শনিবার ২০ জানুয়ারী ২০১৮ ৭ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

শীতার্ত বাবাকে ঘরে তুলে দিলেন বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আলম হোসেন

uno

মো. আব্দুর রাজ্জাক ॥ প্রকৃতির বৈরী আচরণে বদলে গেছে উত্তর জনপদের জীবন চিত্র। দিন দিন বাড়ছে শীতের দাপট। প্রচন্ড কনকনে শীত আর হিম শীতল বাতাসে থমকে গেছে মানুষের জীবন যাত্রা। ঘন কুয়াশা আর কনকনে শীতে কাঁপছে উত্তরের জনপদ দিনাজপুর। হিমালয়ের পাদদেশ থেকে নেমে আসা শৈত প্রবাহ ও হিমেল হাওয়া বইছে। ফলে শীদের তীব্রতা বেশী অনুভুত হচ্ছে। গণমাধ্যম কর্মীরা শীতে অবর্ণনীয় দুর্ভোগের কথা তুলে ধরে আবেগময় সংবাদ প্রচার করছেন। সেই সংবাদে শীতার্ত মানুষের খোঁজে প্রতিদিন রাতে গ্রামের পর গ্রাম ছুটে গিয়ে অসহায় শীর্তার্ত মানুষকে শীতবস্ত্র তুলে দিচ্ছেন বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আলম হোসেন। তারই ধারাবাহিকতায় তিনি গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১২ টার সময় ছুটে যান বীরগঞ্জ উপজেলার ৬ নং নিজপাড়া ইউনিয়নের জালিয়াপাড়া গ্রামে। সেখানে গিয়ে একটি বাড়ীতে ঢুকে দেখতে পান অবিনাশ রায় (৮০) নামে এক বৃদ্ধ ঠান্ডর মধ্যে খোলা বারান্দায় ছেড়াকাঁথা নিয়ে শুয়ে আছেন। কাছে গিয়ে দেখেন তিনি ঠান্ডায় কাঁপছেন।

এই দৃশ্য দেখে ঐ বৃদ্ধকে ডেকে তুলে জানতে চান বাব আপনি এই ঠান্ডায় ঘরে না শুয়ে  বারান্দায়  শুয়ে আছেন কেন ? এ সময় বৃদ্ধ অবিনাশ রায় জানান, তার দুই ছেলে ঘরের মধ্যে বউ বাচ্চা নিয়ে লেপ তোষকের মধ্যে শুয়ে আছেন। তাকে গরু পাহারা দেয়ার জন্য ছেলেরা বাইরে ঘুমাতে বাধ্য করেছে। তাই তিনি এই শীতে বারান্দায় শুয়ে গরু পাহারা দিচ্ছেন।

এই কথা শুনে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আলম হোসেন বৃদ্ধের দুই ছেলে স্বাধীন রায়(৪৮) ও মহেশ রায়(৪৩) কে ঘুম থেকে ডেকে তুলে ঘর থেকে বের করে দিয়ে তাদের শীর্তার্ত পিতাকে ঘরে ঢুকিয়ে দেন। নিজ হাতে শোয়ার জন্য বিচানা করে দিয়ে তিনি ছেলেদের পক্ষে বৃদ্ধ পিতার কাছে ক্ষমা চান। পরে ছেলেরা  তাদের ভুল বুঝতে পেরে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। এ সময় বৃদ্ধ অবিনাশ রায়কে বয়স্ক ভাতার করে দেয়ার আশ্বাস প্রদান করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার। এ সময় তিনি ছেলেদের বাবা মায়ের প্রতি কর্তব্যের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়।

এ ব্যাপরে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আলম হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বিষয়টি আমার কাছে অমানবিক মনে হয়েছে। এই শীতে আমাদের মত মানুষ যেখানে কাহিল হয়ে যাচ্ছে। সেখানে ্একজন বৃদ্ধ পিতাকে বাইরে রেখে লেপ তোষক নিয়ে ছেলেরা ঘরের মধ্যে শুয়ে থাকবে তা মেনে নেয়া যায় না। তাই বিবেকের তাড়নায় এ কাজটি করেছি। যাতে করে আর কেউ বাবাকে অবহেলার করার সাহস না দেখায়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার আব্দুল হাই, ৬ নং নিজপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল খালেক সরকার ও ৩নং শতগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ডা. কেএম কুতুব উদ্দিন।

শনিবার ঘটনাটি উপজেলা ছড়িয়ে পড়লে টক অব দ্যা টাউনে পরিণত হয়। এ ঘটনায় এলাকার সাধারণ মানুষ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আলম হোসেনকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।