শনিবার ২০ জানুয়ারী ২০১৮ ৭ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

শীতে হুমকির মুখে রামসাগর জাতীয় উদ্যানের ৪৭টি চিত্রা হরিণ

Deer

এমদাদুল হক মিলন ॥  দিনাজপুরের রামসাগর জাতীয় উদ্যানের চিড়িয়াখানায় শীতর কারণে ৪৭টি চিত্রা হরিণের জীবনে নেমে এসেছে চরম দূভোর্গ। জরুরী ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয়া না হলে শীতের কারণে  হরিণ গুলোর মৃত্যুর মত ঘটনা ঘটতে পারে।

অপরদিকে ১২টি মা হরিণ যে কোন সময় শাবকের জন্ম দিতে পারে। এই শাবক গুলোর জন্ম হলে রামসাগর চিড়িয়াখানায় যুক্ত হবে ১২ জন নতুন অতিথি।

জানা যায়, প্রায় ১ বছর থেকে সরকারিভাবে কোনো বরাদ্দ না আসায় হরিণগুলো খেয়ে না খেয়ে কোনোমতে বেঁচে আছে। খাদ্য ও পুষ্টির অভাবে রোগাক্রান্ত ও দুর্বল হরিণগুলোর পাঁজরের হাড় ভেসে উঠেছে। অপরদিকে প্রচন্ড শীতে থাকার সেট না থাকায় হরিণ গুলো শীতে নিদারুণ কষ্ট পাচ্ছে।

দিনাজপুর বন বিভাগের কর্মকর্তা ও রামসাগর জাতীয় উদ্যানের তত্ত্বাবধায়ক আব্দুস সালাম তুহিন জানান,হরিণ রোদ,বৃষ্টিতে কোন সমস্যা হয়না। বৃর্ষ্টির পানি তাদের কোন ক্ষতি করতে পারেনা। কিন্তু হরিণ শীত সহ্য করতে পারেনা। শীতে তারা কাহিল হয়ে যায়। এমন কি মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। তাই রামসাগর জাতীয় উদ্যানের চিড়িয়া খানায় এই শীতে হরিণ গুলো থাকার জন্য স্থায়ী সেট নির্মান করা জরুরী।

রামসাগর জাতীয় উদ্যানের চিড়িয়াখানায় গিয়ে দেখা যায়, খাবারের অভাবে এক সময়ের চঞ্চল ও দুরন্ত হরিণগুলো এখন অনেকটা ঝিমিয়ে পড়েছে। দর্শনার্থীরা এলেই খাঁচার সামনে এসে অসহায়ের মতো বাড়িয়ে দেয় মুখ। দর্শনার্থীরা বাদাম-কলাসহ সামান্য যা দেয় তাতে ওদের পেট ভরে না। বর্তমানে পুরাতন আলুর দাম কম হওয়ায় হরিণ গুলোকে আলু খাওয়ানো হচ্ছে।

চিড়িয়াখানার পরিচর্যাকারী বাবুল রায় জানান, চিত্রা হরিণগুলোর জন্য খাদ্যের সর্বশেষ বরাদ্দটি এসেছিল গত ফেব্রুয়ারী মাসে। এরপর আর কোনো বরাদ্দ আসেনি। তখন থেকেই পাতা-লতা আর  দর্শনার্থীদের দেওয়া খাবার খেয়ে কোনোমতে বেঁচে আছে ওরা। এভাবে হরিণগুলো ক্রমশ দুর্বল থেকে দুর্বলতর আর রোগাক্রান্ত হয়ে পড়ছে। ৪৭টি হরিণের মধ্যে ১২টি হরিণ গর্ভবতী। গর্ভবতী হরিণগুলোও ঠিকমতো খাবার পাচ্ছে না। অপরদিকে প্রচন্ড শীতে হরিণ গুলো কাহিল হয়ে পড়েছে। আজ (মঙ্গলবার) দেখা দেয়ায় হরিণ গুলো অনেকটা সুস্থ্য রয়েছে। কারণ হরিণের শীত সহ্য করার ক্ষমতা কম। খাদ্যাভাব আরশীত এ ভাবে চলতে থাকলে হরিণগুলো একসময় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তে পারে।

দর্শনার্থীদের দেয়া সামান্য খাবার আর লতাপাতা খেয়ে বেঁচে আছে ৪৭টি চিত্রা হরিণ। দিনাজপুর বন বিভাগের কর্মকর্তা ও রামসাগর জাতীয় উদ্যানের তত্ত্বাবধায়ক আব্দুস সালাম তুহিন বলেন, রামসাগর জাতীয় উদ্যানের একমাত্র চিড়িয়াখানায় সরকারিভাবে ৬টি চিত্রা হরিণ আনা হয়। সঠিক পর্যবেক্ষণের ফলে হরিণগুলো দ্রুত বংশবিস্তার করতে থাকে। বাড়তে বাড়তে এদের সংখ্যা এখন ৪৭টি। এই ৪৭টি চিত্রা হরিণের জন্য সর্বশেষ গত ফেব্রুয়ারীতে খাদ্যের বাজেট এসেছিল। যা দিয়ে এক মাসও খাবার সরবরাহ করা যায়নি।

এই তত্ত্বাবধায়ক আরো বলেন, শাপলার পাতা চিত্রা হরিণের প্রিয় খাবার। গত বছর বরাদ্দ কম এলেও রামসাগর দিঘিতে শাপলা চাষ করার ফলে হরিণের খাদ্যচাহিদা কিছুটা মেটানো সম্ভব হয়। কিন্তু গত এক বছর ধরে দিঘিতে মাছ শিকারের কারণে শাপলা চাষ বন্ধ হয়ে যায়। একারণে হরিণের খাদ্যসংকট তীব্রতর হয়েছে। আশা করছি, অল্প দিনের মধ্যেই এদের খাবারের নতুন বরাদ্দ পাওয়া যাবে। বর্তমানে পুরাতন আলুর দাম কম হওয়ায় হরিণ গুলোকে আলু খাওয়ানো হচ্ছে।