মঙ্গলবার ২১ অগাস্ট ২০১৮ ৬ই ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

শ্বশুর হত্যা মামলায় ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত আসামী আজাহার আলী রাজার মুক্ত জীবন

শ্বশুর হত্যা মামলায় ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত আসামী আজাহার আলী রাজা উচ্চ আদালত থেকে খালাস পাওয়ার পরেও আপিল বিভগের আদেশ সংক্রান্ত রায়ের কপি সময়মত না পৌছানোর কারনে ৮ বছর অতিরিক্ত জেলে ছিলেন। অবশেষে দিনাজপুর জেল সুপার মো: সাইদ হোসেনের তৎপরতায় মঙ্গলবার বিকেল ৬টা ৩০ মিনিটে শুরু হয় আজাহার আলী রাজার মুক্ত জীবন।
সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়, ১৯৯৮ সালের নিজ শ্বশুরকে কুপিয়ে হত্যা করার অভিযোগে ২০০৫ সালে বিচারিক আদালত রায়ে আজাহারকে মৃত্যুদন্ডাদেশ প্রদান করে নিম্ন আদালত। পরে উচ্চ আদালতে মৃত্যুদন্ডাদেশের বিরুদ্ধে তাঁর করা জেল আপিল ও ডেথ রেফারেন্সের ওপর শুনানি শেষে ২০১০ সালের ২৪ অক্টোবর দেওয়া হাইকোর্টের রায়ে তিনি খালাস পান। এই রায়ের বিরুদ্ধে করা (ফৌজদারি বিবিধ আবেদন) করে রাষ্টপক্ষ। এর পরিপ্রেক্ষিতে ২০১২ সালের ১ অক্টোবর আপিল বিভাগের আদেশে বলা হয়, দুই সপ্তাহের মধ্যে রাষ্ট্রপক্ষ নিয়মিত লিভ টু আপিল করবে। নতুবা ফৌজদারি বিবিধ আবেদনটি খারিজ হয়ে যাবে। পরে দিনাজপুর কারা কর্তৃপক্ষ লিভ টু আপিলের ফলাফল ও মামলার বর্তমান অবস্থা নিশ্চিত করতে কয়েক দফা চিঠি দেয়।
চলতি বছরের ১২মে সুপ্রিম কোর্ট লিগ্যাল এইড কমিটির উদ্যোগে একটি মতবিনিময় সভায় সুপ্রিমকোর্ট লিগ্যাল এইড কমিটির চেয়ারম্যান ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম এই বন্দীর লিভ টু আপিলের সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে জানাতে অনুরোধ করেন দিনাজপুর কারাগারের তত্ত্বাবধায় মো: সাঈদ হোসেন। পরে ওই কমিটির সদস্য সচিবের স্বাক্ষরে ১৫ মে আপিল বিভাগের রেজিষ্ট্রার বরাবর লিভ টু আপিলের ফলাফল ও মামলার বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে চিঠি পাঠানো হয়।
দিনাজপুর কারাগারের তত্ত্বাবধায় মো: সাইদ হোসেন জানায়, ১৯৯৮ সালে শ্বশুর আব্দুর জব্বার কে খুনের অপরাধে আজাহার রাজার ২০০৫ সালে ফাঁসির আদেশ দেয় আদালত। ২০০৮ সালে আপিলের মাধ্যমে ২০১০ সালে খালাস পায় রাজা। আইনী জটিলতার কারনে দীর্ঘদিন আজাহার রাজা কারাভোগ করে। বুধবার বিকালে কারাগারে আজাহারের বৈধ মুক্তির কাগজ পাওয়ায় পর তাকে মুক্তি দেয় হয়েছে।