রবিবার ১৬ জুন ২০১৯ ২রা আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সংরক্ষিত মহিলা আসনে এমপি হওয়ার দৌড়ে যেসব তারকা

গত বছরের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয় একাদশ সংসদ নির্বাচন। এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পক্ষে প্রচারণায় মাঠে সবর ছিলেন শোবিজ তারকারা। নির্বাচনে আওয়ামী লীগের জয়ে সংরক্ষিত নারী আসনে এমপি হতে সরব হয়েছেন দলের নারী নেত্রীরা। পাশাপাশি আলোচনায় আছেন শোবিজের তারকারাও। বিভিন্ন আড্ডা-বৈঠকে উঠে আসছে বেশকিছু নাম। উল্লেখ করা যায়, অভিনেত্রী রোকেয়া প্রাচী, শমী কায়সার, তারিন জাহান, জ্যোতিকা জ্যোতি, তারানা হালিম, চিত্রনায়িকা কবরী, অপু বিশ্বাসের নাম।

সংরক্ষিত মহিলা সদস্যদের নির্বাচিত করবেন সাধারণ ভোটারদের ভোটে নির্বাচিত ৩০০ জন এমপি। এরইমধ্যে এ প্রক্রিয়া শুরু হলেও যাচাইবাছাই করে নির্বাচন হবে ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি সময়ে।

রোকেয়া প্রাচী
দীর্ঘদিন ধরেই আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় অভিনেত্রী রোকেয়া প্রাচী। এ অভিনেত্রীকে দলটির কার্যক্রমে নিয়মিতই দেখা মেলে রাজপথে। বর্তমানে বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগের সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। সেই সুবাদে ফেনী-৩ আসনে (দাগনভূঞা-সোনাগাজী) গেল নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশীও ছিলেন রোকেয়া প্রাচী। এর আগে প্রচারণাও চালিয়েছেন নিয়মিত। কিন্তু নির্বাচনে মনোনয়ন পাননি তিনি। তবে মনোনয়ন পাওয়া নেতার জন্য নৌকায় ভোট চেয়েছেন দলের নির্দেশ মেনে। এবার তিনি আশা করছেন সংরক্ষিত আসনে দল থেকে মনোনয়ন পাবেন ও নির্বাচিত হবেন বলে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, অনেক দিন ধরেই আমি আওয়ামী লীগের কর্মী হিসেবে কাজ করে আসছি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করে বড় হয়েছি। নেত্রী শেখ হাসিনার সান্নিধ্য আমার রাজনৈতিক ও দেশপ্রেমের চেতনাকে উজ্জ্বল করেছে। সেই আদর্শ ও অভিজ্ঞতাকে মানুষের কাজে ব্যবহার করতে চাই। সবেমাত্র মন্ত্রিসভা গঠিত হলো। সংরক্ষিত আসনের নির্বাচন প্রক্রিয়া এখনো অনেক দেরি। তবে আমি নিজেকে তৈরি করছি। সময় হলে আনুষ্ঠানিকভাবেই বাকি সব জানাতে পারব। তিনি বলেন, আমি আশাবাদী, আপা (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) আমাকে মূল্যায়ণ করবেন। দলের জন্য আমার শ্রম, ত্যাগ সম্পর্কে অবশ্যই তিনি অবগত।

শমী কায়সার
পারিবারিকভাবেই আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে যুক্ত আরেক অভিনেত্রী অভিনেত্রী শমী কায়সার। শহীদ বুদ্ধিজীবী ও সাহিত্যিক শহীদুল্লাহ কায়সার ও লেখক পান্না কায়সারের কন্যা তিনি। শহীদুল্লাহ কায়সার ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর স্বাধীনতাবিরোধী রাজাকার, আল বদর ও আল সামসের হাতে বুদ্ধিজীবী নিধনে নিহত হন। পান্না কায়সার এর আগে আওয়ামী লীগের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন। শমী কায়সারও কয়েক বছর ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয়। একাদশ সংসদ নির্বাচনে তিনিও রোকেয়া প্রাচীর সঙ্গে নৌকার প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন চেয়েছিলেন ফেনী-৩ আসনে (দাগনভূঞা-সোনাগাজী)। অনেক আলোচনায় থাকলেও শেষ পর্যন্ত বাদ পড়ে তার নাম। শোনা যাচ্ছে, সরাসরি নির্বাচনের টিকিট না পেলেও সংরক্ষিত নারী আসনের মনোনয়নে এগিয়ে আছেন এই অভিনেত্রী।

অপু বিশ্বাস
সংরক্ষিত আসনে এমপি হওয়ার আলোচনায় আছে ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেত্রী অপু বিশ্বাসের নামও। ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত জাতীয় নির্বাচনে তিনি সক্রিয় ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রচারণায়। ছড়িয়েছিল তার মনোনয়ন কেনার গুজবও। অপু বিশ্বাস সেই গুজব নাকচ করে দিলেও গণমাধ্যমে এসেছিল আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য ও বগুড়া জেলা সভাপতি আলহাজ মমতাজ উদ্দিনের পরামর্শে নির্বাচনে অংশ নেবেন এই নায়িকা। তবে শেষঅব্দি গুজবই প্রমাণ হয়েছিল সেই খবর। মনোনয়ন কিনেননি অপু। তবে এবার অপু বিশ্বাস নিজেই জানান, সংরক্ষিত নারী আসনে এমপি হতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চান তিনি। অপু বলেন, আমি পারিবারিকভাবেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনীতির আদর্শে বেড়ে উঠেছি। তার রাজনৈতিক জীবন ছোটবেলা থেকেই প্রভাবিত করেছে। তাকে তো চোখে দেখার সুযোগ পাইনি। ধন্য হয়েছি বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেখে। তার মাতৃত্বসুলভ ব্যবহার, কঠিন নেতৃত্ব, মানবিকতার সুনাম আজ বিশ্বময়। তার আদর পাওয়ার সৌভাগ্য আমার হয়েছে। আমার জীবনের করুণ দুঃসময়ে তার কাছ থেকে সাহস পেয়েছি, ধৈর্যশীল হওয়ার পরামর্শ পেয়েছি। আমি তার নেতৃত্বে কাজ করার সুযোগ চাই। তিনি আরো বলেন, রাজনীতিতে আমি সক্রিয় নই। এবারই প্রথমবার রাজনীতির মাঠে ছিলাম নৌকার প্রচারণায়। নির্বাচনের শুরু থেকেই ভিডিও বার্তাসহ দেশের নানা প্রান্তে ছুটে গেছি নৌকার প্রার্থীদের জন্য ভোট চাইতে। এছাড়াও নানারকম সামাজিক কার্যক্রমে আমি জড়িত। সামনে মানুষের কল্যানে কাজ করেতে চাই। সেজন্য সবকিছু ঠিক থাকলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন চাইব আমি।

তারানা হালিম
শিক্ষাজীবন থেকেই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন নাট্যনির্মাতা ও অভিনেত্রী তারনা হালিম। তিনি গত দুবারে পরপর আওয়ামী লীগ সমর্থিত সংরক্ষিত মহিলা আসনের তিনি সংসদ সদস্য। গতবার তিনি দলীয় মনোনয়নে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী এবং সর্বশেষ তথ্যপ্রতিমন্ত্রী হিসেবে সাফল্য দেখিয়েছেন। তিনিও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন প্রার্থনা করেন। কিন্তু টিকিট না পেলেও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের হয়ে একঝাঁক তারকা নিয়ে দেশব্যাপী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীদের হয়ে জনসংযোগ করেন। বিশেষ করে উত্তরবঙ্গে তিনি রাতদিন পরিশ্রম করে, তারকাদের নিয়ে নাচ-গান করে, নাটিকা মঞ্চস্থ করে, ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করেন। তাই তার অবদানের কথা দল মূল্যায়ন করবে বলে তিনি মনে করেন।

সারাহ বেগম কবরী
আওয়ামী রাজনীতির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত চলচ্চিত্রের মিষ্টি নায়িকাখ্যাত কবরীও। নারায়ণগঞ্জ-৪ আসন থেকে তিনি নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের টিকিটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। গত দুবারও তিনি দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশা করেন। দল তাকে মনোনয়ন না দিলেও তিনি দলের হয়ে বিভিন্ন কাজে অংশগ্রহণ করেছেন। এবার তিনি সংরক্ষিত মহিলা আসনে সংসদ সদস্য হওয়ার আবেদন করবেন। এ বিষয়ে তিনি বিভিন্নভাবে বলেছেন, দল তাকে যোগ্য মনে করলে মনোনয়ন দেবে। আর না দিলেও তিনি দলের সঙ্গেই থাকবেন। তবে তিনি সংরক্ষিত মহিলা আসনে সংসদ সদস্য হওয়ার জন্য নিজেকে প্রস্তুত করছেন।

জ্যোতিকা জ্যোতি
ছাত্রজীবন থেকেই আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় আছেন অভিনেত্রী জ্যোতিকা জ্যোতি। এবার সংরক্ষিত নারী আসনের জন্য মনোনয়ন চাইবেন অভিনেত্রী তিনি।গত নির্বাচনে ময়মনসিংহ-৩ আসন থেকে মনোনয়ন কেনার আলোচনায়ও এসেছে তার নাম। শেষ পর্যন্ত সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসেন তিনি। অংশ নেন দল থেকে মনোনয়ন দেয়া প্রার্থীর প্রচারণায়। এবার জ্যোতি তৈরি হচ্ছেন সংরক্ষিত আসনের জন্য। জ্যোতি বলেন, পুরো বিষয়টাই দলের উপর নির্ভর করে। দল ও নেত্রী যাদের চাইবেন তারাই সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন পাবেন। নিজের কার্যক্রম, সাংগঠনিক অভিজ্ঞতার আলোকে আমিও মনোনয়ন চাইবো। বাকিটা সময় বলবে। এছাড়াও শোবিজ তারকাদের মধ্যে থেকে সংরক্ষিত মহিলা আসনে মনোনয়ন চাওয়ার তালিকায় দেখা যেতে পারে ছোটপর্দার অভিনেত্রী তারিন জাহান, চিত্রনায়িকা অঞ্জনাসহ আরো অনেকে।