বৃহস্পতিবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২০ ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শিক্ষার ভিতরের শিক্ষাঃআমাদের বাস্তবতা

সভ্যতা বা মানুষের বিকাশের প্রারম্ভ থেকে শিক্ষাকে একটি গুরুত্বপূর্ন অবলম্বনীয় বিষয় হিসেবে আমাদের ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রীয় জীবন মেনে নিয়ে তাকে সর্বাধিক গুরুত্বের জায়গায় প্রতিষ্ঠিত করার প্রক্রিয়া অদ্যবধি দেখা যায়। এর ধারাবাহিকতায় শিক্ষাকে অর্থ্যাৎ প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা কি অর্থে প্রবাহিত করার বিষয়ে কমবেশি সব যুগে বিতর্ক থেকেছে। তবে প্রধান দিকগুলোর বিষয়ে সহমত দেখা যায়। শিক্ষাকে ব্যক্তির শরীর, মনন, মেধা, নৈতিকতা ও কর্মের উপযোগী করার জন্য যেমন অধিক প্রয়োজন মনে করা হয়, তেমনি সমাজ ও রাষ্ট্রীয় (এখন যা আর্ন্তজাতিকতা) উপযোগী করার দিকটিও প্রাধান্য পাচ্ছে। এসব বিবেচনায় বর্তমান সময়ে শিক্ষা যে কোলাহলের মধ্যে প্রবাহমান তাতে শিক্ষার মূল সুর বা প্রধান দিকটি অপসৃয়মান। যেসব নিয়ে আমাদের অনেক আক্ষেপ এবং আলোচনা সমালোচনার অন্ত নেই এবং বিজ্ঞজনদের ভাবনার শেষ নেই।

শিক্ষা জীবনের যে দিকগুলিকে কর্ষন করবে, জীবন ধারনের জন্য যে মানবীয় উদারতা ও উচ্চতাকে ফুটিয়ে তুলবে তার পরিবর্তে উল্টোটাই হয়ে চলছে, বিশেষ করে আমাদের ব্যক্তি ও রাষ্ট্রীয় জীবনের সর্বস্তরে এবং আর্ন্তজাতিক প্রেক্ষাপঠেও সমান ভাবে ক্রিয়াশীল। আমাদের ক্রমবিকাশ যত সমূখে এগিয়ে চলেছে বিড়ম্বনা যেন তত বাড়ছে। এসব কিছুকে লক্ষ্য করেই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সভ্যতাকে সংকটাপূর্ন দেখে সে সময়েই উদ্ধিগ্ন হয়ে লিখেছেন অনেক গুরুত্বপূর্ন লেখা। আধুনিক যুগের উর্বর সময়ে দু-দুটি বিশ্বযুদ্ধ এবং ব্যাপক হানাহানি, ধ্বংসযজ্ঞ আমাদের বিচলিত না করে পারেনি। শিক্ষা, সভ্যতাকে প্রশ্নের মুখে দাড়ঁ করিয়ে দিয়েছে। মানুষে-মানুষে, জাতিতে-জাতিতে, দেশে-দেশে, ধর্মে-ধর্মে যে হিংসা, বিদ্বেষ এখন ছড়িয়ে পড়েছে তা থেকে মানুষের নৈতিক অশিক্ষা বা শিক্ষা কতটা কার্যকরী ভ‚মিকায় অবতীর্ণ তাও প্রশ্ন সাপেক্ষ বা দ্বন্দ তৈরী করছে।

এ্যারিষ্টটল প্রায় আড়াই হাজার বছর আগে শিক্ষাকে প্রধানত দুটি দিকের মেলবন্ধন বলে বিশ্লেষন করেছেন- একটি ন্যায়র্ধম অন্যটি প্রয়োজনীয়তা। আসলে সে সময় থেকে শিক্ষার বিভিন্ন দিক নিয়ে বিতর্ক চলে আসলেও শিক্ষার বাহিরের প্রয়োজনীয়তা ও আতিœক দিক দুটির মিলিতরূপই প্রকৃত শিক্ষার কাজ বলে স্বীকৃত হয়ে আসছে। যার ব্যাহত হওয়া সত্যিকার শিক্ষার অনুপস্থিতিকে মনে করিয়ে দেয়। প্রসংগত যা আজ আমাদের বর্তমান প্রেক্ষাপটে প্রকটরূপ ধারন করেছে। ব্যক্তি পর্যায় থেকে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে- নানামুখী শিক্ষা, পরীক্ষা পাসের ব্যবস্থা, জিপিএ সর্বস্বতা, পাঠ্যক্রমের অসারতা, ব্যবস্থাপনার দুর্বলতায় শিক্ষা এমন একটি দেখানো বা বাহ্যিক বিষয়ে পরিণত হয়েছে যে, শিক্ষার গুরুত্বপূর্ন আতিœক বা ভিতরের গুনাবলীর দিকটি এখন শিক্ষক, ছাত্র, অভিভাবক, রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাপনার আগুনে পুড়ে ধোঁয়া হয়ে দুর আসমানে মিলিয়ে যাওয়ার পথে।

বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত ও তাত্বিক গবেষনায় আমরা অনেক কিছুই জানি বুঝি কিন্তু তার প্রয়োগ নেই আর প্রয়োগের চেষ্টা থাকলেও সেটি হিতে বিপরীত হয়ে ফিরে আসছে। যেমন- একজন স্বনামধন্য শিক্ষাবিদ প্রসঙ্গক্রমে বলছিলেন- আমরা সৃজনশীল ব্যবস্থার কথা ভেবেছিলাম ছাত্রদের মুখস্থ থেকে বের করে এনে ভেতরের মেধা, মনন, বুদ্ধিকে, বোধগ্যমতাকে জাগিয়ে তোলার জন্য কিন্ত হচ্ছে উল্টো, যেন কোন কিছুই আর মনে রাখার দরকার নেই। যেহেতু উদ্দিপকে সব উত্তর আছে, খুজেই তা বের করা যাবে। ব্যবস্থাটির উদ্দেশ্য ভাল থাকলেও আদতে বিকৃতিতে গিয়ে ঠেকেছে, তা যে ভালটাই চেষ্টা করা হউকনা কেন তা নষ্ট লোকদের হাতে পরে নষ্ট হয়ে দেখা দিচ্ছে। একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক তাই দুঃখ করে বলছিলেন- এখনো বেশিরভাগ ছাত্রই, না জানার না বোঝার মধ্যদিয়ে গাইড আর কোচিং এ ভাল জিপিএ নিয়ে পাস করছে যে তাদের কোন প্রশ্ন করে উত্তর পাওয়ার উপায় নেই, যেন পূর্বে কিছুই পড়েনি বা মনে রাখার প্রয়োজনীয়তা বোধ করেনি। ফলে তাদের বাড়তি এক সেমিষ্টারে পূর্বের পড়া পড়িয়ে পরের পর্যায়ের জন্য প্রস্তুত করা ছাড়া উপায় থাকে না। যা দিনকে দিন বেড়ে খারাপ নজির স্থাপন করছে। এমন যদি অবস্থা তবে শিক্ষার্থীরা এ শিক্ষা  থেকে কি শিখছে, কি নিচ্ছে ! আর শিক্ষা থেকে তারা চরিত্র গঠন, সততা, নৈতিকতা, মানবিকতা বা মূল্যবোধের শিক্ষা নেয়াটা তার জন্য কতটা সম্ভব ! যেহেতু তাদের বোধগম্যের দিকটি এতো দূর্বল হয়ে রয়েছে। সেক্ষেত্রে ভিতরের শিক্ষাতো আরো গভীর উপলদ্ধির ব্যপার যা দেবার বা নেবার মতো কোন কিছুই আমাদের অনুক‚লে নেই- বর্তমানে তথ্যপ্রযুক্তি এসবকে আরো কঠিন করে তুলেছে। যা বিপদজনক সম্ভাবনাকে মনে করিয়ে দিচ্ছে।

ব্যক্তি ও রাষ্ট্রীয় জীবনে বিশ্বব্যাপি মানুষের মানবিক দিক অবক্ষয়ের দিকে নিয়ে চলেছে নানারকমের নৈরাজ্যের মাধ্যমে। যার প্রতিকার হিসেবে শিক্ষাকেই বিশেষ করে আতিœক বা নৈতিক মূল্যবোধ, মানবীয় দিক্ষা শিক্ষা থেকেই পাবার কথা। সবাই কম বেশি এসব বুঝি তার পরেও একটি বুভুক্ষু মন  কি অবিভাবক, কি শিক্ষক, কি ব্যবস্থাপনা, এমন বুভুক্ষু, অস্থির ছাত্র বা মানুষ তৈরী করছে যা আমরা সত্যি কি চাই! চাইনা, তবুও তাই হয়ে চলেছে, সর্বাংশে তাই গ্রাস করছে। ¯্রােতের প্রতিক‚লে সাঁতার কাটার শক্তি কজন আমরা ধারন করি! করি না বলে কি হালকা ¯্রােতে গা ভাসানো !

যুগে যুগে সংকট ঘনিভ‚তের চুড়ান্ত পর্যায়ে মানুষ তার প্রয়োজনে সহজাত তাগিদে সব কিছুকে কঠিন শ্রম ও ত্যাগের মাধ্যমে ঘুরে দাড়াঁবার নজির রেখেছে এবং তার সে শক্তি রয়েছে যেটা আমাদের আশার জায়গা। তবুও কষ্টকর ভাবনা সর্বত্র ছড়ানো ছিটানো।

এই পরিক্রমায় ব্যক্তি মানুষের নৈতিক দিককে উঁচুতে তুলে ধরা এবং যেহেতু রাষ্ট্র এখন সর্বোব্যাপি ভুমিকায় অবতীর্ন তাই রাষ্ট্রের সঠিক ব্যবস্থাপনা অতিব জরুরী। কেননা সঠিক মানুষের হাতে সঠিক দায়িত্ব না পড়লে ভাল কিছুও নষ্ট হয়ে যেতে বাধ্য। শিক্ষা মানুষকে সঠিক হতে নিশ্চিতভাবে প্রধান বিবেচ্য। সে দিকটি ভেবে শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা বাহিরের দিকটির সাথে আতিœক বা আভ্যন্তরীন গুনাবলীর উ¤েœষ ঘটানোর দিকে গুরুত্ব দেওয়াটা অভিভাবক, শিক্ষক, ব্যবস্থাপনার লক্ষ্য হওয়াটা বর্তমান অস্থির প্রযুক্তির টলোমলো সময়ের জন্য সর্বাগ্রে প্রয়োজন হয়ে পরেছে।

লেখক-ইসমত আরা

প্রধান শিক্ষক, রঘুনাথপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email