রবিবার ২৯ মার্চ ২০২০ ১৫ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শীর্ষ ৬ ইলেকট্রিক গাড়ি

দিন দিন ব্যবহারকারীদের কাছে ইলেকট্রিক গাড়ি অনেক বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। প্রায় সব কোম্পানিরই ইলেকট্রিক গাড়ি আছে। এদের মধ্যে শীর্ষ ৫টি ইলেকট্রিক গাড়ির কথা আপনাদের সামনে তুলে ধরছি। 

নিশান লিফ

নিশান লিফের দ্বিতীয় প্রজন্ম এটি। সাশ্রয়ী দামে পাঁচটি আসনের ভালো বুট, সহজ চালনা, নীরব ও হোম চার্জিং সুবিধার জন্য গাড়িটি ব্যবহারকারীদের পছন্দের খাতায় রয়েছে। গত বছর নিশান লিফ ঐচ্ছিকভাবে চালকের সহায়তার বৈশিষ্ট্যগুলোর একটি মুদ্রা তৈরি করছে। বৈশিষ্ট্যগুলো হচ্ছে সুরক্ষা শিল্ড 360 স্যুটে একসঙ্গে বান্ডিল করা, পথচারী শনাক্তকরণ, স্বয়ংক্রিয় উচ্চ-মরিচাবিহীন পদক্ষেপ, লেন ছাড়ার সতর্কতা, রিয়ার স্বয়ংক্রিয় জরুরি অবস্থা, অন্ধ-স্পট পর্যবেক্ষণ এবং পিছনের ক্রস ট্রাফিক সতর্কতাসহ স্বয়ংক্রিয় জরুরি অবস্থা। গাড়িটির ১১০ কিলোওয়াট বৈদ্যুতিক মোটর সামনের চাকায় ১৪৭ অশ্বশক্তি নিয়ে আসে এবং ৪০ কিলোওয়াট ঘণ্টা ব্যাটারি প্যাক শক্তি সরবরাহ করে। 

গত বছর স্ট্যান্ডার্ড ৫.০ ও ৭.০ ইঞ্চি ইনফোটেইনমেন্ট ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছিল। কিন্তু এবার তা ৮.০ ইঞ্চি ইনফোটেইনমেন্ট ডিসপ্লে দিয়ে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে, যা অ্যাপল কারপ্লে এবং অ্যান্ড্রয়েড অটো একীকরণ বৈশিষ্ট্যযুক্ত।  

টেসলা মডেল এক্স 

গাড়িটির বিশেষ বৈশিষ্ট্য হচ্ছে ফ্যালকন ডোরস অর্থাৎ পাখির ডানার মতো দরজা। অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি যে মাত্র ১১ ইঞ্চি জায়গার মধ্যে গাড়িটি দরজা খুলতে সক্ষম এবং দরজাগুলোতে রয়েছে বিশেষ সেন্সর। এছাড়া ৪ ডব্লিউডির গাড়িটিতে আছে ৭ আসন সংখ্যা যা কল্পনাই করা যায় না।

বর্তমানে ৫৫৩ বিএইচপি ও লুড্রিকাস-সক্ষম ৭৮৫ বিএইচপি নামে দুইটি সংস্করণ রয়েছে। গাড়িগুলোর ওজন আড়াই হাজার কেজি হলেও তারা মোটেও দুর্বল নয়। মাত্র ৪.৪ সেকেন্ডে গাড়িগুলো ৬০ এমপিএইচ অতিক্রম করে যেখানে বেঞ্চমার্ক স্প্রিন্টে তার পারফরম্যান্স ২.৭ সেকেন্ড।

এই গাড়িগুলো এক চার্জে ৩০০ মাইলেরও বেশি যেতে সক্ষম। এছাড়া ব্যবহারকারীদের সারা জীবন টেসলার সুপার্ব সুপারচার্জ নেটওয়ার্ক সম্পূর্ণ বিনা মূল্যে সুবিধা দেবে। তবে দ্বিতীয় মালিকদের এই সুবিধা উপভোগের জন্য অর্থ প্রদান করতে হবে। 

হুন্ডায় আয়োনিক ইলেকট্রিক     

গাড়িটির টিয়ারড্রপ আকার গাড়িটিকে টয়োটা প্রায়াসের প্রতিদ্বন্দ্বী করে তুলেছে। তবে গাড়িটি নিশান লিফ, ভিডব্লিউ গলফ জিটিই এর প্রতিদ্বন্দ্বীও। 

২৮ কেডব্লিউএইচ লিথিয়াম আয়ন পলিমার ব্যাটারি ও ১৯৪ এলবি বৈদ্যুতিক মোটর গাড়ির সামনের চাকায় ১১৮ অশ্বশক্তি নিয়ে আসে। ইকো ও নরমাল মোডে ৬২ এমপিএইচ দূরত্ব অতিক্রম করে মাত্র ১০.২ সেকেন্ডে। অবশ্য এটির সর্বাধিক পরিসীমা ১৭৪ মাইল। 

রেনল্ট জো 

নতুন জো দেখতে অনেকটাই পুরনো জো এর মতো। তবে নতুন জো-কে বড় ব্যাটারি ও দক্ষ মোটর দিতে আরও উন্নত করা হয়েছে। 

নতুন রেনল্ট জোতে প্লাস্টিকের পরিবর্তে বড় প্রতিকৃতির টাচস্ক্রিন ও হাই-অ্যান্ড উপকরণ সংযুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া নতুন চালক সহায়তায় লেন ছাড়ার সতর্কতা, লেন-রক্ষণ সহায়তা এবং অন্ধ-স্পট পর্যবেক্ষণের মতো প্রযুক্তি রয়েছে। 

গাড়িটির পেছনে লুকানো রয়েছে সিসিএস পোর্ট। এটি ৫০ কেডব্লিউ পর্যন্ত ডিসি সমর্থন করে। অর্থাৎ এই জাতীর চার্জার ৯০ মাইল পরিসীমা যোগ করবে মাত্র আধা ঘণ্টায়। অন্যদিকে রাস্তার পাশের সাধারণ ২২ কেডব্লিউ চার্জার ১ ঘণ্টায় যোগ করবে ৭৮ মাইল পরিসীমা। 

বিএমডব্লিউ আইথ্রি 

নকশা, ক্ষমতা ও ফিটনেসের দিক থেকে বিএমডব্লিউ আইথ্রি এর জুড়ি নেই। আগেরটি থেকে এটি দেখতে আরও বেশি সুন্দর। এতে সংযুক্ত করা হয়েছে রূপালি রঙের রুফ লাইন, বিভিন্ন ধরনের বাম্পার ও সামান্য টাক। 

গাড়িটিতে একক গিয়ারের সিনক্রোনাইজ বৈদ্যুতিক মোটরের সঙ্গে ৩৩ কেএইচডব্লিউ লিথিয়াম আয়ন হাই ভোল্টেজ ব্যাটারি সংযুক্ত করা হয়েছে। অর্থাৎ গাড়িটির ক্ষমতা ১৭০ অশ্বশক্তি। এটি মাত্র ৭.৩ সেকেন্ডে ৬২ এমপিএইচ দূরত্ব অতিক্রম করবে এবং এর সর্বোচ্চ স্পিড ৯৩ এমপিএইচ। তবে অফিশিয়াল এনইডিসি ল্যাব ১৮৬ মাইল রেঞ্জ উল্লেখ করেছে। 

অডি ই-ট্রন 

অডি ই-ট্রন ব্রাসেলসে তৈরি করা হয়েছিল। ছোট ব্যাটারি ও একটি এন্ট্রি লেভেল সংস্করণসহ বিভিন্ন ধরনের পাওয়ার আউটপুটগুলোর সাথে খুব শীঘ্রই ই-ট্রোন নিরাপদ। 

গাড়িটিতে ৫টি আসন ও ৬০৫ লিটারের একটি বুট আছে। মূল সরঞ্জামগুলোর মধ্যে অভিযোজিত এয়ার সাসপেনশন, এলইডি হেডলাইটস, ৩ ডিগ্রি ক্যামেরা, কীলেস এবং উভয়পাশে চার্জিং পয়েন্ট রয়েছে। গাড়ির উভয়পাশে চার্জিং পয়েন্ট প্রথম বিশ্বব্যাপী অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এছাড়া এতে আয়নাগুলোর পরিবর্তে সাইড ক্যামেরা সংযুক্ত করা হয়েছে।

সংগৃহিত

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email