মঙ্গলবার ২১ জানুয়ারী ২০২০ ৮ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শিক্ষার্থীদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত করে দেশপ্রেম ও মূল্যবোধের শিক্ষা দিতে হবে-কৃষিমন্ত্রী

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, “গত এক দশকে শিক্ষার সর্বস্তরেই চোখে পড়ার মতো অগ্রগতি সাধিত হয়েছে। আলোকিত জনগোষ্ঠী গড়তে বাংলাদেশে শিক্ষার গুণগত মান উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। শিক্ষার এই ব্যাপক অগ্রগতি ও সক্ষমতা অর্জন অর্থনীতির ভিত্তিকেও করেছে মজবুত ও টেকসই। শিক্ষার্থীদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত করে দেশপ্রেম ও মূল্যবোধের শিক্ষা দিতে হবে।”

শুক্রবার রাজধানীর ধানমন্ডির সেন্ট্রাল রোডের আইডিয়াল কলেজের সুবর্ণ জয়ন্তী ও পুনর্মিলনী ২০১৯ অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, “পাশ করে বের হয়ে বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত হবে; সমাজ ও রাষ্ট্রের অগ্রগতিতে নেতৃত্ব দিতে হবে। এমন কিছু করে যেতে হবে যাতে করে মানুষ চিরদিন মনে রাখবে শ্রদ্ধাভরে।

ড. রাজ্জাক বলেন, “মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়নের মহাসড়কে দেশ। উন্নয়ন এই গতিকে আরও বেগবান করতে হবে, আগামীতে তোমাদের নেতৃত্বে সমৃদ্ধিশালী বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হবে। বাংলাদেশ ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত রাষ্ট্রের উপযুক্ত নাগরিক হিসেবে নিজেকে গড়তে হবে। শিক্ষিত দেশপ্রেমিক  মানুষ দিয়েই বাংলাদেশের উন্নয়ন সম্ভব। তাই সরকার দেশের সকল জনগণকে একত্রিত করতে চায়।”

মন্ত্রী আরও বলেন, “উপযুক্ত শিক্ষাই পারে সামাজিক, মানসিক ও অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করতে। জাতির পিতা শিক্ষাকে সব থেকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছিলেন, জাতির পিতা শিক্ষাকে অবৈতনিক ঘোষণা করেছিলেন। সংবিধানে শিক্ষাকে গুরুত্ব দিয়েছিলেন। শিক্ষার মাধ্যমে জাতিকে তিনি উন্নত করতে চেয়েছিলেন। শিক্ষার্থীদের মাঝে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস তুলে ধরতে পাঠ্যপুস্তক সংশোধন, সংযোজন ও পরিমার্জন করা হয়েছে।”

বঙ্গবন্ধু শুধু স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্নই দেখেননি, তিনি একটি উন্নত-সমৃদ্ধ সুখী বাংলাদেশ, মন্ত্রীর কথায়, “সোনার বাংলার’ স্বপ্নও দেখেছিলেন। তিনি বলতেন, ‘সোনার বাংলা গড়তে হলে সোনার মানুষ চাই।’ অর্থাৎ দক্ষ, যোগ্য, অসাম্প্রদায়িক, দেশপ্রেমিক, আধুনিক, শিক্ষিত সন্তান বা মানবসম্পদ। আর তা সৃষ্টির জন্য থাকা চাই সত্যিকার মানুষ গড়ার শিক্ষা বা সুশিক্ষা। আগামী দিন তোমরা সূর্যের মত আলো ছড়াবে,ফুলের মতো সৌরভ ছড়াবে নির্মাণ করবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ।”

কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি অ্যাডভোকেট সৈয়দ রেজাউর রহমানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সাবেক সংসদ সদস্য ও জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান প্রফেসর মমতাজ বেগম; কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ড. শামসুল আলম, অধ্যক্ষ মো. জসিম উদ্দীন আহমেদ ও আওয়ামী লীগ নেতা মেজবাউর রহমান ভূঁইয়া ।