শনিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৯ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শুভ কামনা বাংলাদেশ।

অতি বানিজ্যিকীকরণের ঠ্যালায় বিগত দু’দশক থেকে ক্রিকেটে জৌলুষ বাড়লেও এর মজাটা গেছে কমে। ফুটবলেও এমন হয়। তবে ক্রিকেটের সাথে এর পার্থক্য হচ্ছে ফুটবল বানিজ্যের উপলক্ষ্য তৈরী করে দেয় কিন্তু ক্রিকেট নিজেই বানিজ্যের উপকরণ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। ফলে ফুটবলকে ঘিরে এর বাইরের বানিজ্যিক উন্মাদনাকে জিইয়ে রাখতে ফিফাকে বাধ্য হয়েই ফুটবলের মানের ব্যাপারে আপোষহীণ থাকতে হয় কিন্তু ক্রিকেট যেহেতু নিজেই বানিজ্যিক উপকরণ তাই আইসিসি’র পক্ষে ক্রিকেট মানন্নোয়নে ভুমিকা রাখাটা সহজ হয়না। তাকে বরং তাকাতে হয় খেলার ফলাফল এবং ক্রিকেট কর্পোরেটদের স্বার্থ সংরক্ষণের দিকে।

অর্থনীতি, সমাজনীতি, রাজনীতি সহ আরও কিছু অনুষঙ্গ বিবেচনায় বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক পরিচিতিটা এখনও তেমন উজ্জ্বল নয়। জাতী হিসেবে এ বিষয়ে আমরা বিব্রতও। কিন্তু বিশেষত নব্বই দশক থেকে আমাদের গার্মেন্টস এবং ক্রিকেট প্রানান্ত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পরিচয়ের সে অনুজ্জ্বল অংশটাকে ঘষেমেজে চকচকে করার। এ দুই শিল্প সেক্ষেত্রে ইতিমধ্যে অনেকটাই সফল। তবে আমাদের আবেগ উচ্ছাস দেশপ্রেম গার্মেন্টস শিল্পের অনুকুলে তেমন ভাবে খুঁজে না পেলেও ক্রিকেটের ক্ষেত্রে সেটা ক্ষণে ক্ষণেই উথলে ওঠে।

আমাদের ক্রিকেট বিশ্বপরিমন্ডলে যায়গা করে নেয়ার প্রথমদিকে অবস্হাটা যেরকম ছিলো এখন সেরকমটা নেই। বিশ্বের প্রতিষ্ঠিত ক্রিকেট শক্তিগুলো সে সময় বাংলাদেশের ‘হঠাৎ আলোর ঝলকানি’র মত দুয়েকটা সফলতায় বেশ জোড়েসোড়ে বাহবা দিতো।টেন্ডুলকারকে আউট করতে পারা বা ডোনাল্ডের বলে একটা ছয় মারার মধ্যেই আমাদের সাফল্যের সূচক নির্ধারিত হতো। ওরা পিঠ চাপড়ে দিতো। আমরাও যথেষ্টই আহলাদিত হতাম তাতে। কেনিয়া বা জিম্বাবুয়ের সাথে কালেভদ্রে ম্যাচ জিতলে ক্রিকেট মোড়লদের দৈনিক পত্রিকার খেলার পাতায় শিরোনাম হতো-উঠে আসছে বাংলাদেশ।

কিন্তু সত্যিই যেদিন থেকে বাংলাদেশের উঠে আসা শুরু হলো সেদিন থেকেই ধীরে ধীরে পূর্বেকার অনুকুল অবস্হা পাল্টে যেতে শুরু করলো। এর পেছনের কারনগুলোও খুবই স্পষ্ট। প্রথমত প্রতিষ্ঠিত ক্রিড়াশক্তি চাইলোনা তাদের প্যারালাল আর একটা শক্তি এসে তাদের ঘাড়ে নিশ্বাস ফেলুক। এরপর ক্রিকেট অর্থনীতি এবং অনিবার্য আঞ্চলিক রাজনীতির বৈরীতা আমাদের উঠতে থাকা ক্রিকেট নৈপুণ্যে ক্রমাগত আঘাত হানতে থাকলো। ক্রিকেট মহারথীদের সাথে একটা দ্বিদেশীয় বা ত্রিদেশীয় সিরিজের জন্য বাংলাদেশকে অপেক্ষা করতে হতো বছরের পর বছর। টিভিস্বত্ব, গ্যালারীর দর্শকমন্দা, হেভীওয়েট বানিজ্যিক পৃষ্ঠপোষকতার অভাব ইত্যাদি সব অক্রিড়াসুলভ অজুহাত হলো বাংলাদেশের ক্রিকেটের এগিয়ে যাওয়ার পথে অন্তরায়।

আইসিসি হতে পারতো এইসব প্রতিকুলতার বিপরীতে উঠতি ক্রিকেট শক্তিগুলোর আস্হার ভিত্তি। কিন্তু তা হয়নি। কুক্ষিগত এই সর্বোচ্চ ক্রিকেট সংস্হা ক্রিকেট মোড়লদের মুঠি গলে বের হতে পারেনি বা চায়নি। এর পেছনে অন্যান্য গৌণ কারনগুলোর বাইরে অর্থনৈতিক স্বার্থ যে একটা বড় কারন সেটা বুঝতে খুব বেশী জ্ঞানী হওয়ার প্রয়োজন নেই। দু’হাজার আঠারো বিশ্বকাপ ফুটবলে চারবারের বিজয়ী ইতালি কোয়ালিফাই না করলেও ফিফার কিছু যায় আসেনা কিন্তু আইপিএলক্লান্ত ভারতীয় খেলোয়াড়দের জন্য আইসিসি ঠিকই স্পেস তৈরী করে দেয়। কোনও কোনও দেশ যখন টুর্ণামেন্টে তাদের তৃতীয় খেলায় মাঠে নামছে, ভারত তখন শুরু করছে তাদের বিশ্বকাপ যাত্রা।

কিন্তু তারপরও বাংলাদেশ তার ক্রিকেটকে নিয়ে এগিয়ে গেছে অনেকটা দুর। এই এগিয়ে যাওয়া এতোটাই বিস্ময়কর যে এদেশের মানুষ এখন হিসেব কষতে পারার স্পর্ধা দেখায়-বাংলাদেশ হয়ত ক্রিকেট বিশ্বকাপটা এবার জিতেও যেতে পারে।

কেন এই আত্মবিশ্বাস!

প্রধান কারন অবশ্যই এটা যে বাংলাদেশ ভালো ক্রিকেট খেলছে। যেদেশ ভালো ফুটবল খেলেনা, অলিম্পিক স্পোর্টসে যার মান এশিয়ান মানের ধারে কাছেও না, যেখানে ক্রিড়া বহুলাংশেই রাজনীতির বৃত্তে বন্দী, যেখানে মান সম্মত ক্রিড়া অবকাঠামো এখনও গড়ে ওঠেনি, যেখানে চিন্তাশীল দূরদর্শী ক্রিড়া সংগঠকের অভাব সেখানে ক্রিকেটের এই অভাবনীয় এগিয়ে যাওয়া বিস্ময়ের জন্ম দিতে বাধ্য।
এই বিস্ময়ের জবাব সম্ভবত এদেশের মানুষের ক্রিকেটিও আবেগ। যদিও জানি আবেগ নির্ভর ক্রিড়ার ভিত্তি মজবুত হয়না। সত্তর আশি দশকের ফুটবলীয় আবেগ আমাদের সে বাস্তবতাকেই স্মরণ করিয়ে দেয়। কিন্তু ক্রিকেটের ক্ষেত্রে কোন এক অজানা কারনে এই যুক্তিহীণ আবেগই হয়ে উঠেছে অনুপ্রেরণার উৎস।

তবে এদেশের মানুষের ক্রিকেটিও আবেগকে যৌক্তিক কারনেই আরও যুক্তি-জাড়িত হতে হবে। ভারত পাকিস্তান অস্ট্রেলিয়া ইংল্যান্ডকে হারানোর সক্ষমতা আমাদের থাকলেও সব সময় সেরকমটাই ঘটবে এরকম উচ্চাভিলাষ থেকে বের হয়ে আসাটাও জরুরি।

অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে বেঁচে থাক আমাদের ক্রিকেটাবেগ।
শুভকামনা বাংলাদেশ।

লেখক-সুভাষ দাশ।

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ

বীরগঞ্জ,দিনাজপুর