বুধবার ১৪ নভেম্বর ২০১৮ ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

শুভ কামনা ব্রিটিশ ফুটবল।

ভারতে ব্রিটিশ শাসনামলের শেষ ভাইসরয় মাউন্টব্যাটনকে প্রশ্ন করা হলো, ‘এতো দ্রুত ভারত ভাগের সিদ্ধান্ত নেয়া কি খুব জরুরী ছিলো?’ এর জবাবে ব্যাটন সাহেব একটা গল্প বললেন
আমরা ব্রিটিশরা বাচ্চাদের সাইকেল চালানো শেখাই কিভাবে জানেন! প্রথমে ওদের নিয়ে যাওয়া হয় একটা পাহাড়ের উঁচুতে। সেখান থেকে ঢাল বরাবর সাইকেল সহ ওদের ঠেলে দেয়া হয়। নীচে সমতলে পৌঁছাতে পৌঁছাতেই ওরা শিখে যায় সাইকেল কিভাবে চালাতে হয়। আজকের এই আকস্মিক সিদ্ধান্ত ভারত পাকিস্তানের নেতাদেরও নিশ্চয়ই দক্ষ শাসক হতে সাহায্য করবে।
প্রথম এভারেস্ট জয় করেছেন কে এমন প্রশ্নের সঠিক জবাব পেতে আপনার মুহুর্তমাত্র অপেক্ষার প্রয়োজন হবেনা। কিন্তু যদি বলা হয় হিলারীতেনজিং চেয়ে ঊনত্রিশ বছর আগে দুজন ব্রিটিশ নাগরিক এভারেস্ট চূড়াকে তাদের পায়ের নীচে নিয়ে এসেছিলো তাহলে হয়তো ভড়কে যাবেন আমার মত অনেকেই। এটা কিভাবে সম্ভব! তাহলে শুনুন সে গল্প
ঊনিশ চব্বিশ সালের ঘটনা। এভারেস্ট জয়ের তীব্র আকাঙ্খাকে মাঝপথে জলান্জলি দিয়ে নেমে আসছিলেন হাওয়ার্ড সমারভেল নামের একজন পর্বাতারোহী। ফিরতি পথে ক্লান্ত অবসন্ন দেহটাকে একটা পাথরের খাঁজে ছড়িয়ে দিয়ে যখন বিশ্রাম নিচ্ছিলেন সমারভেল তখনই তিনি দেখতে পান পাহাড়শৃঙ্গের দিকে উঠতে থাকা দুজন মানুষকেজর্জ ম্যালোরি আর তার সঙ্গী স্যান্ডি আরভাইন। দুজনই ব্রিটিশ নাগরিক। সমারভেল তার ক্যামেরাটি দিয়ে দেন ম্যালোরিকে। এভারেস্ট জয়ের সূবর্ণক্ষণের ছবি তুলে রাখার জন্য। ইতিহাস থেকে এমন কথাও শোনা যায় এভারেস্টের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ থেকে মাত্র আটশো ফুট দুরে থাকতে শেষবারের মত দুজনকে দেখা যায়। কিন্তু তাদের খবর ওই পর্যন্তই। স্বপ্নচূড়া পর্যন্ত পৌঁছানো তাদের পক্ষে সম্ভব হয়েছিলো কিনা সেটা জানাতে দূর্ভাগা ম্যালোরি আর আরভাইন দুজনের কেউই আর ফিরে আসেননি। তীব্র তুষার ঝড় হয়তো নিভিয়ে দিয়েছিলো দুই অকুতভয় পর্বতারোহীর জীবন প্রদীপ। তবে একেবারে হারিয়েও যাননি তারা। ঘটনার পঁচাত্তর বছর পরে ঊনিশ নিরানব্বই সালে ম্যালোরির মৃতদেহ পাওয়া যায় বরফ আচ্ছাদিত অবস্হায়। তখনও তার শরীর পেঁচিয়ে ছিলো, ‘জি ম্যালোরিলেখা একটা টিশার্ট। কিন্তু এখনও সন্ধান মেলেনি আরভাইন আর সমারভেলের ক্যামেরাটির। অদুর ভবিষ্যতে যদি অন্তত সমারভেলের ক্যামেরাটির সন্ধান মেলে সেদিন হয়তো অন্য একটি সত্যের মুখোমুখি দাঁড়াতে হবে এভারেস্ট জয়ের ইতিহাসকে

লেখা যখন লিখছি থাইল্যান্ড পাহাড়ের গভীর গুহায় আটকে থাকা ক্ষুদে ফুটবল দলটির বার কিশোর ফুটবলার তখন তাদের কোচ সহ উজ্জ্বল পৃথিবীর উন্মুক্ত আঙ্গিনায় ভয়হীন ডানা মেলে দিয়েছে। নিখোঁজ হওয়ার নয়দিন পর শুধু থাইল্যান্ড নয় গোটা মানবিক বিশ্ব যখন দলটির নিরাপদ ফিরে আসার দমবন্ধ উৎকণ্ঠায় অপেক্ষার প্রহর গুনছে ঠিক তখনই দুজন ব্রিটিশ ডুবুরি তাদের অবস্হান চিহ্নিত করতে সমর্থ হন। কিশোর দলটির বেঁচে থাকার সুস্হ থাকার খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বময়। কিন্তু স্বস্তির সংগে যোগ হয় শংকাওবেঁচে ফিরতে পারবে তো ওরা! থাইল্যান্ড নেভীর অবসরপ্রাপ্ত পেটি অফিসার সামান কুনানের গল্পটিও এখানে প্রাসঙ্গিক। একজন দক্ষ ডুবুরি তিনি। উদ্ধার অভিযানের ভয়াবহ যাত্রার প্রথম চ্যালেঞ্জটি নিজের কাঁধে তুলে নেন কুনান। কে জানে নি:সন্তান কুনান তার সুপ্ত সন্তান বাৎসল্যের দায় শোধ করতে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন কিনা! অসহায় বালকদের বাঁচিয়ে রাখার আয়োজন সম্পন্ন করে ফেরার পথে আত্মোৎসর্গ করেন মহান মানুষটি। ইতিহাস নিশ্চয়ই পরম কৃতজ্ঞতায় স্মরণে রাখবে মহান আত্মত্যাগ।
কুনানের মত সরাসরি যুক্ত হওয়ার সুযোগ না থাকলেও অসুহিষ্ণু বিশ্ব পরিমন্ডলের অযুত নিযুত সংবেদনশীল মানুষ তাদের শুভকামনার বার্তা পৌঁছে দিতে কার্পণ্য করেননি কেউ। তুরস্ক উপকুলে নিথর শিশু শরীরের আয়লান কুর্দি আর থাইল্যান্ড পাহাড়ের ভয়াল গুহায় অনিশ্চিত জীবনের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে থাকা একদল কিশোর, এখানে বিশ্ব মানবতার ধর্মে উভয়ই একদম বরাবর।
ঘটনায় একটা বিস্ময় জিইয়ে আছে এখনও। হারিয়ে যাওয়ার নয় দিন পর দলটির সন্ধান মিলেছে। জানা মতে লম্বা সময় কাটানো মত প্রস্তুতি নিয়ে দলটি গুহায় ঢুকেনি। পর্যাপ্ত খাদ্য প্রাপ্তির অনিশ্চয়তা তাই থাকাই স্বাভাবিক। গুহায় আটকে থাকা দলটির প্রথম স্হির চিত্র পাওয়ার পর তাদের কাউকেই খুব অস্বাভাবিক লাগেনি। বন্ধু বিজয় তালুকদারের পোস্টে দলটির মেডিটেশন নির্ভরতার কথা জানলাম। শুধু আত্মনিয়ন্ত্রনের মধ্যে দিয়ে ক্ষুধা তৃষ্ণা ভয় ভুলে থাকা যায়! বিষয়ে জানাশোনা কম। জ্ঞানহীণের শেষ পরিনতি বিস্মিত হওয়া। আমার বিস্ময় আরও বেড়ে গেল

পাহাড়ের সাথে বৃটিশদের এক ধরনের নিবিড় সখ্যতা হয়তো থাকতে পারে। খাড়া পাহাড়ের ঢাল বেয়ে ব্রিটিশ ফুটবল এখন বিশ্ব ফুটবলের শিখর চুড়ার খুব কাছাকাছিমাত্র দুটো ধাপ। দুর্ভাগা ম্যালোরির অর্জন কুয়াশায় ঢাকা। হ্যারি কেইনদের অর্জন সাফল্যের আলোয় উদ্ভাসিত হোক

শুভ কামনা ব্রিটিশ ফুটবল

লেখক-সুভাষ দাশ

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ।

বীরগঞ্জ, দিনাজপুর।