রবিবার ৭ জুন ২০২০ ২৪শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শ্রীলংকায় যুদ্ধাপরাধের আন্তর্জাতিক তদন্ত চায় জাতিসংঘ

Navi_Pillayজাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদ (ইউএনএইচসিআর)’র প্রধান নাভি পিল্লাই শ্রীলংকায় বিচ্ছিন্নতাবাদি তামিল টাইগারদের (এলটিটিই) সঙ্গে সরকারি বাহিনীর যুদ্ধের চূড়ান্ত পর্যায়ে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগের আন্তর্জাতিক তদন্তের সুপারিশ করেছেন।

রোববার স্থানীয় সানডে টাইমসের এক খবরে বলা হয়েছে, নাভি পিল্লাই ইউএনএইচসিআরকে একটি নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটি গঠনের আহবান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, বারবার আহবান সত্ত্বেও কলম্বো বরাবরই সত্য প্রকাশ ও নৃশংসতার জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক মানবাধিকার ও মানবিক সহায়তা আইন লংঘনের অভিযোগের অধিকতর তদন্তে এবং যেকোন ধরনের অভ্যন্তরীণ জবাবদিহিতা প্রক্রিয়া পর্যবেক্ষণে একটি আন্তর্জাতিক তদন্ত কমিটি গঠন করতে হবে।’

জেনেভায় আগামী মাসে ইউএনএইচসিআর’র অধিবেশনের জন্য তৈরি করা নাভি পিল্লাইয়ের একটি প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে সানডে টাইমস এ খবর প্রকাশ করেছে। ওই প্রতিবেদনের একটি আগাম কপি পর্যবেক্ষণের জন্য কলম্বোকে দেয়া হয়েছে। প্রতিবেদনে শ্রীলংকার বিরুদ্ধে মানবাধিকার ও অব্যাহতভাবে গণতান্ত্রিক স্বাধীনতা লংঘনের ঘটনা তদন্তে ব্যর্থতার অভিযোগ করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে শ্রীলংকার পররাষ্ট্র দপ্তরের তাৎক্ষণিক কোন মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে কলম্বো বার বার দাবি করে আসছে, তাদের সৈন্যরা কোন যুদ্ধাপরাধ করেনি।

তবে সংখ্যাগরিষ্ঠ সিংহলী ও সংখ্যালঘু তামিলদের মধ্যে পারস্পরিক সমঝোতা নিশ্চিত করতে আরো সময়ের প্রয়োজন বলে দাবি করা হয়েছে।

শ্রীলংকায় ২০০৯ সালের মে মাসে বিচ্ছিন্নতাবাদি তামিল টাইগারদের সঙ্গে সরকারি বাহিনীর যুদ্ধের সমাপ্তি ঘটে। নাভি পিল্লাই তার প্রতিবেদনে যুদ্ধের শেষ পর্যায়ে সংঘটিত যুদ্ধাপরাধের প্রমাণ উল্লেখ করেছেন।

জাতিসংঘ এর আগে শ্রীলংকায় যুদ্ধের শেষ মাসগুলোতে কমপক্ষে ৪০ হাজার বেসামরিক তামিল নিহত এবং সরকারি বাহিনীর বিরুদ্ধে অসংখ্য নৃশংসতার অভিযোগ করেছিল। তবে কলম্বো দৃঢ়ভাবে এ অভিযোগ নাকচ করেছিল।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email