্ধীর দরিদ্রতা জয়

বীরগঞ্জ, দিনাজপুর থেকে বিকাশ ঘোষ॥ অভাব-অনটনের সংসারে বড় হওয়া শারীরিক প্রতিবন্ধী আবদুল আলম নিজের মনোবল আর ইচ্ছাশক্তি দিয়ে দরিদ্রতা জয় করে স্বাবলম্বী হয়েছেন। নিজের শারীরিক অক্ষমতা থাকলেও কারও বোঝা না হয়ে চারকল ব্যবসা করেই স্বাবলম্বী হয়েছেন।
স্বাবলম্বী হয়ে তিনি আজ বীরগঞ্জের চাকাই গ্রামে ১০ শতক জমি কিনেছেন এবং ৫ শতকের ওপর বিল্ডিং বাড়ি করে ৩ ছেলেসহ ৫ জনের সংসার চালিয়ে যাচ্ছেন। এখন তার মাসিক আয় ১২ থেকে ১৪ হাজার টাকা। তিনি এখন অনেকের অনুকরণীয় হয়েছেন।
বীরগঞ্জের মৃত এলাহাক আলীর ছেলে শারীরিক প্রতিবন্ধী আবদুল আলম (৪৮) ৩০ বছর ধরে চারকল ব্যবসা করে আসছেন। শহরের প্রায় সবাই তাকে চিনেন। প্রতিদিনই তিনি নিজ ভ্যানে বসে বিভিন্ন দোকানে, হোটেলে বা অন্যত্র চারকল পৌঁছে দেন। শারীরিক অক্ষমতার জন্য তার ভ্যান চালানোর জন্য একজন চালক প্রতিদিন আড়াই শ টাকা মজুরিতে রেখেছেন। এরপরও দিনে তার লাভ আসে ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা।
শারীরিক প্রতিবন্ধী আবদুল আলম জানান, সংসারে অভাব-অনটনের জন্য বেশি লেখাপড়ার সুযোগ পাননি। সবসময় কীভাবে নিজের পায়ে দাঁড়াব এটাই মাথায় ঘুরপাক খেতে থাকে। যেহেতু আমি শারীরিক প্রতিবন্ধী। এরপরও লেখাপড়া করেছি কিন্তু দশম শ্রেণির পর আর পড়ালেখা করতে পারিনি। এ সময় অভাব-অনটনের সংসারে আমার শারীরিক অক্ষমতার জন্য জীবন-জীবিকার তাগিদে হোটেলে কাজ নিই। কিন্তু সমস্যা কাটে না। একজনকে দেখি চারকল কিনে এনে বিভিন্ন দোকানে দোকানে বিক্রি করছে। এটা আমাকে অনুপ্রাণিত করে। ত্রিশ বছর আগে শারীরিক প্রতিবন্ধীর জন্য সরকার থেকে ১০ হাজার টাকা অনুদান পাই। সেই টাকা দিয়ে ওই ব্যবসায় নেমে পড়ি। একজনের পরামর্শে তেরোমাইল গড়েয়া থেকে চারকল এনে বীরগঞ্জ শহরে ব্যবসা শুরু করি। এরপর আর কষ্ট পেতে হয়নি। এছাড়াও শারীরিক প্রতিবন্ধীর জন্য ভাতার চেষ্টা করতে থাকি। অবশেষে ২০১৯ সাল থেকে এই ভাতা পাচ্ছি। বর্তমানে বীরগঞ্জ শহরে একটি চারকলের দোকান দিই। এখান থেকে নিজের ভ্যানে করে বিভিন্ন জনের কাছে চারকল পৌঁছে দিই।
শারীরিক অক্ষমতার কারণে তার ভ্যান চালানোর জন্য একজন চালক প্রতিদিন আড়াই শ টাকা মজুরিতে রেখেছেন। গড়ে প্রতিদিন ১৫ মণ চারকল বিক্রি করতে পারি। দিনে লাভ আসে ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা। এখন আমি স্বাবলম্বী। নিজের অদম্য ইচ্ছা আর মনোবল থাকলে দরিদ্রতা জয় করা কোনো ব্যাপার নয় বলে মনে করেন তিনি।