মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শিশু নিহানের বাড়ী ফেরা সবাইকে কাঁদিয়েছে

মো. আব্দুর রাজ্জাক ॥ মায়ের সাথে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার ভোগনগর ইউনিয়নের বিজয়পুর গ্রামে নানা মোঃ সিরাজুল ইসলামে বাড়ী বেড়াতে এসেছিল দুই বছরের শিশু মোঃ নিহান। সপ্তাহ ধরে নানার বাড়ীতে বেশ ভালো কাটছিল মা ও ছেলের দিনগুলি। কিন্তু নাতির মুখ দেখতে না পেয়ে অস্থির দাদা ও দাদি। তাই নাতিকে নিতে ছুটে আসে দাদা হাজী মোঃ বাদশা মিয়া। দাদা আর মায়ের হাত ধরে বাড়ীতে ফিরবে এই নিয়ে আনন্দে মেতে ছিল শিশু মোঃ নিহান। তাই তো খুব ভোরে ঘুম ভেঙ্গে যায় তার। সোমবার সকাল ৭টায় নানা বাড়ীর সবাইকে বিদায় জানিয়ে মায়ের কোলে বসে দাদার সাথে বিআরটিসি বাসে রওয়ানা দেয় নিজবাড়ী মাগুড়া জেলার মোহাম্মদপুর উপজেলার পূর্ব নারায়নপুর গ্রামে। কিন্তু ৫কিলোমিটার যেতে না যেতেই সমস্ত আনন্দ বিষাদে পরিণত হয় শিশু নিহানের পরিবারের।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে বাক নেওয়ার সময় বিআরটিসি বাসটি বিপরীত গামী একটি ট্রাককে অতিক্রম করার সময় হঠাৎ ব্রেক করলে বাসের সামনে মায়ের কোলে বসা শিশু মোঃ নিহান ছিকটে পড়ে যায় পাকা সড়কে। সাথে সাথে বাসের পিছন চাকা শিশুটির মাথাকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই মারা যায় শিশুটি। সকালে হাসিমুখে বিদায় দিলেও ঘটনার পর দুপুরে শিশু নিহানের নিথর দেহ নিয়ে পরিবারের লোকজন যখন মাগুড়ার নিজ বাড়ী ফিরছিল। তখন সবাই কেঁদেছিল তার বিদায়ে।
বাসের যাত্রী মাগুড়া জেলার মোঃ রফিকুল ইসলাম জানান, আমার সামনে বসা ছিল শিশুটি। কিন্তু সড়কে বাক নেওয়ার সময় হঠাৎ করে ব্রেক করলে বাসটিতে প্রচন্ড ঝাকুনি হয়। এতে শিশুটি ছিটকে দরজা সামনে পড়ে যায়। বাসের সহকারী তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করলেও সফল হয়নি। বাসের গতির এবং ঝাকুনির কারণে আটকানো যায়নি শিশুটিকে।
শিশুটির নানা মোঃ সিরাজুল ইসলাম জানান, ৩বছর আগে তার মেয়ে মোছাঃ সিনথিয়া সিমনের সাথে বিয়ে হয় মাগুড়া জেলার মোহাম্মদপুর উপজেলার পূর্ব নারায়নপুর গ্রামে হাজী দাদা বাদশা মিয়ার ছেলে মোঃ শামীম আশরাফ শাওনের সাথে। দুই বছরে পুর্বে তার কোল জুড়ে আসে একমাত্র সন্তান নিহান। নিহানের দাদার পিড়াপিড়ির কারণে আজকে যেতে দেয় মেয়ে আর নাতিকে। এটা যে তার নাতির শেষ বিদায় হবে তিনি কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না। একমাত্র সন্তান কে হারিয়ে পাগল প্রায় শিশুটির মা-বাবা। মাঝে মাঝে প্রলাপ বকছেন তারা।
এ ঘটনায় বাসের যাত্রীসহ উপস্থিত সকলেই চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি ছোট শিশুটির মৃহদেহ দেখে।
অশ্রুসজল চোখে বীরগঞ্জ থানার এসআই মোঃ আকবর আলী বলেন, চাকুরী জীবনে অনেক ঘটনা দেখতে হয়েছে। তবে আজকের ঘটনাটিতে চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি তিনি। মর্মান্তিক এই ঘটনায় একটি পরিবারের বেচে থাকার স্বপ্নের মৃত্যু হয়েছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।