শুক্রবার ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শেকড়ের সন্ধানে : বাংলায় প্রথম পবিত্র কোরাণের অনুবাদ

বাংলা ভাষায় পবিত্র কোরআন শরীফ অনূবাদের চর্চার ইতিহাস প্রাচীন। মধ্যযুগে কোরআন ও হাদিস ভিত্তিক পুথি সাহিত্যের বিপুল ভান্ডার গড়ে উঠলেও তখন পর্যন্ত পবিত্র কোরআন শরীফের প্রত্যক্ষ ও সরাসরি অনুবাদের কাজে কেউ হাত দিয়েছিলেন কিনা সে’ সম্পর্কে সঠিকভাবে আমাদের কিছু জানা নেই। বিভিন্ন মিউজিয়াম, প্রাচীন মসজিদ, খানকাহ প্রভৃতিতে সংরক্ষিত শিলালিপিগুলো সাধ্য মতো আমরা অনূসন্ধান করে দেখেছি। সে’গুলোতে কোরআনের আয়াত রয়েছে বটে, কিন্তু তার কোন বাংলা তরজমা নেই।

           পবিত্র কোরআনের প্রথম বঙ্গানুবাদক কে ছিলেন ? এ প্রশ্নটি করলে শিক্ষিত সমাজের যে কেউ বলবেন কেন ভাই গিরিশচন্দ্র সেন। এ তথ্যটি ব্রিটিশ আমল থেকে অদ্যাবধি সবার জানা। সে’ সময়ে অবিভক্ত বাংলার ৩ কোটি অধ্যূষিত মুসলমানের মাতৃভাষা যে বাংলা তা’ থেকে কোরআনের অনূবাদ প্রকাশের কল্পনা ১৮৭৬ খ্রি. পর্যন্ত এদেশের কোন মনীষীর উল্লেখযোগ্য দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারে নাই। তখন আরবী, ফার্সী ভাষায় সূপন্ডিত মুসলমানের অভাব এদেশে ছিলনা। এই গুরু কর্তব্য ভার বহন করার জন্য সূদৃঢ় সংকল্প নিয়ে সর্বপ্রথম এগিয়ে এলেন বাংলার একজন অখ্যাত হিন্দু সন্তান গিরিশ চন্দ্র সেন।

           ১৮৩৫ খ্রি. নরসিংদি জেলার অন্তর্গত মহেশ্বরদি পরগনার পাঁচদোনা গ্রামে ভাই গিরিশ চন্দ্র সেনের জন্ম এবং ১৯১০ খ্রি. ১৫ আগষ্ট ঢাকা শহরে তার ইহজীবনের অবসান ঘটে। ১৮৮০ খ্রি. থেকে ১৮৮৬ খ্রি. পর্যন্ত টানা ৭ বছর তিনি অক্লান্ত পরিশ্রম করে সমগ্র কোরআন শরীফের বাংলা অনুবাদ সম্পন্ন করেন। অসাধারণ বিদ্যানূরাগী, ধী শক্তি সম্পন্ন এই মানুষটির ফারসী এবং সংস্কৃতি ভাষায় ছিল অগাধ পান্ডিত্য। পেশায় কখনও কাছারিতে নকল নবিশ, শিক্ষক ময়মনসিংহ জেলা স্কুলের আবার কখনো বা সম্পাদনা করেছেন পত্রিকা। তবে নেশা ছিল তাঁর সব ধর্মের গ্রন্থ অধ্যায়ন। ইসলাম ধর্মের গ্রন্থ পাঠে তাঁর আগ্রহ ছিল অসীম। মাসিক মোহাম্মদীর সম্পাদক মাওলানা আকরাম খাঁ সাহেব গিরিশ চন্দ্রের এই অসাধারণ সাধনা ও অনুপম সিদ্ধিকে জগতের অষ্টম আশ্চর্য বলে উল্লেখ করেছেন। শুধু কোরআন শরীফ অনুবাদক হিসেবেই নয় মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স:) এর ও প্রথম  বাংলায় জীবনী রচয়িতা ও তিনি। সেই মহামূল্যবান গ্রন্থটির নাম মহাপুরুষ চরিত (১৮৮৫-১৮৮৭ খ্রি., মহাপুরুষ মোহাম্মদের জীবন চরিত)। কিন্তু আমাদের স্মরণ রাখা দরকার কোরআনের অংশ বিশেষ আমপারা অনুবাদের প্রচেষ্টা গিরীশ চন্দ্র  সেনের কোরআন অনুবাদের বহু পূর্বে গ্রহণ করা হয়েছিল। আজ থেকে প্রায় দু’শ বছর পূর্বে ১৮০৮ খ্রিষ্টাব্দে রংপুর জেলার গঙ্গাচড়া উপজেলা চিলাখাল মটুকপুর গ্রাম নিবাসী মৌলভী আমির উদ্দীন বসূনিয়া আমপারার কাব্যনুবাদ করেছিলেন। বাংলা ভাষায় পবিত্র কোরআন শরীফ আংশিক অনুবাদের তিনিই প্রথম পথিকৃৎ। এটি সমগ্র রংপুর বাসীর জন্য কম গৌরবের কথা নয়। এই আমপারা কাব্যানুবাদ খানি সেকালের লিথো প্রেসে মুদ্রিত হয়েছিল। এর পৃষ্ঠা সংখ্যা ছিল ১৬৮। মূদ্রনের তারিখ জানা’না গেলেও মূদ্রণ রীতির প্রাচীনত্বের বৈশিষ্ঠ্যে গ্রন্থখানি প্রাচীনত্বের দাবী করতে পারে। এর একটি খন্ড বঙ্গীয়সাহিত্য পরিষদের গ্রন্থাগারে অদ্যাবধি রক্ষিত রয়েছে। আমির উদ্দীন বসুনিয়া কৃত, আমপারার কাব্যানুবাদের বঙ্গানুবাদ প্রকাশ কাল আনুমানিক ১৮০৮/১৮০৯ খ্রি.। সম্ভবতঃ এটি পবিত্র কোরআনের প্রথম আংশিক অনূবাদ।

           চট্টগ্রামের প্রখ্যাত লেখক ও প্রাচীন পুথি সংগ্রাহক আব্দুল করিম সাহিত্য বিশারদ (১৮৭১-১৯৫৩ খ্রি.) তার সংকলিত “বাংলা প্রাচীন পুথিঁর বিবরণ” গ্রন্থের একস্থানে আমীর উদ্দিন বসুনিয়ার বাংলা আমপারার কথা লিখেছেন গুরুত্ব সহকারে। তিনি বলেছেন আমার বিশ্বাস এদেশে বাংলা টাইপ প্রচলনের পূর্বে এ গ্রন্থটি ছাপা হয়েছিল। আবার অনেকে মনে করে থাকেন জনাব আমির উদ্দীন বসূনিয়ার এই সরল বাংলা কাব্যানুবাদ খানি মূদ্রিত হয়ে প্রকাশিত হয়েছিল ১৮৬৬ খ্রি.। রংপুরের কুন্ডি পরগনার বিখ্যাত জমীদার কালীচন্দ্র রায় চৌধুরীর অর্থানুকুল্যে সর্বপ্রথম গোপালপুরের নিকট শ্যামপুর রেল ষ্টেশনের কাছে মূদ্রণযন্ত্র স্থাপন করে পূর্ববঙ্গের সর্বপ্রথম পত্রিকা “সাপ্তাহিক রঙ্গপুর বার্ত্তাবহ” প্রকাশ করেছিলেন ১৮৪৭ খ্রিষ্টাব্দে। খুব সম্ভব এই প্রেসেই পরবর্তীতে ছাপা হয়েছিল তাঁর কোরআনের বঙ্গানুবাদ এই মহাগ্রন্থটি। প্রাচীন কালের মহারাজা ভগদত্ত এবং পঞ্চপান্ডবদের রণভূমি এই রঙ্গপুরের স্বর্নসন্তান কবি আমির উদ্দীন বসুনিয়ার পবিত্র কোরআনের আমপারার বঙ্গানুবাদ ১৮৬৬ খ্রি. ছাপার অক্ষরে প্রকাশ পেয়ে অভূতপূর্ব আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল। গিরিশ চন্দ্র সেন পবিত্র কোরআন এর বঙ্গানুবাদ করেছিলেন ১৮৮১ খ্রি. থেকে ১৮৮৬ খ্রি. পর্যন্ত। এ থেকে প্রমাণিত হয় যে, গিরিশ চন্দ্র সেনের ২০ বছর পূর্বে (১৮৮৬-১৮৬৬ = ২০ বছর পূর্বে) পল্লীর এক প্রত্যন্ত অঞ্চলে রংপুরের জনাব আমির উদ্দীন বসূনিয়া আংশিক হলেও পবিত্র কোরআনের সর্বপ্রথম বঙ্গানূবাদক হিসাবে ইতিহাসে অমর হয়ে আছেন। সমগ্র বঙ্গ বিশেষ করে রংপুরবাসীর জন্য তিনি গৌরবোজ্জল ভূমিকা পালন করেছেন একথা নিঃসন্দেহে বলা যায়।

           অবশ্য এখানে উল্লেখ করা যেতে পারে মুসলমানদের মধ্যে টাঙ্গাইলের করটিয়ার মৌলভী মুহাম্মদ নঈমুদ্দীন (১৮৩২-১৯১৬ খ্রি.) আখবার এসলামীয়ার পত্রিকার সম্পাদক কোরআন শরীফের অনুবাদে প্রবৃত্ত হন। তিনিও কোরআন শরীফের পূর্নাঙ্গ অনুবাদে সক্ষম হন নাই।মুসলমান অনূবাদকদের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কোরআন শরীফ বাংলায় প্রথম অনুবাদের কৃতিত্ব পশ্চিমবঙ্গের অন্তর্গত চব্বিশ পরগনা জেলার চন্ডিপুর গ্রামের অধিবাসী মৌলভী আব্বাস আলীর (১৮৪৬-১৯২২ খ্রি.)। মৌলভী আব্বাস আলী পূর্ণাঙ্গ কোরআন এর একখানি সুন্দর বঙ্গানুবাদ প্রকাশ করেন ১৯০৭ খ্রি.। তাই বলা চলে মুসলমানদের মধ্যে সর্বপ্রথম পূর্ণাঙ্গ কোরআনের বঙ্গানুবাদের গৌরবের দাবীদার মৌলভী আব্বাস আলীর (১৮৪৬-১৯২২ খ্রি.)।

            এরপর যিনি পূর্ণাঙ্গ কোরআন শরীফ অনুবাদ করেন তিনি হলেন আমাদের রংপুরের খান বাহাদূর তসলিম উদ্দীন আহাম্মদ (১৮৫২-১৯২৭ খ্রি.)। তিনি বোদা উপজেলার চন্দনবাড়ী প্রাইমারী স্কুল থেকে কৃতিত্বের সাথে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে উচ্চ শিক্ষা লাভের জন্য স্বীয় মাতৃভূমি ছেড়ে রংপুরে এসে উপনীত হন। রংপুর ছিল তখন হিংস্র শ্বাপদ সংকুল বিজন বন জঙ্গলে পরিপূর্ণ জনপদ। তিনি ছিলেন রংপুর জেলা স্কুলের কৃতি ছাত্র ও রংপুরের প্রথম মুসলিম গ্রাজুয়েট (১৮৭৭ খ্রি. কলকাতার প্রেসিডেন্সী কলেজ থেকে বি.এ পাশ করেন)।

            খান বাহাদুর তসলিম উদ্দীন কৃত এই মহাগ্রন্থের পূর্ণাঙ্গ তরজমা ১৮৯১ খ্রি. থেকে ১৯১৩ খ্রি. পর্যন্ত সূদীর্ঘ ২২ বছর ব্যাপী তাঁর অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল। তসলীম উদ্দীনের পূর্ণাঙ্গ কোরআন শরীফের বঙ্গানুবাদের প্রকাশ কাল হলো ১৯২৩ খ্রি. থেকে ১৯২৬ খ্রি. পর্যন্ত। অবশ্য আব্বাস আলীর পরে হলেও খান বাহাদূর তসলিম উদ্দীন (১৮৫২-১৯২৭ খ্রি.) তাঁর সমসাময়িক অনূবাদক এবং সম্ভবত: এ যাবৎ প্রকাশিত কোরআনের উলে¬খযোগ্য অনূবাদকের অন্যতম।

            মুসলমানদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ, তা’ও কিনা একজন বিধর্মী কর্তৃক অনূদিত, এই লজ্জা নিবারণের জন্য তসলিম উদ্দীন অগ্রসর হয়েছিলেন পবিত্র কোরআনের বঙ্গানুবাদের মতো এক গৌরবোজ্জল দূ:সাহসিক কাজে। তসলিম উদ্দীনের নাম শুধুমাত্র সাহিত্য সাধক হিসেবেই নয়, একজন তীক্ষ্মদর্শী বুদ্ধিজীবী, স্বধর্মনিষ্ঠ সমাজ সেবক হিসেবেও স্মরণীয়। পাদরী উইলিয়াম গোল্ডস্যাকও কোরআন শরীফের পূর্ণাঙ্গ বঙ্গানুবাদ করেন। গিরিশ চন্দ্রের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে তাঁর বহু পরে কোরআনের আংশিক অনুবাদ করেন মৌলবী মুহম্মদ নঈমুদ্দীন। নঈমুদ্দীন ১৮৩২ খ্রি. টাঙ্গাইল জেলার অন্তগর্ত করটিয়া সবুজ গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন এবং ১৯২৬ খ্রি. মারা যান। তিনি কোরআন শরীফের প্রথম থেকে তেইশ পারার অনুবাদ করার পর মৃত্যুমুখে পতিত হন।

            টাঙ্গাইল জেলার মৌলবী আবুল ফজল আবদুল করিম ও সম্পূর্ণ কোরআনের অনুবাদ করেছিলেন। আবদুল করিমের অনুবাদে মূল আরবীও আছে। ইনি প্রথমে হাইস্কুলের হেড মৌলবী ছিলেন, পরে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবী ও ফারসী ছাপার প্রুফ রীডার হন।

            খান বাহাদুর আবদুর রহমান খাঁর সমগ্র কোরআনের অনুবাদ মূল আরবী প্রকাশ হয় ১৯৫২ খ্রিষ্টাব্দে। তাঁর অনুবাদের ভাষা সহজ ও সরল। স্থানে স্থানে টিকাও আছে।

           উল্লিখিত পূর্ণ কিংবা প্রায় পূর্ণ অনুবাদগুলো ছাড়া অনেকেই কোরআন শরীফের আংশিক অনুবাদ করেছেন এবং কেউ কেউ কোরআনের উৎকৃষ্ট আয়াত এবং অংশ সমূহের বাংলা সংকলন বের করেছেন। কেউ আবার আংশিক কাব্যে কোরআন বের করেছেন। এদের মধ্যে আবুল মজিদ, মোহাম্মদ আবদুল হাকিম, আলী হাসান, কিরোন গোপাল সিংহ, মৌলনা রহুল আমীন, মোহাম্মদ আকরাম খাঁ, এয়ার আহমেদ, কুদরত-ই-খুদা, কাজী নজরুল ইসলাম, মীর ফজলে আলী, মুহম্মদ আযহার উদ্দীন, ফজলুর রহীম, আবুল ফজল, মুহম্মদ শহীদুল্লাহ, সিরাজুল ইসলাম, মুহম্মদ তৈমুর ও খন্দকার সাইদুর রহমানের নাম উল্লেখযোগ্য।                                     

বিশ্বে কোরানই একমাত্র মহাগ্রন্থ যা সবচেয়ে বেশি ভাষায় অনুদিত হয়েছে।

সমগ্র বিশ্বে বিভিন্ন ভাষায় কোরআনের কতিপয় প্রথম অনুবাদকগণের নাম

১)         বাঙলা ভাষায় প্রথম কোরআন এর পূর্ণাঙ্গ অনুবাদ করেন গিরীশ চন্দ্র সেন ১৮৮১ খ্রি.

২)         ইংরেজী ভাষায় প্রথম কোরআন অনুবাদ করেন আলেকজান্ডার বস ১৬৪৮ খ্রি.

৩)        জার্মান ভাষায় প্রথম কোরআন অনুবাদ করেন সলেমান স্কেইজার ১৫৪৭ খ্রি.

৪)         ইতালিয়ান ভাষায় প্রথম কোরআন অনুবাদ করেন আন্দ্রে এ্যারি ভ্যারিনি ১৫৪৭ খ্রি.

৫)         ফরাসি ভাষায় প্রথম কোরআন অনুবাদ করেন আন্দ্রে ডুরে‌্যয়ার ১৬৪৭ খ্রি.

৬)        রাশিয়ান ভাষায় প্রথম কোরআন অনুবাদ করেন পিওটরভি পোস্টানিকভ ১৭১৬ খ্রি.

৭)         উর্দু ভাষায় প্রথম কোরআন অনুবাদ করেন আব্দুল সালাম মুহম্মদ ১৮২৮ খ্রি.

৮)        ফার্সি ভাষায় প্রথম কোরআন অনুবাদ করেন কামালুদ্দীন হোসাইন ১৮৩৭ খ্রি.

৯)        হিন্দি ভাষায় প্রথম কোরআন অনুবাদ করেন আহমদ শাহ মসিহি ১৯১৬ খ্রি.

১০)      চীনা ভাষা প্রথম কোরআন অনুবাদ করেন টিয়েংলি ১৯২৭ খ্রি.

১১)      আফ্রিকান ভাষায় প্রথম কোরআন অনুবাদ করেন ঈসমাইল আব্দুর রাজ্জাক ১৯৬০ খ্রি.

১২)       কোরিয়ান ভাষায় প্রথম কোরআন অনুবাদ করেন কিম ১৯৭১ খ্রি.

১৩)      সুদানি ভাষায় প্রথম কোরআন অনুবাদ করেন এইচ কামারুদ্দিন সালেহ ১৯৭১ খ্রি.

১৪)       কাশ্মিরী ভাষায় প্রথম কোরআন অনুবাদ করেন মুহম্মদ ইয়াহিয়া শাহ ১৯৮৭ খ্রি.

১৫)      রুমানিয়ান ভাষায় প্রথম কোরআন অনুবাদ করেন সিল ডেস্টো ও কট্রনভিয়ান ১৯১২ খ্রি.

১৬)      গুজরাটি ভাষায় প্রথম কোরআন অনুবাদ করেন আব্দুর কারিরি লোফনান ১৮৭৯ খ্রি.

            বাংলা ভাষায় পবিত্র কোরআন শরীফ অনুবাদের প্রথম পথিকৃৎ ছিলেন মৌলভী আমির উদ্দীন বসুনিয়া যা’এই প্রবন্ধের গোড়াতেই উলে¬খ করা হয়েছে। আংশিক হলেও পবিত্র কোরআনের সর্বপ্রথম বঙ্গানুবাদক ছিলেন তিনি। মুসলিম বাংলা সাহিত্যের এই অমর কীর্তি তাঁকে চিরস্মরণীয় করে রাখবে।

            গিরিশচন্দ্র সেন তাঁর কোরানের প্রথম সম্পূর্ণ পূর্ণাঙ্গ বঙ্গানুবাদ (১৮৮০-১৮৮৬ খ্রি.) সৃষ্টির জন্য আজীবন বাঙালির মনিকোঠায় চিরকাল অমর হয়ে থাকবেন, একথা নি:শংসয়ে বলা যেতে পারে। অবিভক্ত বাংলার এই অমর কীর্তি তাঁকে চিরস্মরণীয় করে রাখবে।

লেখক-মো: জোবায়ের আলী জুয়েল

কলামিষ্ট, সাহিত্যিক, গবেষক, ইতিহাসবিদ ও অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা

মোবাইল-০১৬৭৩-৮৮৪৫৫২