মঙ্গলবার ২৮ জানুয়ারী ২০২০ ১৫ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শুধু বাংলাদেশ নয়, সারাবিশ্বেই এখন ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়েছে-স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, শুধু বাংলাদেশ নয়, সারাবিশ্বেই এখন ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়েছে। ফিলিপাইনে ৬০০ জন মারা গেছেন ডেঙ্গুতে। অন্যান্য দেশেও লাখ লাখ লোক আক্রান্ত হচ্ছেন।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় ‘ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ ও সচেতনতায় করণীয়’ শীর্ষক এক গোলটেবিল আলোচনায় তিনি এসব কথা বলেন। 

তিনি বলেন, তবে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সর্বশক্তি দিয়ে ডেঙ্গু মোকাবিলায় কাজ করছে। এ ব্যাপারে আমাদের সবাইকে নিজ নিজ জায়গা থেকে কাজ করতে হবে।

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে সবাইকে অন্তর্ভুক্ত করার আহ্বান জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, সব মন্ত্রণালয়ের কর্মক্ষেত্র ভাগ করা আছে। সবাইকে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করতে হবে। মিডিয়াও ভালো কাজ করছে। তবে এটি কোনো জাতীয় সংকট নয়। আগে কলেরায় মানুষ মরে গ্রামের পর গ্রাম সাফ হয়ে যেত। কিন্তু ডেঙ্গুতে মৃত্যু প্রতিরোধ করা সম্ভব।

জাহিদ মালেক বলেন, আমাদের দেশের হাসপাতালগুলো ২০০ শতাংশ সক্ষমতায় চলে। কোনো সংকট দেখা দিলে তার সঙ্গে আরো ২০০ শতাংশ বাড়ে, তা হলে বুঝতে আমাদের কতখানি বেগ পেতে হচ্ছে। আমাদের চিকিৎসক, নার্সরা আন্তরিকভাবে ২৪ ঘণ্টা কাজ করে যাচ্ছেন। জীবনবাজি রেখে তারা কাজ করে যাচ্ছেন।

দেশে ডেঙ্গু সনাক্তের কিটসের অভাব নেই জানিয়ে তিনি বলেন, আপনারা জানেন- একটি রোগ যখন অনেক বড় আকারে দেখা দেয়, তখন অনেক কিছুর প্রয়োজনীয়তা বেড়ে যায়। ডেঙ্গু পরীক্ষার কিট ছিল না, আতঙ্কিত হয়ে, হাজার হাজার লোক, লাখ লাখ লোক পরীক্ষার জন্য এসেছেন। আমাদের বাধ্য হয়ে কিটস রাতারাতি ব্যবস্থা করতে হয়েছে। এখন আর কোনো কিটসের অভাব নেই।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ডেঙ্গুর কারণে আমরা চিকিৎসক ও নার্সদের ছুটি বাতিল করেছি। তারা আনন্দের সঙ্গেই এটি মেনে নিয়েছে। কোনো অনীহা দেখায়নি। এ চিকিৎসার জন্য বিশেষভাবে প্রটোকল লাগে। সেই অনুসারে তারা কাজ করে যাচ্ছেন। পাশাপাশি একটি বুকলেটও তৈরি করেছি। সেসব বুকলেট আমরা সব জায়গায় পাঠিয়ে দিয়েছি।

জাহিদ মালেক বলেন, ডেঙ্গু পরীক্ষার দামও নির্ধারণ করে দিয়েছি। সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা বিনামূল্যে দেয়া হচ্ছে। তা আপনারা জানেন। প্রধানমন্ত্রী সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণে রাখছেন। উনি নির্দেশনা দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী সচেতনতা বৃদ্ধি করতে বলেছেন। কারণ রোগী যাতে না বাড়ে সেই ব্যবস্থা করতে হবে।

এতে সভাপতিত্ব করেন সাবেক মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম। 

গোলটেবিল আলোচনায় আরো উপস্থিত ছিলেন- স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক নজরুল ইসলাম, বিএসএমএমইউর ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান ও মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের সাবেক পরিচালক অধ্যাপক ডা. মাহমুদুর রহমান, বিএমএর মহাসচিব ডা. এহতেশামুল হক দুলাল, মুস্তাক হোসেন, কীটতত্ত্ববিদ ডা. মঞ্জুর চৌধুরী, যুগান্তরের সহযোগী সম্পাদক মাহবুব কামাল। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন যুগান্তরের উপসম্পাদক এহসানুল হক।